ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৫ কার্তিক ১৪২৮, ২১ অক্টোবর ২০২১, ১৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

জাতীয়

রাজশাহীতে বর্ষণেই ফাঁকা শহর, চলছে টহল

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট  | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৭০২ ঘণ্টা, জুলাই ১, ২০২১
রাজশাহীতে বর্ষণেই ফাঁকা শহর, চলছে টহল

রাজশাহী: রাজশাহীতে ভারি বর্ষণের কারণে সকালে সূর্যের মুখ দেখা যায়নি। একই সঙ্গে রাজপথে মানুষের মুখও।

বলা যায় বৃষ্টিতেই ফাঁকা হয়ে যায় জনবহুল এই শহর। তবে সরকারঘোষিত কঠোর বিধি-নিষেধ বাস্তবায়নে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর টহলও ছিল চোখে পড়ার মতো।

বৃহস্পতিবার (১ জুলাই) ভোর থেকেই অবিরাম বৃষ্টি। তাই ঘর থেকে বের হতে পারেনি সাধারণ মানুষ। আর আদালত, সরকারি ও বেসরকারি অফিস বন্ধ থাকায় কর্মজীবী মানুষও ঘর থেকে বাইরে আসেননি। সব মিলিয়ে শহরে এমনিতেই পালন হচ্ছে সরকারঘোষিত ‘কঠোর লকডাউন’র প্রথম দিন। প্রায় জনশূন্য হয়ে থাকা এই রাজশাহী শহরে এখন কেবলই আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর টহল চলছে।

বিকেল সাড়ে তিনটা পর্যন্ত রাজশাহী জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত শহরের বিভিন্ন সড়কে অবস্থান নিলেও কাউকে কোনো জরিমানা করতে পারেনি। কর্তব্যরত পুলিশের হাতেও আটক হননি কেউ।

তবে রাজশাহী শহরে জরুরি সেবা চালু রয়েছে। এর মধ্যে রোগী বহনকারী অ্যাম্বুলেন্স, ওষুধ ও খাবার পরিবহনের যানবাহনগুলো স্বাভাবিক নিয়মেই চলাচল করছে।

যারা জরুরি প্রয়োজনে ওষুধের প্রেসক্রিপশন হাতে নিয়ে বাইরে বের হচ্ছেন তাদেরও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের জেরার মুখে পড়তে হচ্ছে। তাই সকাল থেকে পাড়া-মহল্লায়ও আজ কেউ বাড়ির বাইরে বের হননি। কাঁচা বাজার ও খাদ্যপণ্য কেনার মতো নিতান্ত জরুরি প্রয়োজন যারা রাস্তায় বের হচ্ছেন-তাদেরও কর্তব্যরত পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদের মুখোমুখি হতে হচ্ছে।

পুলিশ, র‌্যাব ও আনসার ব্যাটালিয়নের সদস্যদের পাশাপাশি রাজশাহী সিটি এবং প্রতিটি উপজেলায় সেনাবাহিনীর দু’টি করে টিম টহল দিচ্ছে। পাশাপাশি তিন প্লাটুন বিজিবি মাঠ পর্যায়ে লকডাউন কার্যকরের দায়িত্ব পালন করছে। সর্বাত্মক লকডাউন শুরুর প্রথম দিনে তাই রাজশাহীজুড়েই কঠোর অবস্থানে রয়েছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। ফলে কোলাহলের এই শহরে নেমে এসেছে সুনসান নীরবতা।

রাজশাহী শহরের তিনটি প্রবেশমুখসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে গতকাল বুধবার (৩০ জুন) রাত থেকেই বসানো হয়েছে চেকপোস্ট। শহরের তিন দিকের প্রবেশমুখ আমচত্বর, কাশিয়াডাঙ্গা ও কাটাখালী এলাকায় পুলিশ  সদস্যরা ব্যারিকেড দিয়ে দায়িত্ব পালন করছেন। এসব পয়েন্ট মানুষ ও যানবাহনের অবাধ প্রবেশ ঠেকাতে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা বলয় গড়ে তুলেছে মহানগর পুলিশ। পণ্যবাহী পরিবহন, পিকআপ ভ্যান ও মালবাহী ট্রাক ছাড়া কিছুই রাজশাহী শহরে ঢুকতে বা বের হতে দেওয়া হচ্ছে না। দুপুর পর্যন্ত জরুরিসেবার যানবাহন ছাড়া রিকশা বা মোটরসাইকেলও দেখা যায়নি।

তবে প্রাইভেটকারগুলো বিভিন্ন স্টিকার লাগিয়ে বাইরে বের হচ্ছে। বন্ধ রয়েছে শহরের সব মার্কেট, বিপণিবিতান এবং সব ধরনের দোকানপাট। লকডাউনের কঠোরতায় স্বাভাবিক জীবনযাত্রা একেবারেই মন্থর হয়ে পড়েছে। অতিমারির মধ্যে শহরের জনবহুল পথ-ঘাট এখন খাঁ খাঁ করছে।

বৃহস্পতিবার (১ জুলাই) সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত রাজশাহী মহানগরীর শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামান চত্বর, শিরোইল বাস টার্মিনাল, রেলওয়ে স্টেশন, নিউমার্কেট, সাহেববাজার জিরোপয়েন্ট, সোনাদীঘির মোড়, লক্ষ্মীপুরসহ কয়েকটি জনবহুল এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে, রাস্তাঘাট একেবারেই মানুষ নেই। মূল সড়কে পিকআপ ভ্যান নিয়ে এবং পাড়া-মহল্লায় মোটরসাইকেল নিয়ে টহল দিচ্ছে পুলিশ।

রাজশাহীর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মুহাম্মদ শরিফুল হক জানিয়েছেন, সরকারি প্রজ্ঞাপনের নির্দেশনা অনুযায়ী সর্বাত্মক লকডাউন বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। কঠোর লকডাউন বাস্তবায়নে সেনাবাহিনী, বিজিবি, র‌্যাব ও পুলিশ সার্বক্ষণিক মাঠে রয়েছে। সিটি করপোরেশন ছাড়া উপজেলাগুলোতেও সেনাবাহিনী, বিজিবি ও র‌্যাব টহল দিচ্ছে। এ অবস্থায় কেউ অহেতুক বাইরে ঘোরাঘুরি করলে তাকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের শাস্তির মুখে পড়তে হবে।  

তাই কঠোর বিধিনিষেধের মধ্যে জরুরি প্রয়োজন ছাড়া তিনি সবাইকে ঘরে থাকার আহ্বান জানান।

এদিকে, করোনা ভাইরাসের ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণ ঠেকাতে গত ১১ জুন থেকে তিন দফায় রাজশাহীতে সর্বাত্মক লকডাউন শেষে হয়েছে গতকাল ৩০ জুন মধ্যরাতে। এরপর পরপরই আবারও ভারত সীমান্তবর্তী রাজশাহীতে সাতদিনের সর্বোচ্চ ‘লকডাউন’ শুরু হয়েছে আজ। রাজশাহী সিটি করপোরেশনের পাশাপাশি জেলার নয় উপজেলায়ও এই কঠোর লকডাউন চলছে। নিজ নিজ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তারা লকডাউন পরিস্থিতি মনিটরিং করছেন। এছাড়া জেলা ও উপজেলার সার্বিক পরিস্থিতি দেখভাল করছেন- খোদ রাজশাহী জেলা প্রশাসক মো. আব্দুল জলিল।

রাজশাহী জেলা প্রশাসক মো আব্দুল জলিল জানান, লকডাউনের সময় সব ধরনের ব্যবসায়িক দোকানপাট ও যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে। তবে রাজশাহীর আম পরিবহনকারী ‘ম্যাংগো স্পেশাল’ এবং পণ্যবাহী ট্রেন আগের মতই চলবে। এছাড়া রোগী, খাদ্য, জরুরি ওষুধ ও পণ্যবাহী পরিবহনসহ অন্য জরুরি সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান এবং ওষুধ সরবরাহকারী পরিবহন ইত্যাদির ক্ষেত্রে এ নিষেধাজ্ঞা প্রযোজ্য হবে না। রাজশাহীতে আমের মৌসুম চলছে। তাই আমের বাজারগুলো এখন বেঁধে দেওয়া নির্দিষ্ট সময়ে বড় পরিসরে ছড়িয়ে ছিটিয়ে বসবে। আর স্বাস্থ্যবিধি মেনে বাজার পরিচালনা করারও নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

বাংলাদেশ সময়: ১৭০০ ঘণ্টা, জুলাই ০১, ২০২১
এসএস/এএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa