ঢাকা, সোমবার, ১০ কার্তিক ১৪২৭, ২৬ অক্টোবর ২০২০, ০৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

জাতীয়

‘ইস্পাহানি মির্জাপুর বাংলাবিদ’র চতুর্থ বর্ষের সূচনা 

নিউজ ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০২৩৭ ঘণ্টা, জানুয়ারী ২২, ২০২০
 ‘ইস্পাহানি মির্জাপুর বাংলাবিদ’র চতুর্থ বর্ষের সূচনা 

ঢাকা: বাংলা ভাষাকে আরও বড় পরিসরে ছড়িয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি নিয়ে চতুর্থবারের মতো শুরু হলো দেশের সবচেয়ে বড় টিভি রিয়্যালিটি শো ‘ইস্পাহানি মির্জাপুর বাংলাবিদ’। ‘বাংলায় জাগো ভরপুর’ এ স্লোগান সামনে নতুন প্রজন্মের কাছে রেখে শুদ্ধ বাংলার চর্চা আরও ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে দেওয়ার প্রত্যয়েই প্রতিবছর এ প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। 

মঙ্গলবার (২১ জানুয়ারি) এক সংবাদ সম্মেলন ও অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ‘ইস্পাহানি মির্জাপুর বাংলাবিদ’র চতুর্থ বর্ষের নিবন্ধন শুরুর ঘোষণা দেওয়া হয়। নিবন্ধন চলবে আগামী ২১ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত।

 

এদিন সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ইস্পাহানির পরিচালক জাহিদা ইস্পাহানি, মির্জা আহমেদ ইস্পাহানি ও এমাদ ইস্পাহানি। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- এমিরেটাস অধ্যাপক ড. সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী।  

চ্যানেল আই-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক হাবীবুল্লাহ সিরাজী, ইস্পাহানি টি লিমিটেড’র মহাব্যবস্থাপক ওমর হান্নানসহ ইস্পাহানি ও চ্যানেল আইয়ের অন্যান্য কর্মকর্তারা।  

কর্তৃপক্ষ জানায়, এ বছরে আরও বড় পরিসরে এ প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হচ্ছে। এবারের আয়োজনে বেড়ে যাচ্ছে প্রতিটি পর্বের দৈর্ঘ্য। বড় হচ্ছে স্টুডিওর আয়তন। এছাড়া এবারের আয়োজন যুক্ত করা হচ্ছে আরও নতুন নতুন খেলা। সেই সঙ্গে আশা করা হচ্ছে প্রথমবারের মতো এবার নিবন্ধনের সংখ্যা হবে লক্ষাধিক।  

২০১৯ সালে এ আয়োজনে নিবন্ধনের সংখ্যা ছিল প্রায় ৮৫ হাজার। এর মধ্য দিয়ে নিবন্ধনের দিক ‘ইস্পাহানি মির্জাপুর বাংলাবিদ’ পরিণত হয় দেশের সবচেয়ে বড় টিভি রিয়্যালিটি শো-তে।

ইতোমধ্যেই দেশ ও দেশের বাইরে থাকা বাংলাভাষীদের মধ্যে ব্যাপক সমাদৃত হয়েছে ‘ইস্পাহানি মির্জাপুর বাংলাবিদ’। দেশের জনপ্রিয় টিভি স্টেশন ‘চ্যানেল আই’ ২০১৭ সাল থেকে এ রিয়্যালিটি শো প্রচার করে আসছে।  

এ প্রতিযোগিতায় শুদ্ধ বাংলা ভাষার ব্যবহার, বানানচর্চা, শুদ্ধ উচ্চারণ ও ব্যাকরণের সঠিক প্রয়োগের বিভিন্ন পর্যায় শেষে চূড়ান্ত বিজয়ী নির্ধারণ করা হয়। দেশসেরা বাংলাবিদ জিতে নেয় ১০ লাখ টাকার মেধাবৃত্তি।  

‘ইস্পাহানি মির্জাপুর বাংলাবিদ’ প্রথম বর্ষের প্রতিযোগিতায় সেরা বাংলাবিদের পুরস্কার জিতে নিয়েছিল রাজধানী ঢাকার ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থী নুসরাত সায়েম, দ্বিতীয় বর্ষের সেরা বাংলাবিদের পুরস্কার জিতে নেয় চট্টগ্রামের ডা. খাস্তগীর সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী দেবস্মিতা সাহা, তৃতীয় বর্ষে এ পুরস্কার জেতে বগুড়া ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল ও কলেজের শিক্ষার্থী পি কে এম শাজেদুর রহমান শাহেদ।

মেধা ও মননভিত্তিক ভিন্ন ভিন্ন বাছাই প্রক্রিয়া পার হয়ে যারা সত্যিকার ভাষালড়াকু হতে চায় তাদের এ প্রতিযোগিতায় নিবন্ধন করার জন্য আহ্বান জানানো হয়েছে।  

কর্তৃপক্ষ জানায়, এবারের প্রতিযোগিতায় শীর্ষ স্থান অধিকারী পাবে ১০ লক্ষ টাকার মেধাবৃত্তি। এছাড়া দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থান অধিকারী পাবে যথাক্রমে ৩ লাখ ২ লাখ টাকার মেধাবৃত্তি। এর বাইরেও প্রথম দশ প্রতিযোগী পাবে ১টি ল্যাপটপসহ ব্যক্তিগত লাইব্রেরির ৫০ হাজার টাকা সমমূল্যের বাংলা বই ও বইয়ের আলমারি।

প্রাথমিকভাবে এ বছর দেশের সব বিভাগের ৬ষ্ঠ থেকে ১০ম শ্রেণির ছাত্র-ছাত্রীদের অংশগ্রহণে এ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে। আটটি বিভাগীয় শহরের সঙ্গে কুমিল্লা শহরেও প্রাথমিক বাছাই পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। সেখান থেকে নির্বাচিত সেরা ছাত্রছাত্রীরা অংশ নেবে মূল পর্বে। বিভাগীয় সেরা প্রতিযোগীরা ‘ইস্পাহানি মির্জাপুর বাংলাবিদ’-এর স্টুডিও রাউন্ডে অংশ নিয়ে বাংলায় শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণের জন্যে লড়বে। এ অংশ পরবর্তীতে চ্যানেল আইয়ে প্রচার করা হবে। ২০ পর্বের আকর্ষণীয় প্রতিযোগিতার মাধ্যমে চূড়ান্ত বিজয়ীদের নির্বাচন করা হবে ।  

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ও ভাষা বিশেষজ্ঞদের সমন্বয়ে গঠিত বিচারকরা প্রতিযোগিতার পুরো প্রক্রিয়ার সঙ্গে সক্রিয়ভাবে জড়িত থাকবেন। বিচারক হিসেবে থাকবেন অধ্যাপক ড. সৌমিত্র শেখর ও মিডিয়া ব্যক্তিত্ব ত্রপা মজুমদার।  

বাংলাদেশ সময়: ২১৩৫ ঘণ্টা, জানুয়ারি ২১, ২০২০ 
এইচজে

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa