bangla news

শীতে কাঁপছে কুড়িগ্রামও, তাপমাত্রা ৯ ডিগ্রি

ফজলে ইলাহী স্বপন, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-১২-১৯ ৭:৪৯:০৮ পিএম
শীতে কাহিল এক বৃদ্ধ, ছবি: বাংলানিউজ

শীতে কাহিল এক বৃদ্ধ, ছবি: বাংলানিউজ

কুড়িগ্রাম: ঘন কুয়াশার সঙ্গে হিমেল হাওয়ায় তাপমাত্রা হ্রাস পেয়ে মৃদু শৈত্যপ্রবাহে কাঁপছে হিমালয় পাদদেশীয় জেলা কুড়িগ্রামও। এতে চরম ভোগান্তিতে পড়েছে মানুষজন।

বৃহস্পতিবার (১৯ ডিসেম্বর) কুড়িগ্রামের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৯ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করে রাজারহাট কৃষি আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগার।

হঠাৎ করে শীতের তীব্রতা বেড়ে যাওয়ায় শ্রমজীবী ছিন্নমূল মানুষ ও শিশু খুব কষ্ট পাচ্ছে। আয় রোজগার কমে গেছে নিম্ন মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্ত পরিবারের। চলাফেরা কমিয়ে দিয়েছেন বৃদ্ধরা।

এ পরিস্থিতে জেলার শীতার্ত মানুষের জন্য শীতবস্ত্র বিতরণ জরুরি হয়ে পড়েছে। এলাকার জনপ্রতিনিধিরাও এ কথাই বলছেন।

সরেজমিনে কুড়িগ্রামের সীমান্তবতী ভূরুঙ্গামারী উপজেলার প্রত্যন্ত ধলডাঙ্গার চরাঞ্চলে দেখা যায়, কালজানি নদীর অববাহিকার চরাঞ্চলে ঘন কুয়াশাসহ শীতের তীব্রতায় বিপর্যস্ত জনজীবন। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বাড়ি থেকে বের হচ্ছে না কেউ। তারপরও থেমে নেই শ্রমজীবী মানুষের কর্ম। তীব্র শীত উপেক্ষা করে গরু আনা-নেওয়াসহ জীবিকা নির্বাহের জন্য ক্ষেতে, খামারে, মাঠে, ঘাটে তারা।

ধলডাঙ্গার কালজানি নদীর ঘাটে থাকা কৃষক আব্দুল গফুর বাংলানিউজকে বলেন, ঠাণ্ডায় কাহিল অবস্থা। বাড়ি থেকে বের হওয়া যায় না। কিন্তু পেটে তো মানে না। তাই কাজে বের হয়েছি।

কালজানি ঘাটের নৌকার মাঝি মাজম মিয়া বাংলানিউজকে বলেন, ঠাণ্ডার ঠেলায় তো নৌকা চালানো যায় না। হাত পা চলে না। কিন্তু মানুষের কাজে-কামে যাইতে হয়। তাই উপায় নেই। নৌকা চালাতেই হয়। নৌকা না চালালে খাব কী।

শিলখুড়ি ইউনিয়নের সদস্য আব্দুর রহমান বাংলানিউজকে বলেন, শীতবস্ত্রের অভাবে নদী অববাহিকা ও চরাঞ্চলের মানুষ কষ্টে আছে। শীতার্ত মানুষ কম্বল ও শীতবস্ত্রের জন্য আমার কাছে আসছে। সরকারি বরাদ্দ কম থাকায় তাদের খালি হাতেই ফেরাতে হচ্ছে।

কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসনের ত্রাণ শাখার তথ্য অনুযায়ী, জেলাটিতে এ পর্যন্ত ৫১ হাজার ৫১৪ পিস কম্বল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। যা ৯ উপজেলায় বণ্টনও করা হয়েছে।

রাজারহাট আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুবল চন্দ্র সরকার বাংলানিউজকে বলেন, বর্তমানে জেলায় মৃদু শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। ক্রমাগত কমছে তাপমাত্রা। দুই একদিনের মধ্যে তাপমাত্রা হ্রাস পেয়ে শীত আরও বাড়তে পারে। এছাড়া শনিবার (২১ ডিসেম্বর) পর্যন্ত এই শৈত্যপ্রবাহ থাকবে।

বাংলাদেশ সময়: ১৯৪৮ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ১৯, ২০১৯
এফইএস/টিএ

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   কুড়িগ্রাম শীত
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
db 2019-12-19 19:49:08