ঢাকা, সোমবার, ১১ শ্রাবণ ১৪২৮, ২৬ জুলাই ২০২১, ১৫ জিলহজ ১৪৪২

জাতীয়

মেডিক্যালে দুই শিক্ষার্থীকে মারধরের বিচার দাবি 

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট   | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০১১৮ ঘণ্টা, জুন ১৩, ২০২১
মেডিক্যালে দুই শিক্ষার্থীকে মারধরের বিচার দাবি  মেডিক্যালে দুই শিক্ষার্থীকে মারধরের বিচার দাবি 

রংপুর: মায়ের চিকিৎসা করাতে গিয়ে রংপুর মেডিক্যালে দুই বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীকে মারধরের বিচার চেয়ে মানববন্ধন সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।  

শনিবার (১২ জুন) বিকেলে বেরোবি ক্যাম্পাস এলাকায়  সাধারণ শিক্ষার্থীদের ব্যানারে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

একই সময়ে রংপুর প্রেসক্লাব চত্তরে মানববন্ধন সমাবেশ করেছে রংপুর জেলা ও মহানগর জাতীয় ছাত্র সমাজ।
এর আগে শুক্রবার (১১ জুন) হাসপাতালে স্টাফদের অতিরিক্ত ফি চাওয়ার প্রতিবাদ করায় বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) সমাজবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী রেজওয়ানুল করিম রিয়াদ ও তার ছোট ভাই রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী রাশেদ করিমকে মারধর করা হয়।

মানবন্ধনে বক্তারা বলেন, মায়ের চিকিৎসা করাতে গিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা যদি মার খায় তাহলে সাধারণ মানুষ কতটা ভোগান্তির শিকার হয় তা অনুমান করা যায়।  
রংপুর মেডিক্যালে একটি সিন্ডিকেট বিভিন্ন কুকর্ম করে যাচ্ছে অথচ প্রশাসন কিছুই করছে না৷ এত নৃশংস হামলা হলো প্রশাসন কিছুই করলো না। উলটা মামলা, প্রতিবাদ না করতে বিভিন্ন টালবাহানা করা হচ্ছে।

বক্তারা আরও বলেন, সামান্য দু’জন শিক্ষার্থীকে ১৫/২০ জন কিভাবে মারধর করে। এরা তো পশুর চেয়েও অধম। এদের কোনো বিবেকবোধ নেই। একজনের হাত ভেঙে গেছে। একজন শুনতে পারছেন না। কানের পর্দা ফেটে গেছে। এখন ঢাকায় ছাড়া রংপুরে এর পরীক্ষার ব্যবস্থাও নেই।

এ সময় বক্তারা বেরোবি প্রশাসনের বিতর্কিত ভুমিকার সমালোচনা করেন।

বেরোবি ক্যাম্পাসে আয়োজিত সমাবেশে অ্যাকাউন্টিং অ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগের শিক্ষক উমর  ফারুক, গনযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক মাহামুদুল হক, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য ফয়সাল ইসলাম ফাইন, বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি তুষার কিবরিয়া, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি পোমেল বড়ুয়া, বেরোবি স্টুডেন্ট রাইটস ফোরামের সভাপতি মিলন মাহমুদ প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

এদিকে একই সময়ে রংপুর প্রেসক্লাব এলাকায় মানববন্ধন সমাবেশ করে রংপুর জেলা ও মহানগর জাতীয় ছাত্র সমাজ।
এতে বক্তারা বলেন, এই সিন্ডিকেটের খুঁটির জোর কোথায়? তা আমাদের বের করে আনতে হবে। প্রশাসন যদি শাস্তিমূলক ব্যবস্থা না নেয় তাহলে কঠোর আন্দোলনের পদক্ষেপ নেওয়া হবে। রংপুরের মত জায়গায় এমন ন্যাক্কারজনক ঘটনার তীব্র নিন্দা জানান ছাত্রনেতারা।

এতে  জাতীয় ছাত্র সমাজ রংপুর জেলা শাখার আহ্বায়ক আরিফুল ইসলাম, সদস্য সচিব সালিউর রহমান সৈকত, মহানগর জাতীয় ছাত্র সমাজের সভাপতি ইয়াসির আরাফাত আসিফ, সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম , কারমাইকেল কলেজ শাখার সদস্য সচিব আরিফ আলী, সাবেক ছাত্রনেতা তানভীর হোসেন আশরাফী প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

বাংলাদেশ সময়: ০১১৫ ঘণ্টা, জুন ১৩, ২০২১
এমআরএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa