bangla news

সাংবাদিকদের পুলিশি তলব গণমাধ্যমের স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০২০-০৬-১৮ ৯:৩৫:০৬ পিএম
...

...

ঢাকা: সম্প্রতি পুলিশের এক উচ্চপদস্থ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগে ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনারের এক চিঠির ওপর ভিত্তি করে সংবাদমাধ্যমে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। বিষয়টিকে চিঠি ফাঁস হিসেবে আখ্যা দিয়ে এ সংক্রান্ত তদন্ত কমিটি জিজ্ঞাসাবাদের জন্য একাধিক সাংবাদিককে তলব করেছে। পুলিশ কমিশনারের চিঠি ফাঁসের জেরে সাংবাদিকদের তলব করার এ ধরনের ঘটনাকে গণমাধ্যমের স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ বলে অভিহিত করেছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)। 

বৃহস্পতিবার (১৮ জুন) সংবাদমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ কথা জানিয়েছে জার্মানি ভিত্তিক দুর্নীতি বিরোধী এ সংস্থা।
 
বিবৃতিতে টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, সাংবাদিক নিজের সংবাদের উৎস প্রকাশ করবেন না, এটাই প্রতিষ্ঠিত নীতি। এখন যদি সাংবাদিককে ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় যে, তাকে কে তথ্য সরবরাহ করেছে, তাহলে ভবিষ্যতে দুর্নীতির ঘটনার ব্যাপারে কেউ আর মুখ খুলতে সাহস করবে না। এ ধরনের পুলিশি তলব কার্যত স্বাধীন সাংবাদিকতার জন্য প্রতিবন্ধকতা হিসেবে গণ্য হবে। এভাবে সংবাদকর্মীদের চাপের মধ্যে রাখার নীতি আত্মঘাতী, সার্বিকভাবে জনস্বার্থবিরোধী। এর ফলে পুলিশের মতো একটি পেশাদার বাহিনী আদৌ তাদের প্রাতিষ্ঠানিক দুর্নীতি প্রতিরোধে আগ্রহী কী-না সেই প্রশ্নও উঠতে পারে।
 
দুর্নীতিবিরোধী কার্যক্রমে সংবাদমাধ্যমকর্মীদের অন্যতম সহযোগী হিসেবে বিবেচনা করা উচিত উল্লেখ করে ইফতেখারুজ্জামান বলেন, ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার লিখিতভাবে একজন ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ করেছেন। স্বাভাবিক বিবেচনায় এখন এটিই পুলিশ বাহিনীর মূল বিবেচ্য হওয়া উচিত বলে মনে করি। আলোচিত সেই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে আনিত ওই অভিযোগের পূর্ণাঙ্গ এবং গ্রহণযোগ্য তদন্তকে প্রাধান্য দিয়ে, দোষী সাব্যস্ত হলে তার দৃষ্টান্তমূলক সাজা নিশ্চিত করা উচিত। কিন্তু পুলিশের মতো একটি সুশৃঙ্খল বাহিনী সেই পথে না গিয়ে, বরং চিঠি কী করে গণমাধ্যমে ফাঁস হয়ে গেল তা নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে। এতে প্রাতিষ্ঠানিকভাবে তাদেরই সম্মানহানি হচ্ছে। তাদের অবস্থান প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে।
 
‘আভ্যন্তরীণভাবে অনুসন্ধান করেই জানা সম্ভব চিঠিটা কে ফাঁস করেছে। অথচ এই পুরো প্রক্রিয়ায় যেভাবে সংবাদমাধ্যমকর্মীদের ওপর দৃশ্যমান একটা চাপ তৈরি করা হচ্ছে, তাতে আমরা যারা দেশের সাধারণ নাগরিক, তারা আতঙ্কিত বোধ করছি।’
 
চিঠিটির সত্যতা পুলিশ বাহিনী অস্বীকার করেনি উল্লেখ করে টিআইবির নির্বাহী পরিচালক এ ব্যাপারে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) জোরালো ও কার্যকর পদক্ষেপের দাবি জানান। তিনি বলেন, চিঠিটি সত্য হলে যে কোনো একপক্ষ অবশ্যই দায়ী। অথচ পুলিশ কমিশনারের চিঠিতে অভিযুক্ত কর্মকর্তাকে শুধুমাত্র বদলি করার অনুরোধ জানানো হয়েছে। যা কোনো অবস্থাতেই দুর্নীতির জন্য সাজা হিসেবে বিবেচিত হতে পারে না। উল্টো পুলিশ বাহিনী এখন সাংবাদিকদের কার্যত হয়রানি করছে। এমন বাস্তবতায় দুর্নীতির অভিযোগের বিষয়টি আমলে নিয়ে দুদকের দ্রুত তদন্ত শুরু করা উচিত, যাতে এই ধরনের দুর্নীতির ব্যাপকতা কতটুকু এবং কারা এ ধরনের অপরাধমূলক কাজে জড়িত, তা চিহ্নিত করে যথাযত আইনগত ব্যবস্থা নিশ্চিত করা সম্ভব হয়।
 
বাংলাদেশ সময়: ২১৩৩ ঘণ্টা, জুন ১৮, ২০২০ 
ইইউডি/এইচজে

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2020-06-18 21:35:06