ঢাকা, শুক্রবার, ১১ আষাঢ় ১৪২৮, ২৫ জুন ২০২১, ১৪ জিলকদ ১৪৪২

জাতীয়

বেকার ভাতাসহ ৬ দফা দাবিতে সমাবেশ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০০০৬ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ৮, ২০২০
বেকার ভাতাসহ ৬ দফা দাবিতে সমাবেশ

ঢাকা: বেকারদের কর্মসংস্থান, বেকার ভাতা দেওয়া, চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা ৩৫ করা, আবেদন ফি কমানোসহ ছয় দফা দাবিতে সমাবেশ ও আলোচনা সভা করেছে বেকার মুক্তি আন্দোলন।

শুক্রবার (০৭ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবে সামনে এ সমাবেশ ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

বক্তারা বলেন, ‘স্বাধীনতা সংগ্রাম থেকে আজ পর্যন্ত তরুণরাই দেশের মুক্তির জন্য কাজ করছে।

অথচ আজ যুব সমাজ সবচেয়ে বেশি নিগৃহীত। ’

ডাকসুর ভিপি নুরুল হক নুর বলেন, ‘সরকারি হিসাব অনুযায়ী দেশে চার কোটি ৮২ লাখ বেকার। শিক্ষিত বেকারের সংখ্যা এক কোটি। যুবকদের বেকারত্বের হার ১৭ বছরে ৬ দশমিক ৩২ শতাংশ থেকে ২৯ দশমিক ৮ শতাংশে পৌঁছেছে। ’

তিনি বলেন, ‘উন্নয়নের নামে গত ১০ বছরে পাচার হয়েছে ছয় লাখ কোটি টাকা। দেশে চাকরিরত পাঁচ লক্ষাধিক ভারতীয় প্রতিবছর ৩২ হাজার কোটি টাকা নিয়ে যাচ্ছে। এ হিসাবের বাইরেও হাজার হাজার কোটি টাকা পাচার হচ্ছে। অথচ সরকার দেশে বেকারদের কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য উদ্যোগ গ্রহণ করেনি। ’

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘দেশে বেকার সৃষ্টি করছে সরকার। বেকারদের কর্মসংস্থান সৃষ্টির ব্যাপারে কোনো আগ্রহ নেই। এ সরকার উন্নয়নের নামে হাজার হাজার কোটি টাকা অপচয় করছে। কিন্তু কোনো উন্নয়নই দৃশ্যমান হচ্ছে না। ’

তিনি বলেন, ‘দেশের শিক্ষিত বেকারদের যদি হেলথ কেয়ার বিষয়ক প্রশিক্ষণ দিয়ে বিদেশ পাঠানো হয়। তাহলে প্রতিজন মাসে যে আয় করবে তা একজন সাধারণ শ্রমিককের পাঁচ বছরের আয়ের সমান। তাই শিক্ষিত বেকারদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে। ’

বক্তারা বলেন, ‘এ অবস্থা থেকে মুক্তির লক্ষ্যে ছাত্র-যুব সমাজসহ সব শ্রেণি-পেশার মানুষকে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানান। ’

বেকার মুক্তি আন্দোলনের ছয় দফা দাবিগুলো হলো- নির্বাচনী ইশতেহার অনুযায়ী নতুন এক কোটি ৫০ লাখ কর্মসংস্থান সৃষ্টির ব্যাপারে কী পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে সরকারকে তা জাতির সামনে স্পষ্ট করতে হবে। দেশের চার কোটি ৮২ লাখ বেকারকে যোগ্যতা অনুযায়ী বেকার ভাতার আওতায় নিয়ে আসতে হবে। সরকারি চাকরিতে প্রবেশের সময়সীমা ৩৫ বছর করতে হবে। চাকরিতে আবেদন ফি সর্বোচ্চ ১০০ টাকা করতে হবে। বিভাগীয় এবং জেলা শহরে নিয়োগ পরীক্ষার কেন্দ্র করতে হবে। নিয়োগ বাণিজ্য, স্বজনপ্রীতি নিয়োগ ব্যবস্থা এবং ভেরিফিকেশনের নামে হয়রানি বন্ধ করতে হবে। তরুণ উদ্যোক্তাদের বিনা জামানতে ১০ লাখ টাকা প্রারম্ভিক ঋণ সুবিধা গ্রহণ করতে হবে।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন- সাবেক রাষ্ট্রদূত শাকিব আলী, মৌলিক বাংলা সমন্বয়ক ফরিদ আহমেদ, বেকার মুক্তি আন্দোলনের তরিকুল ইসলামসহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতারা।

বাংলাদেশ সময়: ১৯০৫ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ০৭, ২০২০
পিএস/আরবি/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa