ঢাকা, রবিবার, ৯ শ্রাবণ ১৪২৮, ২৫ জুলাই ২০২১, ১৪ জিলহজ ১৪৪২

জাতীয়

শ্রীমঙ্গলে ঝুঁকিপূর্ণ সেতু দিয়ে চলাচল

ডিভিশনাল সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০৪২ ঘণ্টা, জুন ১৫, ২০২১
শ্রীমঙ্গলে ঝুঁকিপূর্ণ সেতু দিয়ে চলাচল জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছেন মানুষ, ছবি: বাংলানিউজ

মৌলভীবাজার: মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল উপজেলায় ছড়ার উপর নির্মিত একটি ঝুঁকিপূর্ণ সেতু দিয়ে চলাচল করছেন গ্রামের মানুষ। উপজেলার ভুনবীর ইউনিয়নের শ্রীমঙ্গল থেকে মির্জাপুর সড়কের পাশের বাদ আলিসারকুল যাওয়ার সড়কে দেখা যায় ঝুঁকিপূর্ণ এ সেতুটি।

 

সেতুটির কাঠামো ভেঙে মাঝখানে ডেবে যাওয়া ও যানবাহন চলাচলের অনুপযোগী সেতুটি দিয়েই গ্রামের মানুষ যানবাহন নিয়ে পার হচ্ছেন। শিগগিরই সেতুটি বন্ধ করে নতুন সেতু তৈরি করা না হলে এখানে বড় কোনো দুর্ঘটনা ঘটতে পারে বলে মনে করছেন স্থানীয়রা।  

সম্প্রতি বাদে আলিসারকুল এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, ভাঙাচুড়া অবস্থায় ছড়ার উপর পড়ে রয়েছে সেতুটি। সেতুটির মাঝখান নিচের দিকে ডেবে গেছে। দু’পাশের পিলার ভেঙে গিয়ে ঝুলে আছে। ব্রিজের উপরে দেয়ালগুলো ভেঙে ভেতরের রডগুলো বেরিয়ে এসেছে। এ অবস্থায় লোকজন ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় চলাচল করে আসছেন। প্রাইভেটকার, সিএনজিচালিত অটোরিকশা, পিকআপ ভ্যানও এর উপর দিয়ে চলছে। এ সেতুটির উপর দিয়ে স্থানীয় লোকজন ছাড়াও অন্যান্য এলাকার লোকজন হাইল হাওরে যাতায়াত করেন।  

স্থানীয় বাসিন্দা কাওসার আহমেদ বলেন, শ্রীমঙ্গল টু মির্জাপুর সড়কের পাশের এ সড়কটি দিয়ে প্রতিদিন কয়েক হাজার মানুষ চলাচল করেন। এখানে অনেকগুলো খামার রয়েছে। মাছের ফিসারি রয়েছে। কৃষি কাজ ও হাওরে যাওয়ার জন্য মানুষ সড়কের এ সেতুটি দিয়ে চলাচল করেন। সেতুটি এখন এমন অবস্থায় এসে দাঁড়িয়েছে যেকোনো সময় এটি ভেঙে পড়তে পারে।  

তিনি আরও বলেন, সেতুটি প্রায় সাত থেকে আট বছর ধরে এভাবে পড়ে রয়েছে। বৃষ্টির সময় এখানে ছড়ার পানি বেড়ে গেলে সেতুটি নড়াচড়া করে। মানুষ ভয়ে ব্রিজে উঠে না। এ ব্রিজের পাশে বাদ আলিসারকুল গ্রাম। এখানে প্রায় চার হাজার মানুষের বাস। ভারী  যানবাহন চলাচল করতে না পারায় এখানকার উৎপাদিত কৃষিপণ্য ও খামারের জিনিসপত্র বহন করতে খুব কষ্ট হয়।  

এ সেতু দিয়ে চলাচলকারী অটোরিকশার চালক সুমন মিয়া বলেন, সেতুটির উপর সিএনজি নিয়ে উঠলে মনে হয় যেকোনো সময় ভেঙে পড়বে। আমরা প্রায় ঝুঁকি নিয়েই এটি দিয়ে চলাচল করে আসছি।  

ভুনবীর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান আব্দুর রশীদ বলেন, আমার এলাকার মানুষ খুব ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে সেতুটি দিয়ে। ইউনিয়নের বরাদ্দ দিয়ে সেতু করা সম্ভব নয়। সেতুটি অনেক দিন ধরেই এভাবে ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। এখানকার জনগণের কথা চিন্তা করে এখানে একটি টেকশই সেতু তৈরি করে দেওয়ার জন্য উপজেলা পরিষদ ও প্রশাসনকে অনুরোধ জানাচ্ছি।  

শ্রীমঙ্গল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান (ভারপ্রাপ্ত) প্রেমসাগর হাজরা বলেন, সরকার গ্রামের প্রত্যন্ত এলাকায় অনেক উন্নয়ন করছে। সেতুটি আমার নজরে এসেছে। এ সেতুটি দিয়ে এলাকার লোকজন ঝুঁকি নিয়ে চলাচল আসছে। এ মাসের উপজেলার মাসিক সভায় বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করবো। এখানে নতুন করে একটি সেতু তৈরি করা হবে। সেতুটি তৈরি জন্য প্রয়োজনীয় সব পদক্ষেপ আমরা নিচ্ছি।  

বাংলাদেশ সময়: ২০৩৮ ঘণ্টা, জুন ১৫, ২০২১
বিবিবি/আরবি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa