ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৫ কার্তিক ১৪২৮, ২১ অক্টোবর ২০২১, ১৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

জাতীয়

পথে পথে চেকপোস্ট-টহল, বের হলেই জিজ্ঞাসাবাদ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৩৫৫ ঘণ্টা, জুলাই ১, ২০২১
পথে পথে চেকপোস্ট-টহল, বের হলেই জিজ্ঞাসাবাদ রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর চেকপোস্ট | ছবি তুলেছেন জিএম মুজিবুর ও শাকিল আহমেদ

ঢাকা: করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে কঠোর লকডাউনে সরকার নির্দেশিত বিধিনিষেধ বাস্তবায়নে কঠোর অবস্থানে রয়েছেন আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। নগরীর প্রায় প্রতিটি সড়কে চেকপোস্ট স্থাপন করে চালনো হচ্ছে তল্লাশি।

এছাড়া আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের অব্যাহত টহলে নজরদারি অব্যাহত রয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১ জুলাই) সকাল থেকে সড়কের মোড়ে মোড়ে পুলিশের চেকপোস্ট দেখা গেছে। এছাড়া বিভিন্ন স্থানে চেকপোস্ট স্থাপন করে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালয়ন (র‌্যাব)। সেনাবাহিনীর সদস্য ও বর্ডার গার্ড বাংলাদেশেরও টহল অব্যাহত রয়েছে।

সরেজমিনে রাজধানীর শ্যামলী এলাকা থেকে শাহবাগ পর্যন্ত সড়কে কোনো ধরনের যানবাহনের চাপ দেখা যায়নি। জরুরি প্রয়োজনের অল্প কিছু ব্যক্তিগত গাড়ি চলতে দেখা গেছে। এছাড়া, কিছু সংখ্যক মানুষ যারা বিভিন্ন প্রয়োজনে বেরিয়েছেন তাদের রিকশায় করে যাতায়াত করতে দেখা গেছে।

রাজধানীর কলেজগেট এলাকায় সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের সামনে চেকপোস্ট বসিয়ে বাইরে বের হওয়া নাগরিকদের জিজ্ঞাসাবাদ করছিলেন পুলিশ সদস্যরা। এ সময় অল্পসংখ্যক যেসব ব্যাক্তিগত গাড়ি চলছিল, সেসব থামিয়েও চালক ও যাত্রীদের বাইরে বের করে কারণ জানতে চাওয়া হয়।

চেকপোস্টে দায়িত্বরত একজন পুলিশ সদস্য বলেন, লকডাউনে জরুরি প্রয়োজন ছাড়া জনসাধারণকে বাইরে বের হতে নিষেধ করা হয়েছে। এজন্য যারা বের হয়েছেন তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। যারা কাজে বের হয়েছেন তারাও স্বাস্থ্যবিধি মেনে সঠিকভাবে মাস্ক পরেছেন কি-না দেখা হচ্ছে।

এদিন, বিভিন্ন বড় বড় শপিংমলসহ প্রধান সড়কের দুই পাশের দোকানপাটও বন্ধ থাকতে দেখা গেছে। তবে অলি-গলিতে নিত্যপণ্যের দোকানপাট খোলা রয়েছে। সেসব দোকানে অল্প কিছু মানুষজন থাকলেও তা স্বাভাবিকের তুলনায় অনেক কম।

লকডাউন বাস্তবায়নে রাজধানীর শাহবাগ মোড়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করছে র‌্যাব। বিধিনিষেধ অমান্য করে যাতে কেউ বাইরে চলাচল করতে না পারে তা নিশ্চিতে বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে দশটা থেকে র‌্যাব-৩ এর সহায়তায় র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পলাশ কুমার বসু এই অভিযান পরিচালনা করছেন।

শাহবাগ মোড় হয়ে মৎস্য ভবনের দিকে যাওয়া প্রায় প্রতিটি গাড়িকে থামিয়ে কোথায়, কেন যাচ্ছে, তা জিজ্ঞেস করা হচ্ছে। যাদের এ এলাকায় পাওয়া গেছে তাদের অধিকাংশই চিকিৎসা সংক্রান্ত কাজে বের হয়েছেন।

এবারের লকডাউনে সরকারের বিধিনিষেধ মানতে মানুষ অন্যবারের তুলনায় বেশি সহযোগিতা করছেন। জরুরি কাজ ছাড়া নাগরিকরা অযথা রাস্তায় বের হচ্ছে না বলে জানান পলাশ কুমার বসু।

যারা বের হয়েছেন তাদের মধ্যে চারজন সঠিক নিয়মে মাস্ক না পরায় তাদের মোট ১১০০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পলাশ কুমার বসু বলেন, সংক্রমণের হার কমাতে সরকার যে বিধিনিষেধ দিয়েছে, সেগুলো বাস্তবায়নে আমরা কাজ করছি। আজকে এখন পর্যন্ত জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বের হয়েছেন এমন কাউকে পাওয়া যায়নি।

নাগরিকরা সরকারের নির্দেশনা মেনে ঘরে থাকায় সন্তোষ প্রকাশ করেছেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট। তিনি বলেন, বিগত সময়ে মানুষ যেভাবে তুচ্ছ কারণে বের হয়েছে, এবার তেমনটা দেখা যাচ্ছে না। ভ্রাম্যমাণ আদালত চলাকালে মাস্কও বিতরণ করছে র‌্যাব।

বাংলাদেশ সময়: ১৩৪৫ ঘণ্টা, জুলাই ০১, ২০২১
পিএম/এমজেএফ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa