bangla news

স্ত্রী-দুই সন্তানের গলিত মরদেহ উদ্ধার, স্বামী নিখোঁজ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০২০-০২-১৫ ৩:২৫:১১ এএম
ছবিতে রাকিব উদ্দিন ভূঁইয়ার সঙ্গে তার দুই সন্তান ও গাড়িতে তোলা হচ্ছে মরদেহ। ছবি: বাংলানিউজ

ছবিতে রাকিব উদ্দিন ভূঁইয়ার সঙ্গে তার দুই সন্তান ও গাড়িতে তোলা হচ্ছে মরদেহ। ছবি: বাংলানিউজ

ঢাকা: রাজধানীর দক্ষিণখানের প্রেমবাগানের একটি বাসা থেকে রাকিব উদ্দিন ভূঁইয়া নামে টিঅ্যান্ডটি বোর্ডের এক সহকারী প্রকৌশলীর স্ত্রী ও দুই শিশুসন্তানের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ দিকে গত তিন দিন ধরে সহকারী প্রকৌশলী রাকিব উদ্দিন ভূঁইয়ার কোনো খোঁজ মিলছে না বলে জানা গেছে।

শুক্রবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে প্রেমবাগান রোডের কেসি স্কুলের পাশে ৮৩৮ নম্বর বাড়ির চতুর্থ তলা থেকে ওই তিন মরদেহ উদ্ধার করা হয়। নিহতেরা হলেন- মুন্নী বেগম (৩৮), তার ছেলে ফারহান উদ্দিন খান (১২) ও মেয়ে লাইভী ভূঁইয়া (৩)। রাকিব উদ্দিন সপরিবারে ওই বাসায় থাকতেন বলে জানিয়েছে নিহত মুন্নীর দুলাভাই মোসলেহ উদ্দিন। 

মোসলেহ উদ্দিন বলেন, গত তিন দিন ধরে মুন্নীর স্বামীর খোঁজখবর পাওয়া যাচ্ছিলো না। পরবর্তীতে মুন্নীদেরও ফোনে পাওয়া যাচ্ছিল না। তাই অন্যান্যদের কাছে ফোন করে জানতে পারি বাইরে থেকে মুন্নীর বাসায় তালা দেওয়া। ভেতর থেকে দুর্গন্ধ বের হচ্ছে।

ঘটনাটি হত্যাকাণ্ড কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমি খিলক্ষেত থাকি। তাদের সঙ্গে আমার তেমন যোগাযোগ ছিলো না। এ বিষয়ে আমি কিছুই বলতে পারছি না।

মারুফ নামে এক ব্যক্তি বলেন, রাকিব ভাই প্রায়ই সন্তানদের নিয়ে রাস্তায় হাঁটতেন। শুনেছি তিন থেকে চার মাস আগে তিনি অপহরণ হয়েছিলেন। এরপর থেকে তিনি কিছুটা মানসিক ভারসাম্যহীন হয়ে পড়েছেন জানা যায়।

নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক এক দোকানদার বলেন, রাকিব ভাই খুব ভালো মানুষ ছিলেন। প্রায়ই তাকে আসা-যাওয়া করতে দেখতাম। তাকে বেশ কয়েকদিন যাবত দেখিনি।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের উত্তরা জোনের ‍উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) নাবিদ কামাল শৈবাল বলেন, প্রেমবাগান রোড কেসি স্কুলের পেছনের একটি বাসায় শুক্রবার বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে মাসহ দুই সন্তানের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। ধারণা করা হচ্ছে, তাদের শ্বাসরোধে হত্যা করা হচ্ছে। নিহত মুন্নীর স্বামী টিঅ্যান্ডটি কর্মকর্তা। তিনি গুলশান টিঅ্যান্ডটি বোর্ডের সহকারী প্রকৌশলী বলে জানা গেছে। তাকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।

দক্ষিণখান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সিকদার মোহাম্মদ শামীম বলেন, তদন্ত চলছে। এ বিষয়ে এখন পর্যন্ত কিছু বলা যাচ্ছে না। ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহগুলো শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। বিস্তারিত শনিবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) জানানো যাবে।

** দুই শিশুকে শ্বাসরোধে হত্যা, ধারণা পুলিশের

বাংলাদেশ সময়: ০৩১২ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ১৫, ২০২০
এমএমআই/ওএইচ/

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2020-02-15 03:25:11