ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৫ কার্তিক ১৪২৮, ২১ অক্টোবর ২০২১, ১৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

জাতীয়

জরুরি প্রয়োজনে বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌরুটে চলছে ৭ ফেরি

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৭০০ ঘণ্টা, জুলাই ৫, ২০২১
জরুরি প্রয়োজনে বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌরুটে চলছে ৭ ফেরি ছবি: বাংলানিউজ

মাদারীপুর: কঠোর বিধি-নিষেধের পঞ্চম দিনে বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌরুটে নেই পণ্যবাহী ট্রাকসহ জরুরি যানবাহনের চাপ। ফেরিঘাট ফাঁকা থাকছে বেশির ভাগ সময়।

দীর্ঘ সময় পর পর ঘাট ছেড়ে যাচ্ছে ফেরি। পার হচ্ছে পণ্যবাহী ট্রাক, কাভার্ডভ্যান, অ্যাম্বুলেন্সসহ জরুরি সব যানবাহন।  

ফেরি কর্তৃপক্ষ জানায়, ঘাট ছেড়ে যেতে ফেরিতে ধারণক্ষমতা অনুযায়ী যে পরিমাণ যানবাহন থাকার কথা তেমনটা নেই। অনেক সময় অপেক্ষার পর কিছু যানবাহন হলে উভয় ঘাটের উদ্দেশে ছেড়ে যায় ফেরি। এদিকে চিকিৎসা সংক্রান্ত কাজে যাওয়া-আসা করা যাত্রীদের কদাচিৎ দেখা মিলে ফেরিতে। তাছাড়া যাত্রী শূন্যই থাকছে ফেরিতে।  

বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌরুটে সোমবার (৫ জুলাই) সকাল থেকে মাত্র সাতটি ফেরি চলছে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন সংস্থার (বিআইডব্লিউটিসি) বাংলাবাজার ঘাট সূত্রে জানা গেছে, কঠোর লকডাউনে শিবচরের বাংলাবাজার ঘাটে গত ০১ জুলাই থেকেই কোনো যাত্রী চাপ নেই। লকডাউনের প্রথম দিনে গত বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই ঘাটে আটকে থাকা পণ্যবাহী ট্রাক পারাপার হওয়ার পর থেকে ঘাটে যানবাহনেরও চাপ কমে গেছে। প্রতিদিন কিছু কিছু ট্রাক আর অ্যাম্বুলেন্স পার হলেও সারাদিনে ফেরিতে তেমন কোনো যানবাহন দেখা যায় না ঘাট এলাকায়। এছাড়াও বাংলাবাজার ঘাটের সমস্ত দোকান-পাট বন্ধ থাকে। ঘাট এলাকায় পুলিশের সার্বক্ষণিক পাহাড়া থাকছে।

শিমুলিয়া থেকে বাংলাবাজার ঘাটের উদ্দেশে ছেড়ে আসা রো রো ফেরি এনায়েতপুরীর যাত্রী রফিকুল হক মোবাইলফোনে বাংলানিউজকে জানান, যানবাহন কম থাকায় ফেরি ছাড়তে দেরি হয়েছে। ফেরিতে ট্রাক আর অ্যাম্বুলেন্সসহ জরুরি কিছু গাড়ি রয়েছে। এছাড়া জরুরি দরকারে ঢাকা যাওয়া অর্ধশতাধিক যাত্রী বাড়ি ফিরছে।

বিআইডব্লিউটিসির বাংলাবাজার ফেরিঘাটের ব্যবস্থাপক মো. সালাহউদ্দিন আহমেদ বাংলানিউজকে বলেন, ঘাটে যানবাহনের কোনো চাপ নেই। দীর্ঘ সময় পর পর যানবাহন হলে ফেরি ঘাট ছেড়ে যায়। কোনো সাধারণ যাত্রীও নেই ঘাটে। জরুরি প্রয়োজনে সাতটি ফেরি চলছে।

শিবচর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মিরাজ হোসেন বাংলানিউজকে জানান,  বাংলাবাজার ঘাটে পুলিশের সার্বক্ষণিক ডিউটি রয়েছে। ঘাটে প্রবেশের সব পথেই চেকপোস্ট বসানো হয়েছে। ঘাটে জরুরি দরকার ছাড়া কেউ যেতে পারছেন না। এছাড়াও মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে পুলিশ সদস্যরা দায়িত্ব পালন করছে। তিন চাকার থ্রি-হুইলাসহ কোনো যানবাহন ঘাটে প্রবেশ করতে পারছে না।

বাংলাদেশ সময়: ১৬৫৫ ঘণ্টা, জুলাই ০৫, ২০২১
এসআরএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa