bangla news

পায়ের রগ কেটে দেয়া সেই সাবেক সেনা সদস্য মারা গেছেন 

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০২০-০৪-০২ ১০:০৬:০৯ পিএম
লিটু সরদার। ছবি: বাংলানিউজ

লিটু সরদার। ছবি: বাংলানিউজ

গোপালগঞ্জ: গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে দুই পায়ের রগ কেটে দেওয়া সাবেক সেনা সদস্য লিটু সরদার (৫০) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। 

বৃহস্পতিবার (২ এপ্রিল) রাত সোয়া ৮টার দিকে গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। 

এদিকে এ ঘটনায় কাশিয়ানী থানা পুলিশ ৫ জনকে আটক করেছে। 

নিহত লিটু সরদার উপজেলার সাজাইল ইউনিয়নের রাইতকান্দি পূর্বপাড়া গ্রামের মান্নান সরদারের ছেলে। 

বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলার সাজাইল বাজার এলাকায় প্রতিপক্ষের লোকজন লিটু সরদারের দুই পায়ের রগ কেটে দেয় এবং শরীরের বিভিন্ন স্থানে কুপিয়ে জখম করে। এ সময় তার সঙ্গে থাকা প্রতিবেশী মঞ্জু শেখকে পিটিয়ে আহত করা হয়। পরে পরিবারের লোকজন তাদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে সেখানে দায়িত্বরত চিকিৎসকরা লিটু সরদারকে গোপালগঞ্জ ২৫০-শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে পাঠায়।  
আহত লিটু সরদারের ভাই মুরাদ সরদার জানান, কয়েকদিন আগে গ্রামের একটি জমি নিয়ে লিটু সরদারের সঙ্গে একই গ্রামের এনায়েত সরদার ও রঞ্জু সরদারের বিরোধ ঘটে। ওই ঘটনার জেরে ৪ দিন আগে লিটু সরদারের ছেলে লিংকন সরদারকে মারধর করে তারা। এ বিষয় নিয়ে বৃহস্পতিবার দুপুরে কাশিয়ানী থানার ওসির সঙ্গে দেখা করে ফিরছিলেন লিটু সরদার ও প্রতিবেশী মঞ্জু শেখ। তারা সাজাইল বাজারের কাছে পৌঁছালে আগে থেকে ওঁৎ পেতে থাকা এনায়েত সরদার ও রঞ্জু সরদারের লোকজন দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে তাদের ওপর হামলা চালায়। এ সময় লিটু সরদারকে এলোপাতাড়ি কোপায় ও দুই পায়ের রগ কেটে দেয় এবং প্রতিবেশী মঞ্জু শেখ বেধরক পিটিয়ে ফেলে রেখে চলে যায়।
 
কাশিয়ানী থানার ওসি আজিজুর রহমান জানান, আহত লিটু সরদার মারা গেছেন। এ ঘটনায় পুলিশ ৫ জনকে আটক করেছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িত অন্যদেরও আটকের চেষ্টা চলছে। এ ঘটনায় এখনো মামলা হয়নি বলে জানান ওসি। 

** কাশিয়ানীতে সাবেক সেনা সদস্যের পায়ের রগ কেটে দিল প্রতিপক্ষ

বাংলাদেশ সময়: ২২০২ ঘণ্টা, এপ্রিল ০২, ২০২০
আরএ

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   গোপালগঞ্জ
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2020-04-02 22:06:09