bangla news

গাইবান্ধায় আরও ২ জন করোনায় আক্রান্ত: সিভিল সার্জন

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০২০-০৩-২৮ ৬:০৯:০৮ পিএম
ছবি: প্রতীকী

ছবি: প্রতীকী

গাইবান্ধা: গাইবান্ধায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত দুই আমেরিকা প্রবাসীর সংস্পর্শে আসা দুইজন নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন। এ নিয়ে সেখানে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল চারজন।

শনিবার (২৮ মার্চ) বিকেলে গাইবান্ধা সিভিল সার্জন ডা. এবিএম আবু হানিফ বাংলানিউজকে জানান, করোনা আক্রান্ত চারজনকে গাইবান্ধা সদর হাসপাতালের আইসোলেশন ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে।

নতুন করে আক্রান্ত এ দুই ব্যক্তি আমেরিকা প্রবাসী ওই নারীর ভাগ্নি (বোনের মেয়ে) ও জা (দেবরের স্ত্রী)। গাইবান্ধার সাদুল্লাপুরে এক বিয়ে বাড়িতে ও গাইবান্ধা শহরের নিজ বাড়িতে ওই দুই আমেরিকা প্রবাসীর সংস্পর্শে এসে তারা এ ভাইরাসে আক্রান্ত হন। 

ডা. এবিএম আবু হানিফ বাংলানিউজকে জানান, ঢাকার রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) একটি প্রতিনিধি দল গত সোমবার গাইবান্ধায় এসে দুই আমেরিকা প্রবাসীর সংস্পর্শে আসা বেশকিছু ব্যক্তির নমুনা সংগ্রহ করে। ওইদিন রাতে প্রতিনিধি দলটি ঢাকার উদ্দেশে গাইবান্ধা ত্যাগ করে। পরে পরীক্ষা শেষে শনিবার (২৮ মার্চ) তারা (আইইডিসিআর) জানায়, তাদের মধ্যে মাত্র এই দুই জনের করোনা ভাইরাস ‘পজিটিভ’ এসেছে। 

তিনি আরও জানান, শনিবার সকাল পর্যন্ত হোম কোয়ারেন্টিনে রাখা ব্যক্তির সংখ্যা ২২৫ জন। এদের মধ্যে জেলার সুন্দরগঞ্জে ৫৮, গোবিন্দগঞ্জে ৫১, সদরে ৪২, ফুলছড়িতে ১০, সাঘাটায় ১৪, পলাশবাড়িতে ১৪, সাদুল্যাপুর উপজেলায় ২৭ জন রয়েছেন। তাদের ওপর কড়া নজরদাড়ি রাখা হচ্ছে। 

প্রসঙ্গত, গত ১১ মার্চ সাদুল্লাপুর উপজেলার হবিবুল্লাপুর গ্রামে এক বিয়েরে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। ওই অনুষ্ঠানে আমেরিকা থেকে আসা দুইজন আত্মীয় আসেন। তারা ওই বাড়িতে গত ১১, ১২ ও ১৩ মার্চ অর্ধশতাধিক লোকজনের সঙ্গে অবস্থান করেন। ১৪ মার্চ বিয়ের অনুষ্ঠান শেষে গাইবান্ধা শহরে নিজ বাড়ি চলে যান। এরমধ্যেই ২২ মার্চ আমেরিকা প্রবাসী ওই দুইজনের করোনা ধরা পড়ে। এ ঘটনার পর থেকে জেলা জুড়ে করোনা আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।

বাংলাদেশ সময়: ১৭৪৯ ঘণ্টা, মার্চ ২৮, ২০২০
এনটি

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   করোনা ভাইরাস
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2020-03-28 18:09:08