ঢাকা, সোমবার, ২৯ চৈত্র ১৪২৭, ১২ এপ্রিল ২০২১, ২৮ শাবান ১৪৪২

জাতীয়

কচুয়ায় চিকিৎসককে মারধরের অভিযোগ

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০২৩৯ ঘণ্টা, এপ্রিল ৯, ২০২১
কচুয়ায় চিকিৎসককে মারধরের অভিযোগ

বাগেরহাট: বাগেরহাটের কচুয়া উপজেলার গজালিয়া ইউনিয়ন স্বাস্থ্যকেন্দ্রের মধ্যে প্রবেশ করে উপ-সহকারী মেডিক্যাল অফিসার ও পরিবার পরিকল্পনা সহকারীকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে ইউপি সদস্য সুমন শেখের বিরুদ্ধে।  

মারধরে আহত উপ সহকারী মেডিক্যাল অফিসার নিরোধ চন্দ্র বিশ্বাসকে বাগেরহাট সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

পরিবার পরিকল্পনা সহকারী বেগ মশিউর রহমান কচুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিয়েছেন।

বুধবার (৭ এপ্রিল) দুপুরে গজালিয়া ইউনিয়ন স্বাস্থ্যকেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে। উপসহকারী মেডিক্যাল অফিসার নিরোধ চন্দ্র বিশ্বাস কচুয়া থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।  

স্থানীয় এক নারীর সঙ্গে অবৈধ সম্পর্কের অপরাধে মশিউরকে মারধর করেছেন এমন দাবি করেছেন ইউপি সদস্য সুমন শেখ।

উপ সহকারী মেডিক্যাল অফিসার নিরোধ চন্দ্র বিশ্বাস বলেন, একজন নারী স্বাস্থ্যকেন্দ্র এসেছিলেন ওষুধ ও পরামর্শ নিতে। ওই নারী ওষুধ নিয়ে বের হয়ে যায়। এরপরেই গজালিয়া ইউনিয়ন পরিষদের ৩ নম্বর সদস্য সুমন শেখ স্বাস্থ্যকেন্দ্রের মধ্যে প্রবেশ করে পরিবার পরিকল্পনা সহকারী বেগ মশিউর রহমানকে অতর্কিতভাবে মারধর শুরু করেন। আমাকে গালিগালাজ করেন। একপর্যায়ে আমার হাতের ওপর চেয়ার দিয়ে বাড়ি দেয়। পরে মাথা ও মুখে আঘাত করলে আমি অজ্ঞান হয়ে যাই। পরবর্তীতে স্থানীয়রা আমাকে উদ্ধার করে বাগেরহাট সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। আমি এ ঘটনার বিচার চাই।

নিরোধ আরও বলেন, এর আগেও সুমন শেখ এই হাসপাতালে তাণ্ডব চালিয়েছেন। ৭-৮ মাস আগে একজন বিষ খাওয়া রোগী স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নিয়ে আসছিলেন সুমন। রোগীর অবস্থা গুরুতর হওয়ায় আমি কচুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যেতে বলি। এ ঘটনার জেরে পরবর্তীতে সুমন স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভাঙচুর চালিয়েছিল। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মহোদয়ের মাধ্যমে তখন বিষয়টি সুরহা হয়েছিল।
 
ইউপি সদস্য সুমন শেখ বলেন, পরিবার পরিকল্পনা সহকারী বেগ মশিউর রহমানের সঙ্গে স্থানীয় এক নারীর সঙ্গ অবৈধ সম্পর্ক রয়েছে। এর ফলে এলাকায় অনেক ঝামেলা সৃষ্টি হচ্ছে। এজন্যই মশিউরকে মারধর করেছি। মশিউরকে মারার সময় ঠেকাতে আসলে উপসহকারী মেডিক্যাল অফিসার নিরোধ চন্দ্র বিশ্বাস আহত হয়েছেন।

এদিকে যে নারীর সঙ্গে মশিউরের অবৈধ সম্পর্কের কথা ইউপি সদস্য সুমন শেখ বলেছেন মশিউরকে ধর্মের ভাই উল্লেখ ওই নারীর স্বামী বলেন, মশিউর আমার ধর্মের ভাই। আজ ৫-৬ বছর আমাদের সঙ্গে পারিবারিক সম্পর্ক। কিন্তু সুমন দীর্ঘদিন এই নিয়ে আমাদের সঙ্গে ঝামেলা সৃষ্টি করার চেষ্টা করছে। কয়েক মাস আগে জরুরি প্রয়োজনে মশিউরের অফিসে আমার স্ত্রী কিছু টাকা ধার আনতে যায়। তখন সুমন আমার স্ত্রী ও মশিউরকে একসঙ্গে করে ছবি তুলে ফেসবুকে দেওয়ার ভয় দিয়ে এক লাখ টাকা আদায় করে। আর বুধবারের বিষয় আমরা কিছু জানি না। অন্যদিকে মারধরের ঘটনার পর থেকে পরিবার পরিকল্পনা সহকারী বেগ মশিউর রহমানের মোবাইলফোন বন্ধ রয়েছে।

কচুয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মনিরুল ইসলাম বলেন, উপসহকারী মেডিক্যাল অফিসার নিরোধ চন্দ্র বিশ্বাস মারধরের কথা উল্লেখ করে ইউপি সদস্য সুমন শেখের নামে একটি অভিযোগ দিয়েছেন। আমরা আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের প্রক্রিয়া চলছে।

বাংলাদেশ সময়: ০২৩৬ ঘণ্টা, এপ্রিল ০৯, ২০২১
এএটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa