bangla news

বুধবার ব্ল্যাকআউটে উইকিপিডিয়া

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১২-০১-১৬ ১১:১০:৪৮ পিএম

মার্কিন সিনেটে প্রস্তাবিত ওয়েব সেন্সরশিপ (সোপা ও পিপা) বিলের বিরুদ্ধে প্রতিবাদের অংশ হিসেবে ১৮ জানুয়ারি অন্ধকার নেমে আসবে উইকিপিডিয়ার ইংরেজি সংস্করণে। পৃথিবীজুড়ে উইকিপিডিয়ার ইংরেজি ভার্সনের পাঠকরা ২৪ ঘণ্টা ওয়েব সাইটটিতে কোনো তথ্য পড়তে পারবেন না। উইকিপিডিয়ার পক্ষ থেকে ১৬ জানুয়ারি এমনই ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।

ঢাকা: মার্কিন সিনেটে প্রস্তাবিত ওয়েব সেন্সরশিপ (সোপা ও পিপা) বিলের বিরুদ্ধে প্রতিবাদের অংশ হিসেবে ১৮ জানুয়ারি অন্ধকার নেমে আসবে উইকিপিডিয়ার ইংরেজি সংস্করণে। পৃথিবীজুড়ে উইকিপিডিয়ার ইংরেজি ভার্সনের পাঠকরা ২৪ ঘণ্টা ওয়েব সাইটটিতে কোনো তথ্য পড়তে পারবেন না। উইকিপিডিয়ার পক্ষ থেকে ১৬ জানুয়ারি এমনই ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।

সিনেটে বিল দুটি পাশ হলে মুক্ত বিশ্বকোষ উইকপিডিয়াসহ বিশ্বের হাজার হাজার ওয়েবসাইট মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হবে। বিনা পয়সায় তথ্যসেবা পাবে না মানুষ। থাকবে না মুক্ত ইন্টারনেট।  

উইকিপিডিয়ার কো ফাউন্ডার জিমি ওয়েলস সোমবার টুইটারে ঘোষণা দেন, উইকিপিডিয়ার ইংরেজি সংস্করণ বুধবার ২৪ ঘণ্টা দেখা যাবে না (বুধবার মধ্যরাত থেকে, ইএসটি অনুসারে)।

এছাড়া উকিপিডিয়ার যে কোনো পাতা খুললেই ওপরে কালো শেডের মধ্যে একটি নোটিশ দেওয়া হয়েছে। সেখানে লেখা আছে, সোপা ও পিপা আইনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ হিসেবে উইকপিডিয়ার ইংরেজি সংস্করণ পৃথিবীজুড়ে বন্ধ থাকবে।

সোপা হলো— স্টপ অনলাইন পাইরেসি অ্যাক্ট এবং পিপা— প্রটেক্ট আইপি অ্যাক্ট।

যুক্তরাষ্ট্রের হাউজ অব রিপ্রেজেনটেটিভসে সোপা উপস্থাপন করা হয ২০১১ সালের ২৬ অক্টোবর। যদি বিলটি আইনে পরিণত হয়, তবে মার্কিন আইন প্রয়োগকারী সংস্থার ক্ষমতা বেড়ে যাবে। কপিরাইট অধিকারীরা অনলাইনে গ্রন্থস্বত্ব ও বুদ্ধিবৃত্তিক সম্পদ এবং নকল পণ্যের বিরুদ্ধে লড়াই শুরু করে দেবে। এর ফলে অনলাইন আর মুক্ত থাকবে না।

অনলাইনে মেধাসম্পদ চুরির হুমকি রোধে প্রস্তাবিত বিল- প্রটেক্ট আইপি অ্যাক্ট (পিপা) প্রায় একই ধরণের একটি বিল। এটি সিনেটে উপস্থাপন করা হয় গত বছরের ১২ মে। সিনেট জুডিশিয়ারি কমিটি বিলটি পাশ করেছে। কিন্তু সিনেটর রন উডেন এটা স্থগিতের জন্য আপত্তি তুলেছেন।

এ ধরনের একটি বিল সিনেটে উপস্থাপন করা হয়েছিল ২০১০ সালে। কিন্তু তা পাশে ব্যর্থ হয়। পিপা ওই বিলেরই একটি পুনঃলিখন।  

আইন দুটি পাশ হলে প্রথমত ক্ষতিগ্রস্ত হবে যুক্তরাষ্ট্রের বাইরের ওয়েবসাইটগুলো। আইন ভঙ্গের অভিযোগ তুলে বন্ধ করা হবে হাজার হাজার ওয়েবসাইট। ফেলে দিতে বাধ্য করা হবে তথ্যভাণ্ডার।

বাংলাদেশ সময়: ১০০০ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১৭, ২০১২

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
db 2012-01-16 23:10:48