ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৯ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৩ আগস্ট ২০২০, ২২ জিলহজ ১৪৪১

জাতীয়

‘সজীব ওয়াজেদের ডিজিটাল কর্মকাণ্ডের সুফল পাচ্ছে মানুষ’

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৯১৪ ঘণ্টা, জুলাই ২, ২০২০
‘সজীব ওয়াজেদের ডিজিটাল কর্মকাণ্ডের সুফল পাচ্ছে মানুষ’

চট্টগ্রাম: ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ এখন আর স্বপ্ন নয়, বাস্তব। প্রযুক্তি ব্যবহারের ফলে দেশে সামাজিক ও অর্থনৈতিক বিপ্লব ঘটেছে। উন্নত বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে দেশের মানুষও এর সুফল ভোগ করছে। আর এর সবকিছুই সম্ভব হয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী পরিকল্পনা আর তার ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয়ের অগ্রণী ভূমিকার কারণে।

‘সুচিন্তা বাংলাদেশ’- এর আহ্বায়ক এবং সুচিন্তা ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মোহাম্মদ এ আরাফাত বাংলানিউজের সঙ্গে আলাপকালে এ অভিমত ব্যক্ত করেন।

তিনি বলেন, ১৯৯৬ সালে প্রথমবার ক্ষমতায় এসে আওয়ামী লীগ সরকারের প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ গড়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন।

২০০৮ সালে দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় এলে শুরু হয় সে স্বপ্ন বাস্তবে রূপ দেওয়ার কার্যক্রম।

‘প্রধানমন্ত্রীর সুযোগ্য সন্তান ও তার তথ্যপ্রযুক্তিবিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় এ কার্যক্রম এগিয়ে নিয়েছেন বহুদূর। ’

সরকারের কার্যক্রমের প্রক্রিয়া সম্পর্কে তিনি বলেন, শুরুতেই কম্পিউটারসহ সব আধুনিক যন্ত্রপাতির ওপর থেকে ট্যাক্স প্রত্যাহার করে নেয় সরকার, যাতে ডিজিটালাইজড করার সব ধরনের যন্ত্রপাতি জনগণের কাছে সহজলভ্য হয়। সেই ব্যবস্থা গ্রহণ করার সুফল আজ আমরা পাচ্ছি। প্রযুক্তিতে বাংলাদেশকে আরও উন্নত করতে ফাইভ-জি চালুর প্রস্তুতিসহ ডিজিটাল অবকাঠামো সম্প্রসারণে অগ্রণী ভূমিকা পালন করছেন সজীব ওয়াজেদ জয়।

মোহাম্মদ এ আরাফাত বলেন, এরইমধ্যে প্রায় সাড়ে চার হাজার ইউনিয়নে ডিজিটাল সেন্টার পৌঁছে গেছে। উৎক্ষেপণ করা হয়েছে স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধু-১। টেলিভিশন চ্যানেলগুলো বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ এর মাধ্যমে তাদের অনুষ্ঠান সম্প্রচার করতে পারছে। ২০১৫ সাল থেকে দেশের জনগণের জন্য মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট (এমআরপি) দেওয়া শুরু হয়। ২০১৮-১৯ অর্থবছর থেকে গ্রহণ করা হয় ই-পাসপোর্ট প্রকল্প। সরকারি হাসপাতালগুলোতে টেলিমেডিসিন সেবা চালু হওয়ার ফলে গ্রামীণ জনপদের মানুষ খুব সহজেই বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ পাচ্ছেন। বিদ্যুৎ বিল দিতে লম্বা লাইনে দাঁড়িয়ে সাধারণ মানুষকে আর ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে না।

তিনি বলেন, প্রযুক্তির এ সফলতার কারণেই সরকার সারাদেশে প্রযুক্তির সঙ্গে সব শ্রেণি-পেশার মানুষের পরিচিতি ঘটাতে এবং এর সুফল পেতে একটি ভিন্ন প্লাটফর্ম তৈরি করছে। দেশের ৪ কোটি ২৬ লাখ শিক্ষার্থীকে প্রযুক্তি শিক্ষায় শিক্ষিত করে যোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ে তোলার চেষ্টা চলছে। এজন্য শিক্ষার্থীদের মাল্টিমিডিয়া ক্লাস রুম ও ডিজিটাল ল্যাবের কার্যকর ব্যবহার নিশ্চিত করা হচ্ছে। সন্তানদের শিক্ষামুখী করতে মায়েদের মুঠোফোনেই পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে প্রণোদনা।

‘ভূমি অফিসগুলোতে অটোমেশন পদ্ধতি চালু করে দুর্নীতি প্রতিরোধ ও জনগণের হয়রানি কমিয়ে জনসেবা নিশ্চিত করতে কাজ করছে সরকার। ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে বেসিস এ শিল্পের জন্য ২৩ হাজার উপযুক্ত জনবল তৈরি করছে। এর পাশাপাশি ১০ লাখ নতুন ইন্টারনেট ব্যবহারকারী সৃষ্টিতে কাজ করছে। ’
 
সুচিন্তা ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান বলেন, সরকার নতুন প্রজন্মকে তথ্যপ্রযুক্তিতে সক্ষম করে তুলতে মাধ্যমিক পর্যায়ে আইসিটি শিক্ষা বাধ্যতামূলক করেছে। আগামীতে প্রাথমিক পর্যায় পর্যন্ত কম্পিউটার শিক্ষাকে বাধ্যতামূলক করা হবে বলে জানা গেছে। এছাড়া সরকার ই-গভর্ন্যান্সও অনেকটাই বাস্তবায়ন করে ফেলেছে। মানুষের হাতে অল্প দামে মোবাইল ফোন তুলে দেওয়া সম্ভব হয়েছে।  

তিনি বলেন, আগামী পাঁচ বছরে তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে বাংলাদেশ কোথায় যাবে তা কেউ কল্পনাই করতে পারবে না। তথ্যপ্রযুক্তি অবকাঠামোর ভিত্তি মজবুত হয়েছে, এখন শুধু সুফল আসবে। আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে জাতিসংঘের আইসিটি ইন্ডিকেটর ডিজিটাল গভর্নেন্স ইনডেক্সের শীর্ষ পঞ্চাশে আসার প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছেন সজীব ওয়াজেদ জয়।

করোনাকালে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির সুবিধা ব্যবহার করে অনেক কিছুই সচল রাখা সম্ভব হয়েছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, করোনার কারণে দেশের অর্থনীতি ও ব্যবসা-বাণিজ্যে ধাক্কা লাগলেও প্রযুক্তিতে এগিয়ে থাকার কারণেই অনেক কিছু চালু রাখা সম্ভব হয়েছে। অনলাইন শপিং, ভার্চ্যুয়াল মিটিং সবকিছুই চলছে তথ্যপ্রযুক্তির কল্যাণে।  

করোনা না এলে দেশ এ সময়েই বহুদূর এগিয়ে যেতো বলে মন্তব্য করেন তিনি।  

স্বাধীনতার পর থেকে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে জিডিপি ৩ ট্রিলিয়ন ডলারে পৌঁছে যেত দাবি করে তিনি বলেন, বাংলাদেশের বয়স ৪৯ বছর। প্রতিক্রিয়াশীলরা ওয়ান ইলেভেনসহ মোট ২৮ বছর ক্ষমতায় ছিলো। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় ছিলো সাড়ে ২০ বছর। এই সময়ে পাকিস্তান থেকে আমরা জাতীয় আয়, মাথাপিছু আয়, জিডিপিসহ সবক্ষেত্রে ছাড়িয়ে গেছি। এটি বৈশ্বিকভাবে প্রতিষ্ঠিত সত্য।

বাংলাদেশে জঙ্গি তৎপরতা রোধে সরকারের নেওয়া নানা পদক্ষেপের কথা উল্লেখ করে মোহাম্মদ এ আরাফাত বলেন, বাংলাদেশে মৌলবাদী রাজনীতির চর্চা যখন শুরু হয় অর্থাৎ পঁচাত্তর পরবর্তী সময়ে সামরিক শাসকের হাত ধরে আমরা প্রতিক্রিয়াশীল রাজনীতির দিকে গেলাম, তারই ফলশ্রুতিতে পরবর্তী সময়ে বৈশ্বিক বাস্তবতায় বাংলাদেশেও জঙ্গিবাদ জায়গা করে নেয়। এখন আমরা অনেকটা কন্ট্রোলড অবস্থায় রয়েছি।  

আমি মনে করি, জঙ্গি কর্মকাণ্ডের বিপক্ষে যেমন শক্ত অবস্থান নিতে হবে, তেমনই আইনশৃঙ্খলা বাহিনীগুলোকেও কার্যক্রম অব্যাহত রাখতে হবে। একই সঙ্গে দীর্ঘ মেয়াদে জঙ্গিবাদকে মোকাবেলার জন্য আমাদের বিভিন্ন ধরনের প্রোগ্রাম হাতে নিতে হবে। তারই অংশ হিসেবে দেশজুড়ে সুচিন্তা বাংলাদেশ জঙ্গিবাদ বিরোধী কাজগুলো করে যাচ্ছে। স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা, বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে সুচিন্তা বাংলাদেশ মৌলবাদ, জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে অব্যাহত সভা সমাবেশ, সেমিনার করে তরুণ প্রজন্মকে সচেতন করে তুলছে।  

‘প্রসঙ্গ টেনে বলেন, স্বাধীনতা পরবর্তী একটি মৌলবাদ গোষ্ঠী ধর্মকে ব্যবহার করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধ্বংস করার জন্য নানা অপপ্রচার, মিথ্যাচারে লিপ্ত। এদের প্রতিরোধে সুচিন্তা বাংলাদেশ নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। ’

এ আরাফাত বলেন, পাকিস্তানি ভাবধারার স্বাধীনতা বিরোধী এ অংশটি এখনও জনগণকে বিভ্রান্ত করতে সুযোগের সন্ধানে থাকে, নানা অপপ্রচার চালায়। এ ক্ষেত্রে সুচিন্তা দেশের আপামর জনগনকে সঙ্গে নিযে তাদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে বদ্ধ পরিকর। আমরা চাই ধর্ম- বর্ণ নির্বিশেষে শান্তিমূলক সহাবস্থান এবং মৌলবাদ ও জঙ্গিবাদের নির্মূল হোক।  

বাংলাদেশ সময়: ১৪০০ ঘণ্টা, জুলাই ০২, ২০২০
টিসি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa