bangla news

করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু: পুলিশি পাহারায় দাফন

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০২০-০৩-২৮ ১০:২৪:৫৫ পিএম
.

.

বগুড়া: বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলায় করোনা ভাইরাস উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া ব্যক্তির মরদেহ পুলিশি পাহারায় সরকারি খাস জমিতে দাফন সম্পন্ন হয়েছে।

শনিবার (২৮ মার্চ) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে শিবগঞ্জ উপজেলার ময়দানহাটা ইউনিয়নের হোসেনপুর গ্রামের বড়পুকুরিয়া নামক স্থানে পীরের মাজারের পাশে সরকারি খাস জমিতে মরদেহ দাফন করা হয়। 

এর আগে শনিবার (২৮ মার্চ) সকালে শিবগঞ্জ উপজেলার মহব্বত নন্দীপুর গ্রামে স্ত্রীর কর্মস্থল এলাকায় ভাড়া বাসায় মারা যান ওই ব্যক্তি। করোনা উপসর্গ নিয়ে ঢাকা থেকে গত মঙ্গলবার (২৪ মার্চ) তিনি সেখানে আসেন। 

এদিকে করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়ার খবরে এলাকা জুড়ে করোনা আতংক ছড়িয়ে পড়লে স্থানীয় প্রশাসন সেখানকার ১৫টি বাড়ি লকডাউন ঘোষণা করে। এরপর নিশ্চিত হওয়ার জন্য মরদেহ থেকে নমুনা সংগ্রহ করে নিয়ে যায় স্বাস্থ্য বিভাগ। 

জানা গেছে, বিকেলের দিকে মরদেহ দাফন নিয়ে দেখা দেয় বিপত্তি। গ্রামের লোকজন সেখানে দাফনে আপত্তি জানায়। উপজেলার সোবাহানপুর বড় পুকুরিয়া পীরপল নামক স্থানে কবর খননের কাজ শুরু করার সময় ময়দান হাটা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মেজবাউল হোসেন নেতৃত্বে গ্রামবাসী ঐক্যবদ্ধ হয়ে ওঠেন এবং কবর খননে বাধা দেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়ার আশঙ্কায় বিকেল ৪টার পর ওই গ্রামে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়।

এরপর উপজেলা চেয়ারম্যান ফিরোজ আহম্মেদ রিজু, উপজেলা নির্বাহী অফিসার আলমগীর কবীর, থানার ওসি মিজানুর রহমান সেখানে যান। পুলিশ গ্রামের লোকজনকে সেখান থেকে সরিয়ে ধর্মীয় বিধান অনুযায়ী গ্রাম পুলিশের তিন সদস্য ও হাসপাতালের একজন ওয়ার্ড বয়ের সহযোগীতায় সন্ধ্যা সাড়ে ৭টর দিকে মরদেহ দাফন করা হয়।

শিবগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান বাংলানিউজকে বলেন, প্রথম অবস্থায় এলাকার লোকজন দাফনে বাধা দেয়। পরে পুলিশের হস্তক্ষেপে মরদেহ দাফন করা হয়।

বাংলাদেশ সময়: ২২২৪ ঘণ্টা, মার্চ ২৮, ২০২০
এমএইচএম

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   করোনা ভাইরাস
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2020-03-28 22:24:55