ঢাকা, মঙ্গলবার, ১১ কার্তিক ১৪২৭, ২৭ অক্টোবর ২০২০, ০৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

জাতীয়

সর্বহারা পার্টির পরিচয়ে তালায় চাঁদা দাবি, থানায় জিডি

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১০০ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২০
সর্বহারা পার্টির পরিচয়ে তালায় চাঁদা দাবি, থানায় জিডি

সাতক্ষীরা: সাতক্ষীরার তালা উপজেলায় ‘সর্বহারা পার্টি’ পরিচয়ে অন্তত ১০ জনের কাছে চাঁদা দাবির অভিযোগ উঠেছে। চাঁদা না দিলে দেওয়া হচ্ছে প্রাণনাশের হুমকি।

এ ঘটনায় জনমনে আতঙ্ক বিরাজ করছে। প্রতিকার পেতে হুমকির শিকার তিনজন তালা থানায় সাধারণ ডায়েরি করেছেন।

তালা উপজেলার জালালপুর ইউনিয়নের জেঠুয়া গ্রামের মাজেদ আলী গাজীর ছেলে কৃষ্ণকাটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আছাদুল হক জানান, গত ২১ সেপ্টেম্বর বিকেল ৫টার দিকে ০১৭৪৫৭৮১০৭৬ নম্বর থেকে ফোন করা হয়। এ সময় অবসরপ্রাপ্ত মেজর জিয়া নামে এক ব্যক্তি নিজেকে সর্বহারা পার্টির চেয়ারম্যান পরিচয় দিয়ে ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। দাবিকৃত টাকা পাঠাতে ০১৭০০৫৯১২০৮ নম্বরটি দেওয়া হয়। তখন দাবিকৃত টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে, কতো দিতে পারবেন এটা জানতে চান ওই ব্যক্তি। আবারও অপরাগতা প্রকাশ করলে তাকে গালিগালাজ ও জীবননাশের হুমকি দিয়ে মোবাইল সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয়। বিষয়টি তিনি প্রধান শিক্ষককে অবহিত করে তার পরামর্শে তালা থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন।

উপজেলার মাগুরা ইউনিয়নের ধুলান্ডা গ্রামের মৃত শৈলন্দ্র নাথ দাশের ছেলে ও তালা সরকারি কলেজের পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত প্রদর্শক সন্তোষ কুমার দাশ জানান, গত ২০ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যা ৬টার দিকে ০১৭৪৫৭৮১০৭৬ নম্বরের মোবাইল থেকে একই পরিচয় দিয়ে দুই লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। দাবিকৃত দুই লাখ টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে ০১৭০০৫৯১২০৮ নম্বরে দ্রুত ২০ হাজার টাকা পাঠাতে বলেন তিনি। টাকা না পাঠালে জীবননাশেরও হুমকি দেন। এ ঘটনায় তিনি ওইদিনই তালা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন।

তালা সদর ইউনিয়নের বারইহাটী গ্রামের মৃত মজিদ মোড়লের ছেলে ও জেঠুয়া জাগরাণী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক আব্দুর রব জানান, ২৩ সেপ্টেম্বর বিকেল ৫টায় ০১৭৪৫৭৮১০৭৬ নম্বরের মোবাইল থেকে একই পরিচয়ে দুই লাখ টাকা চাঁদা দাবি করা হয়। ২৪ সেপ্টেম্বর দুপুর দেড়টার সময় আবারও ০১৭০১৮৭৪৬৬৮ নম্বর থেকে ফোন করে বলে আমার ছেলে জেলে আছে। তাদের ছাড়াতে টাকা লাগবে, তুই আজকের ভিতরে ০১৭০০৫৯১২০৮ নম্বরে দুই লাখ টাকা পাঠিয়ে দিবি। দাবিকৃত টাকা না দিলে তাকে প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া হয়। এ ঘটনায় তিনি তালা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন।

একইভাবে তালা সদর ইউনিয়নের মোবারাকপুর গ্রামের জিন্নাত মাস্টারের ছেলে যশোরে কর্মরত কটন ইউনিট অফিসার হুমায়ন কবির জানান, তার কাছেও গত ২১ সেপ্টেম্বর একই পরিচয় দিয়ে ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করা হয়েছে। দাবিকৃত টাকা না দিলে তাকে হত্যা করে মরদেহ গুম করার হুমকি দেয় সর্বহারা পার্টির পরিচয়দানকারী ওই ব্যক্তি।

তালা থানার উপ-পরিদর্শক প্রতীশ রায় জানান, এ পর্যন্ত আমাদের কাছে সর্বহারা পার্টির পরিচয়ে চাঁদা দাবির তিনটি অভিযোগ এসেছে। সিডিআর এর মাধ্যমে সর্বহারা পার্টির প্রধান পরিচয়দানকারীর অবস্থান নিশ্চিত করে তাকে গ্রেফতার করার কাজ শুরু হয়েছে।

তালা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মেহেদী রাসেল বাংলানিউজকে জানান, এলাকায় সর্বহারা পার্টির কোনো অস্তিত্ব নেই। কোনো প্রতারক চক্র এটা করছে। সর্বহারা পার্টির নামে চাঁদা দাবি ও হুমকি-ধমকির অভিযোগে তিনজন জিডি করেছেন। মোবাইল নম্বর ট্র্যাক করে তাদের খুঁজে বের করার চেষ্টা করা হচ্ছে।

প্রসঙ্গত, তালা উপজেলায় এক সময় পূর্ব বাংলা কমিউনিস্ট পার্টি নামে সর্বহারা বাহিনীর অস্ত্রের ঝনঝনানি ছিল। কিন্তু আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতা ও সর্বহারা বাহিনীর প্রধান বিদ্যুৎ বাছাড় এবং মোজাফফর সানা বন্দুকযুদ্ধে মারা যাওয়ার পর তাদের অপতৎপরতা বন্ধ হয়ে যায়। কিন্তু সম্প্রতি আবারও সর্বহারা পার্টির পরিচয়ে বিভিন্নজনের কাছে চাঁদা দাবির ঘটনা ঘটছে।

বাংলাদেশ সময়: ২০৪৯ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২০
এনটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa