ঢাকা, শুক্রবার, ২৩ শ্রাবণ ১৪২৭, ০৭ আগস্ট ২০২০, ১৬ জিলহজ ১৪৪১

জাতীয়

১৫ জুলাই আবারও কর্মবিরতিতে যাবে বিএমটিএ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৯৩৪ ঘণ্টা, জুলাই ৯, ২০২০
১৫ জুলাই আবারও কর্মবিরতিতে যাবে বিএমটিএ ...

ঢাকা: অবিলম্বে দাবি বাস্তবায়ন না করলে আগামী ১৫ জুলাই দেশের সব সরকারি হাসপাতাল ও চিকিৎসা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কর্মবিরতির ঘোষণা দিয়েছে বাংলাদেশ মেডিকেল টেকনোলজিস্ট অ্যাসোসিয়েশন (বিএমটিএ)।

বৃহস্পতিবার (৯ জুলাই) সকাল ১১টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত কর্মবিরতির কর্মসূচি পালন করার পরে বিএমটিএ সভাপতি আলমাছ আলী খান ও মহাসচিব মুক্তিযোদ্ধা মোশাররফ হোসেন খান এক বিবৃতিতে এ ঘোষণা দেন।

কর্মবিরতির কর্মসূচি পালনকালে তারা স্ব-স্ব প্রতিষ্ঠানের সামনে সমবেত হয়ে দাবির সপক্ষে সমাবেশ করেন।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের উদাসীনতার কারণে মেডিকেল টেকনোলজিস্টরা কর্মবিরতির কর্মসূচি পালন করতে বাধ্য হয়েছে।

বক্তারা অভিযোগ করে বলেন, গত ৩ মাস যাবত বয়সোত্তীর্ণ মেডিকেল টেকনোলজিস্টদের বয়স প্রমার্জনা সাপেক্ষে ২০ হাজার বেকার মেডিকেল টেকনোলজিস্টকে নির্বাহী আদেশে এডহক ভিত্তিতে অবিলম্বে নিয়োগ ও মেডিকেল টেকনোলজিস্টদের নতুন পদ সৃষ্টি, চাকরির শুরুতে মেডিকেল টেকনোলজিস্টদের দশম গ্রেডে উন্নীতকরণ, ডিপ্লোমা মেডিকেল এডুকেশন বোর্ড চালুকরণ, স্বেচ্ছাসেবক/অস্থায়ী/মাস্টাররোলের মাধ্যমে মেডিকেল টেকনোলজিস্ট পদে নিয়োগ বন্ধকরণ, সুপ্রিমকোর্টের আদেশ এবং প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে গঠিত আন্তঃমন্ত্রণালয় কমিটির সুপারিশ মোতাবেক ওয়ান আমব্রেলা কনসেপ্ট বাস্তবায়ন এবং কারিগরি শিক্ষা বোর্ড সংশ্লিষ্টদের মামলার চূড়ান্ত নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত কারিগরি শিক্ষা বোর্ড থেকে পাসকৃতদের স্বাস্থ্য বিভাগে নিয়োগ না দেওয়া, অস্বচ্ছ প্রক্রিয়ায় ১৮৩ জন মেডিকেল টেকনোলজিস্টের স্থায়ী নিয়োগের সুপারিশের আলোকে ১৪৫ জন নিয়োগ পাওয়া মেডিকেল টেকনোলজিস্টের নিয়োগপত্র বাতিলকরণ এবং অনিয়মের সাথে জড়িতদের শাস্তির দাবিতে শান্তিপূর্ণ উপায়ে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করা সত্ত্বেও স্বাস্থ্য বিভাগ দাবি বাস্তবায়নে কোন উদ্যোগ নেয়নি।

তারা আরও অভিযোগ করেন, দাবি বাস্তবায়নে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর আন্তরিক তো নয়ই, উপরন্তু স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কতিপয় বিতর্কিত সিদ্ধান্তের কারণে মেডিকেল টেকনোলজিস্টরা ক্ষুব্ধ হয়ে কর্মবিরতি কর্মসূচি দিতে বাধ্য হয়েছে।

বিবৃতিতে আরো বলা হয়, কর্মবিরতির কর্মসূচি পালনকালে হাসপাতালগুলোতে প্যাথলজিক্যাল, ব্লাড ব্যাংক, রেডিওলজিক্যাল, ফিজিওথেরাপি, ডেন্টাল, রেডিওথেরাপি বিভাগের রোগীদের পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও স্বাভাবিক সেবা কার্যক্রম ব্যাহত হয়। করোনা পরীক্ষা-নিরীক্ষার পিসিআর ল্যাব কর্মবিরতির আওতায় থাকার কারণে রোগীর নমুনা সংগ্রহ ও পরীক্ষায় প্রভাব পড়লেও সীমিত আকারে জরুরি সেবা চালু ছিল।

বাংলাদেশ সময়: ১৯৩০ ঘণ্টা, জুলাই ০৯, ২০২০
পিএস/এমজেএফ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa