ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১ বৈশাখ ১৪২৮, ১৫ এপ্রিল ২০২১, ০২ রমজান ১৪৪২

জাতীয়

পাবনায় আ’লীগ নেতাকে হত্যার চেষ্টায় থানায় মামলা

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১১৯ ঘণ্টা, এপ্রিল ৭, ২০২১
পাবনায় আ’লীগ নেতাকে হত্যার চেষ্টায় থানায় মামলা

পাবনা: আধিপত্য বিস্তার ও পূর্ব শত্রুতার জের ধরে পাবনা সদর পৌর এলাকার হিমায়েতপুর ১৫ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহামুদুল হাসান হিরক শেখকে (৩৮) কুপিয়ে জখম করেছে প্রতিপক্ষের সন্ত্রাসীরা।

গত মঙ্গলবার (৩০ মার্চ) সন্ধ্যায় পাবনা সদর উপজেলার বুদেরহাট সুরমা ক্লিনিকের সামনে এ হামলার ঘটনা ঘটে।

বর্তমানে তিনি পাবনা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছেন। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক।

এ ঘটনায় মঙ্গলবার (০৬ এপ্রিল) রাতে আহত হিরকের ছোট ভাই সুমন শেখ নিজে বাদী হয়ে পাবনা সদর থানায় ১২ জনের নাম উল্লেখ করে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

হামলাকারীদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য আসামিরা হলেন, বুদেরহাট এলাকার আহম্মেদ শেখের ছেলে বর্তমানে নবনির্বাচিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর শাহীন শেখসহ তার দুই ভাই শাকিল শেখ ও মামুন শেখ। সহযোগী অন্যরা হলেন- নাছের শেখের ছেলে এ ঘটনার প্রধান আসামির পিতা আহম্মেদ শেখ, একই এলাকার আবুল হোসেনের ছেলে সোহেল, আসাব শেখের ছেলে বিপুল ও মামুনসহ আরো বেশকিছু সন্ত্রাসী এ ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ত রয়েছে বলে অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে।

এ হামলার ঘটনার মামলার বাদী হিরকের ছোট ভাই সুমন শেখ বাংলানিউজকে বলেন, এ মামলার প্রধান আসামি বর্তমানে ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে নির্বাচিত হয়ে এলাকায় প্রভাব বিস্তারের জন্য আমার ভাইকে মারছে। তারা পূর্ব থেকেই এলাকায় সন্ত্রাসী কার্মকাণ্ড, মাদকের ব্যবসাসহ সাধারণ মানুষের জায়গা দখলের সঙ্গে সম্পৃক্ত রয়েছে। আমরা আওয়ামী লীগ পরিবারের সদস্য। তাদের অপকর্মের অন্যায় ও প্রতিবাদ করার জন্য তারা পরিকল্পিতভাবে এ ঘটনা ঘটিয়েছে। আমরা এই নৃশংস হামলার ঘটনার সঠিক বিচার চাই।

গুরুত্বর আহত ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহামুদুল হাসান হিরক বাংলানিউজকে বলেন, আজ আমরা এলাকার সাধারণ মানুষ ব্যবসায়ীরা জিম্মি হয়ে পড়েছি এই সকল সন্ত্রাসীদের কাছে। এই অঞ্চলে এমন কোনো অপকর্ম নেই তারা করেনা। চাঁদাবাজি থেকে শুরু করে মানুষ হত্যাসহ সকল সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড এই সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ন্ত্রণ করে। তাদের অন্যায়ের প্রতিবাদ করার জন্য আমার ওপর হামলা করেছে তারা।

মামলার বিষয়ে পাবনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাসিম আহম্মেদ বলেন, এ ঘটনায় উভয়পক্ষ থানাতে অভিযোগ দিয়েছিল। প্রাথমিক তদন্ত করে দুটি অভিযোগ গ্রহণ করা হয়েছে। গতকাল রাতে মামলা নথিভুক্ত করা হয়েছে। আঞ্চলিক আধিপত্ত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে এ ঝামেলার সূত্রপাত। একজন আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি আছেন। আসামিদের গ্রেফতারের জন্য অভিযান করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

বাংলাদেশ সময়: ২১০৪ ঘণ্টা, এপ্রিল ০৭, ২০২১
এনটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa