bangla news

মাদক নিরাময় কেন্দ্রে যুবককে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

সাভার করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০২০-০২-১৪ ৫:৩৬:২৬ পিএম
ছবি: প্রতীকী

ছবি: প্রতীকী

সাভার (ঢাকা): সাভারের একটি মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্রে জাহাঙ্গীর মিয়া (৩৮) নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে।

শুক্রবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে সাভারের এনাম মেডিক্যাল কলেজে ওই রোগীর মরদেহ ফেলে রেখে যায় মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্র কর্তৃপক্ষ। তবে পরিবারের দাবি তাকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে।

এর আগে, গত বৃহস্পতিবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে নিহতের ভাই সাভারের রেডিও কলোনীর উত্তরা মার্কেটের ‘আদর রিহ্যাব সেন্টারে’ চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয় জাহাঙ্গীর নামে ওই যুবককে।

মৃত জাহাঙ্গীর ময়মনসিংহের বাসিন্দা মৃত হাফিজ উদ্দিনের ছেলে। তিনি সাভারের তালবাগ এলাকায় ভাড়া বাসায় থেকে বড় ভাইয়ের সঙ্গে ওই এলাকায় হোটেল ব্যবসা করতেন।

মৃতের ভাই মানিক বাংলানিউজকে বলেন, মাথায় সামান্য সমস্যা থাকায় বৃহস্পতিবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে ওই রিহ্যাব সেন্টারে চিকিৎসার জন্য জাহাঙ্গীরকে ভর্তি করি। রাতে সেখানে ফোন করে সে কেমন আছে জানতে চাইলে রিহ্যাব সেন্টারের লোকজন জানায় জাহাঙ্গীর ভাল আছে। কিন্তু সকালে বার বার ফোন করেও কাউকে পাওয়া যায়নি। শুক্রবার দুপুর ১২টার দিকে ওই মাদকাসক্ত কেন্দ্রের এক ব্যক্তি জুয়েল নাম পরিচয় দিয়ে নিহতের ভাইকে দ্রুত এনাম মেডিক্যালে ডাকেন। পরে সেখানে গিয়ে দেখি জাহাঙ্গীরের মরদেহ পড়ে রয়েছে। তখন মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্রের কাউকে পাওয়া যায়নি।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, আমরা ভাইকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতে চিহ্ন রয়েছে।

আদর রিহ্যাব সেন্টারেন ম্যানেজার রুবেল বাংলানিউজকে বলেন, আমাদের এখানে বর্তমানে ১৫-২০ জন রোগী রয়েছে। হঠাৎ কিভাবে জাহাঙ্গীরের কি হলো আমি কিছু বলতে পারছি না। আমি শুনেছি তিনি অসুস্থ হওয়ার পর তাকে এনাম মেডিক্যালে নেওয়া হলে তার মৃত্যু হয়। এছাড়া আমি কিছুই জানি না।

সাভার মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মনিরুজ্জামান বাংলানিউজকে বলেন, একদিন আগেই জাহাঙ্গীরকে ওই নিরাময় কেন্দ্রে ভর্তি করা হয়। মৃত্যুর কারণ নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না। তবে জাহাঙ্গীরের গাঢ় ও চোখসহ শরীরের বিভিন্ন অংশে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। মৃত্যুর কারণ নিশ্চিত হতে ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্ত শেষে মৃত্যুর কারণ জানা যাবে। এ ব্যাপারে সাভার মডেল থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

বাংলাদেশ সময়: ১৭১৬ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ১৪, ২০২০
এনটি

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2020-02-14 17:36:26