ঢাকা, শুক্রবার, ১৬ আশ্বিন ১৪২৭, ০২ অক্টোবর ২০২০, ১৩ সফর ১৪৪২

জাতীয়

‘সবাই জানতেন তিনি এমবিবিএস ডাক্তার’

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৬৩৮ ঘণ্টা, আগস্ট ১৩, ২০২০
‘সবাই জানতেন তিনি এমবিবিএস ডাক্তার’

জয়পুরহাট: জয়পুরহাটের আক্কেলপুর উপজেলার একটি ডায়াগনস্টিক সেন্টারে এমবিবিএস চিকিৎসক পরিচয় দিয়ে নিয়মিত রোগী দেখতেন এক মেডিক্যাল অ্যাসিস্ট্যান্ট।

বুধবার (১২ আগস্ট) বিকেলে ডায়াগনস্টিক সেন্টারে ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চালিয়ে তাকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন।

জরিমানা প্রাপ্ত ওই মেডিক্যাল অ্যাসিস্ট্যান্টের নাম এম নেসারুল ইসলাম। তিনি কোনো এমবিবিএস চিকিৎসক নন, তিনি একজন ডিপ্লোমা মেডিক্যাল অ্যাসিস্ট্যান্ট।

ভ্রাম্যমাণ আদালত সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, মেডিসিন, চর্ম ও যৌন রোগ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক হিসেবে পরিচয় দিয়ে নেসারুল ইসলাম আক্কেলপুর পৌর শহরের কলেজ বাজার এলাকার ডিজিটাল ডায়াগনস্টিক সেন্টারে প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত (শুক্রবার বাদ) রোগী দেখতেন এবং ব্যবস্থাপত্র দিতেন। তিনি ডায়াবেটিস রোগেরও চিকিৎসা দিয়ে আসছিলেন।

তার কাছে চিকিৎসা নিয়ে রোগী সুস্থ না হওয়ায় নেসারুল এমবিবিএস চিকিৎসক কি না, তা নিয়ে রোগী ও তাদের স্বজনদের মধ্যে সন্দেহ হয়।

এ বিষয়ে অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে আক্কেলপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এস এম হাবিবুল হাসান ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে তাকে জরিমানা করেন।

ইউএনও হাবিবুল হাসান বলেন, ‘নেসারুলের নামে কিছু অভিযোগ আসে। বিশেষ করে তিনি নিজেকে এমবিবিএস চিকিৎসক ভুয়া পরিচয় দিতেন।  স্থানীয় সবাই জানতেন তিনি এমবিবিএস ডাক্তার। তিনি তার নামের আগে এমবিবিএস ডাক্তারসহ বিভিন্ন ধরনের মুখোরোচক বাক্য লিখে রোগীদের সঙ্গে প্রতারণা করছিলেন’।
বুধবার ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে জানা যায়, তিনি ডিপ্লোমা মেডিক্যাল অ্যাসিস্ট্যান্ট। পরে তাকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। সেই সঙ্গে সেখান থেকে চলে যাওয়ার জন্য এক মাসের সময় দেওয়া হয়।

বাংলাদেশ সময়: ০৬৩৮ ঘণ্টা, আগস্ট ১৩, ২০২০
আরআইএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa