ঢাকা, রবিবার, ১ কার্তিক ১৪২৮, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ০৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

জাতীয়

২০ বছরেও মুক্তি হলো না জলাবদ্ধতা থেকে

জিএম মুজিবুর, সিনিয়র ফটো করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০২৯ ঘণ্টা, জুলাই ৪, ২০২১
২০ বছরেও মুক্তি হলো না জলাবদ্ধতা থেকে ২০ বছরেও জলাবদ্ধতা থেকে মুক্তি হলো না। ছবি: জিএম মুজিবুর

ঢাকা: উন্নয়নের ছোঁয়া লাগে নাই বাংলাদেশের এমন কোনো জায়গা নেই, অথচ রাজধানীর প্রাণকেন্দ্র ফার্মগেটের পশ্চিম তেজতুরী বাজার (২৬ নম্বর ওয়ার্ড) এলাকায় বিশ বছর ধরে জলাবদ্ধতার কোনো সমাধান হয়নি, এমন অভিযোগ এলাকাবাসীর।

রোববার (০৪ জুলাই) সকাল থেকেই টিপটিপ বৃষ্টি।

বেলা ১০টার পর থেকে ভারী বৃষ্টির কারণে রাজধানীর পশ্চিম তেজতুরী বাজার এলাকায় সরেজমিনে দেখা যায় কোমর পানি। এলাকার দোকানপাট ও নিচতলা প্রত্যেকটা বাড়িতেই পানি উঠে গেছে। গ্রিন রোডের রাস্তায় কোমর পানি জমেছে। একটু বৃষ্টি হলেই চলাচল করা দুষ্কর হয়ে পড়ে।

হামিম কমিউনিটি সেন্টারের পাশে ফ্ল্যাট কিনে বসবাস করেন গৃহিণী নাজনীন আরা। তিনি বাংলানিউজকে বলেন, আমি ২০ বছর ধরে এই এলাকায় বসবাস করছি, কিন্তু একটু বৃষ্টি হলেই ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে। এলাকার কমিশনার ও নেতাকর্মীরা প্রতিবছরই বলে বাজেট হয়েছে, এবছর কাজ হবে।

ঐ এলাকায় ভাড়াটিয়া মো. হাসান বলেন, একটু বৃষ্টি হলেই বাসা থেকে বের হতে পারি না। রিকশা না পেলে কোমর পানির মধ্য দিয়ে আসতে হয়। কোনো গাড়ি আমাদের গলির ভেতরে ঢুকতে চায় না। এক মিনিটের রাস্তা রিকশা ভাড়া দিতে হয় ১০০ টাকা।

এলাকার দোকান মালিক মোহাম্মদ শফিউল ইসলাম বাংলানিউজকে বলেন, আমি গত ২৪ বছর ধরে এই এলাকায় বসবাস করি। প্রতিবছরই বৃষ্টির দিনে দোকানে পানি ঢুকে যায়। দোকানের সামনে তিন ফুট উঁচু গাঁথুনি দিয়েছি। এরপরেও দোকানে পানি ঢুকে যায়। বেচাকেনা তো দূরের কথা মালামাল নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।

জলাবদ্ধতা নিয়ে কথা বলার জন্য ২৬ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মোহাম্মদ শামীম হাসানকে বারবার মোবাইলফোনে কল, মেসেজ দিয়েও তার সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

এলাকাবাসীর দাবি সরকার, সিটি করপোরেশনের মেয়র ও কাউন্সিলরদের মাধ্যমে এলাকার পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা না করলে এলাকায় বসবাস করা সম্ভব না। এই ময়লা পানির কারণে শরীরে চুলকানি, পেটের অসুখসহ নানা রকমের রোগে আক্রান্ত হতে হচ্ছে।

বাংলাদেশ সময়: ২০২৯ ঘণ্টা, জুলাই ০৪, ২০২১
জিএমএম/কেএআর

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa