bangla news

করোনা মোকাবিলায় বাংলাদেশকে সহায়তা দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

ডিপ্লোম্যাটিক করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০২০-০৩-১৩ ১:১২:৩৪ এএম
যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত আর্ল মিলার ও আইইডিসিআর পরিচালক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা। ছবি: যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের সৌজন্যে

যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত আর্ল মিলার ও আইইডিসিআর পরিচালক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা। ছবি: যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের সৌজন্যে

ঢাকা: নোভেল করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত অথবা সংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকিসম্পন্ন ২৫টি দেশে ৩৭ মিলিয়ন ডলার অর্থায়নের প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেছে যুক্তরাষ্ট্র। এর মধ্যে বাংলাদেশও রয়েছে।যুক্তরাষ্ট্রের আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থার (ইউএসএআইডি) সংক্রামক রোগ প্রতিরোধে জরুরি সংরক্ষিত তহবিল থেকে এ অনুদান দেওয়া হবে। 

বৃহস্পতিবার (১২ মার্চ) ঢাকার মার্কিন দূতাবাস থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। এতে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্র সরকার এ অর্থ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এবং অন্যান্য বহুপাক্ষিক প্রতিষ্ঠান ও বিভিন্ন দেশে ইউএসএআইডি-এর প্রকল্প বাস্তবায়নকারী সংস্থাসমূহের নেতৃত্বে পরিচালিত কার্যক্রমকে প্রদান করছে। এটি যুক্তরাষ্ট সরকারের প্রথম তহবিল; যা তাদের ১০০ মিলিয়ন ডলার পর্যন্ত সাম্প্রতিক একটি প্রতিশ্রুতির অংশ হিসেবে দেওয়া হচ্ছে।

রাষ্ট্রদূত মিলার ১১ মার্চ এই অর্থ সহায়তা ও এ বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্র সরকারের কর্মপরিকল্পনা জানাতে রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) পরিচালক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। 

পড়ুন>>করোনাকে মহামারী ঘোষণা, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের গণবিজ্ঞপ্তি

বাংলাদেশে কোভিড-১৯ মোকাবেলায় কীভাবে উভয় দেশের কার্যক্রম সমন্বয় করা যায় এবং কোন কোন খাতে ভবিষ্যতে অর্থ বরাদ্দ করা যায় সে বিষয়ে তারা আলোচনা করেন।

যুক্তরাষ্ট্র সরকার বাংলাদেশে কোভিড-১৯ মোকাবেলার প্রস্তুতি ও সাড়া প্রদানে ইউএসএআইডি-এর মাধ্যমে দ্রুত সময়ে ২৫ লাখ ডলার সংস্থান করেছে। ইউএসএআইডির-এই অর্থায়ন তিনটি অগ্রাধিকার ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হবে: (১) স্বাস্থ্য সেবাকেন্দ্রগুলোতে সংক্রমণ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ (আইপিসি ) পদ্ধতি জোরদার করা; (২) নমুনা পরিবহন এবং যথাস্থানে প্রেরণ (রেফারেল) ব্যবস্থা উন্নয়ন; এবং (৩) ঝুঁকি বিষয়ে জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে তথ্য যোগাযোগ ও প্রচার। এটি স্বাস্থ্যখাতে ইউএসএআইডি এবং যুক্তরাষ্ট্র সরকারের চলমান অন্যান্য বিনিয়োগকে আরো শক্তিশালী করবে।

ইউএসএআইডি সুনির্দিষ্টভাবে কোভিড-১৯ মোকাবেলায় দ্রুত রোগনির্ণয়, আক্রান্তের ব্যবস্থাপনা, আইপিসি এবং জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে সহযোগিতার ভিত্তিতে কাজ করার জন্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে ৭ লাখ ডলার প্রদান করছে। 

তাছাড়া, ইউএসএআইডি এফএইচআই৩৬০ (FHI360) কর্তৃক বাস্তবায়িত ইনফেকশাস ডিজিস ডিটেকশন অ্যান্ড সার্ভেইল্যান্স (আইডিডিএস ) এবং ম্যানেজমেন্ট সায়েন্সেস ফর হেলথ (এমএসএইচ ) কর্তৃক বাস্তবায়িত মেডিসিন, টেকনোলজিস, অ্যান্ড ফার্মাসিউটিক্যাল সার্ভিসেস (এমটিএপিএস) কার্যক্রমের প্রতিটিকে ৬ লাখ ৫০ হাজার ডলার করে প্রদান করছে। এসব কার্যক্রম যথাক্রমে আইপিসি,  নমুনা পরিবহন এবং যথাস্থানে প্রেরণ (রেফারেল) বিষয়ে কাজ করবে।

ইউএসএআইডি জন্স হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়কেও ৫ লাখ ডলার প্রদান করছে। এর আওতায় বৃহত্তর পর্যায়ে জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে উপকরণ প্রণয়ন ও বিতরণ করা হবে যা বর্তমান সময়ে জরুরি। সম্মুখভাগে কর্মরত স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য এটি বিশেষভাবে সত্য।

কোভিড-১৯ -এর প্রাদুর্ভাব ভৌগোলিকভাবে বিস্তৃত হচ্ছে বিধায় এ বিষয়ক বৈশ্বিক কার্যক্রমে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালনে ইউএসএআইডি তাদের সহায়তা অব্যাহত রাখবে।

বাংলাদেশ সময়: ০১০৯ ঘণ্টা, মার্চ ১২, ২০২০
টিআর/এমএ 

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   বাংলাদেশ যুক্তরাষ্ট্র করোনা ভাইরাস
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2020-03-13 01:12:34