ঢাকা, রবিবার, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ১২ রবিউস সানি ১৪৪২

জাতীয়

আবেদন করেও মেলেনি পূজার অনুদান, অবরুদ্ধ ইউএনও

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৮৩০ ঘণ্টা, অক্টোবর ২১, ২০২০
আবেদন করেও মেলেনি পূজার অনুদান, অবরুদ্ধ ইউএনও

বগুড়া: দুর্গাপূজা উপলক্ষে সরকারি অনুদানের আবেদন করেও না পাওয়ায় বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলায় হিন্দু ধর্মাবলম্বী শত শত মানুষ উপজেলা কার্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে মানববন্ধনসহ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে (ইউএনও) অবরুদ্ধ করে।

বুধবার (২১ অক্টোবর) দুপুরে উপজেলা পরিষদের সামনে মানিকদ্বীপা হিন্দুপাড়া গ্রামের বাসিন্দারা জমায়েত হয়ে  মানববন্ধন করে।

এ সময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছা. মাহমুদা পারভীন গাড়ি নিয়ে বের হতে চাইলে সে গাড়ি আটকে দেন গ্রামবাসী। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ আনে।

বিক্ষুব্ধ গ্রামবাসীরা অভিযোগ করেন, প্রায় এক মাস আগে ইউএনও’র কাছে আবেদন করেছিলেন উপজেলার রাধা গোবিন্দ মন্দিরের পূজা কমিটি। কিন্তু তাদের আবেদনটি আমলে নেওয়া হয়নি। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে বুধবার ইউএনওর বিরুদ্ধে মানববন্ধন করে গ্রামবাসী।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাহমুদা পারভীন বাংলানিউজকে বলেন, উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদ তাদের পূজা মণ্ডপের তালিকা আমাদের কাছে দিয়েছিল। সেখানে ৫৩টি মণ্ডপের নাম ছিল। ওই ৫৩ মণ্ডপকে সরকারি অনুদান দেওয়া হয়েছে। আর এ তালিকা তৈরি করে উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদ। সে তালিকায় কেন রাধা গোবিন্দ মন্দিরের নামটি নেই তা তিনি জানেন না।

তিনি বলেন, রাধা গোবিন্দ মন্দিরের পক্ষ থেকে জেলা প্রশাসককে নতুন করে আবেদনপত্র জমা দেওয়া হয়েছে। এখন জেলা প্রশাসক যা সিদ্ধান্ত দেবে সে অনুযায়ী পদক্ষেপ নেওয়া হবে। তারপরও আজ কেন তারা এমন করলেন, এই বিষয়ও আমার জানা নেই।

উপজেলা পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি নীরন্দ মহন সাহা বাংলানিউজকে বলেন, আমাদের তালিকায় রাধা গোবিন্দ মন্দিরের নাম ছিল না। ওই মন্দিরে পূজা উদযাপন কমিটি সরকারি অনুদানের জন্য আবেদন করছিল, তার তিনদিন আগে আমরা জানতে পেরেছি। তবে এখন ওই মন্দিরকে তালিকায় নেওয়া হয়েছে। এবার শাজাহানপুরে এই মন্দিরসহ ৫৪টি মন্দিরে পূজা উদযাপন হবে।

তিনি বলেন, আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি ওই মন্দিরটিকে অনুদান পাইয়ে দেওয়ার জন্যে। আশা করা যাচ্ছে তারা অনুদান পাবেন।

শাজাহানপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আজিম উদ্দীন বাংলানিউজকে বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যাই। সেখানে পূজার অনুদান না পাওয়ায় ক্ষুদ্ধ হয়ে কিছু গ্রামবাসী অবস্থান নিয়েছিলেন। পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়।

বাংলাদেশ সময়: ১৫২৯ ঘণ্টা, অক্টোবর ২১, ২০২০
কেইউএ/এনটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa