ঢাকা, শুক্রবার, ১৬ আশ্বিন ১৪২৭, ০২ অক্টোবর ২০২০, ১৩ সফর ১৪৪২

জাতীয়

স্বাস্থ্যমন্ত্রীর অপসারণের দাবিতে যুব মৈত্রীর মানববন্ধন

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৭৩৮ ঘণ্টা, জুলাই ১১, ২০২০
স্বাস্থ্যমন্ত্রীর অপসারণের দাবিতে যুব মৈত্রীর মানববন্ধন

ঢাকা: স্বাস্থ্যখাতের দুর্নীতি সিন্ডিকেটের সঙ্গে জড়িতদের বিচার এবং স্বাস্থ্যমন্ত্রীর অপসারণ ও জনসাধারণের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতের দাবিতে মানববন্ধন করেছে বাংলাদেশ যুব মৈত্রী। 

শনিবার (১১ জুলাই) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।  

সংগঠনের সভাপতি সাব্বাহ আলী খান কলিন্সের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তব্যে রাখেন- সহ-সভাপতি তৌহিদ রহমান, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মুতাসিম বিল্লাহ সানী, সহ-সভাপতি কায়সার আলম, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক এম এম মিলটন, কেন্দ্রীয় সদস্য ওমর ফারুক সুমন, জামিলুর রহমান ডালিম, মানিক হাওলাদার প্রমুখ।

 

মানববন্ধন পরিচালনা করেন সংগঠনের সহ-সাধারণ সম্পাদক যুব নেতা তাপস দাস।

এতে বক্তারা বলেন, ‘সরাসরি জনসাধারণের স্বাস্থ্যসেবার সঙ্গে জড়িত এ খাত দীর্ঘকাল যাবৎ দুর্নীতির মহাসাগর ও সিন্ডিকেট দ্বারা নিয়ন্ত্রিত। স্বাস্থ্যখাতের দুর্নীতি ও দুর্নীতি পরায়ণ ব্যক্তি ও গোষ্ঠীকে করোনা ভাইরাস চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে। দুর্নীতিকে সরকার জিরো টলারেন্স বলছে কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে দুর্নীতি পরায়ণ গোষ্ঠীকে মনে হচ্ছে সরকারের চাইতেও শক্তিশালী। সম্প্রতি রাজধানীর রিজেন্ট হাসপাতালের মালিক সাহেদ এখনও পর্যন্ত গ্রেফতার হয়নি। সাহেদের পেছনে যারা তাকে শক্তি যুগিয়েছে তারাও নাগালের বাইরে। করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি লক্ষ্য করার পর থেকে মাস্ক ও পিপিই কেলেঙ্কারিসহ সামগ্রিক উদাসীনতায় স্বাস্থ্যমন্ত্রীর কর্মকাণ্ডে প্রমাণিত তিনি অযোগ্য ও ব্যর্থ। ’

অবিলম্বে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর অপসারণ দাবি করে বক্তারা বলেন, ‘সরকার করোনা টেস্টের জন্য সরকারি-বেসরকারি ল্যাবরেটরিতে টেস্টের ফি নির্ধারণ করেছে, যা জনসাধারণের সঙ্গে তামাশার শামিল। স্বাস্থ্যখাতকে জনগণের মৌলিক অধিকার হিসেবে চিহ্নিত করে আমূল পরিবর্তন এখন সময়ের দাবি। ’  

বক্তারা করোনা টেস্টের সব প্রকার ফি প্রত্যাহার ও করোনাসহ অন্য অসংক্রমিত রোগের চিকিৎসার জন্য যথাযথ কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করে স্বাস্থ্যখাতকে ঢেলে সাজানোর আহ্বান জানান।

মানববন্ধন কর্মসূচি থেকে করোনা রোগীদের চিকিৎসায় ফ্রন্টলাইনে যারা নিরলসভাবে সেবা দিয়ে যাচ্ছেন তাদের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করা হয়। একইসঙ্গে করোনা মহামারিতে যারা সেবা দিতে গিয়ে মারা গেছেন তাদের স্মৃতির প্রতি সম্মান ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানানো হয়।

বাংলাদেশ সময়: ১৭৩৪ ঘণ্টা, জুলাই ১১, ২০২০
আরকেআর/আরবি/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa