ঢাকা, শুক্রবার, ১০ আশ্বিন ১৪২৭, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৬ সফর ১৪৪২

জাতীয়

‘শ্যূটিং প্রতিযোগিতার প্রসার দীর্ঘদিনেও করতে পারিনি’

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১০৫২ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৬, ২০১৯
‘শ্যূটিং প্রতিযোগিতার প্রসার দীর্ঘদিনেও করতে পারিনি’ বক্তব্য রাখছেন অ্যাডিশনাল ইন্সপেক্টর জেনারেল (স্পেশাল ব্রাঞ্চ) মীর শহিদুল ইসলাম।

ঢাকা: ‘শ্যূটিং প্রতিযোগিতার প্রসার আমরা দীর্ঘদিন ধরেও করতে পারিনি। অনুশীলনের সুযোগের অভাবে এ প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশ পুলিশের সব ইউনিট এগোতে পারছে না বলে মন্তব্য করেছেন অ্যাডিশনাল ইন্সপেক্টর জেনারেল (স্পেশাল ব্রাঞ্চ) মীর শহিদুল ইসলাম।

বৃহস্পতিবার (৫ ডিসেম্বর) বিকেলে বাংলাদেশ শ্যূটিং স্পোর্টস ফেডারেশনে বাংলাদেশ পুলিশ বার্ষিক শ্যূটিং এবং আইজি কাপ-২০১৯ এর চূড়ান্ত প্রতিযোগিতার সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন।

মীর শহিদুল ইসলাম বলেন, খেলাটি যারা পরিচালনা করেছেন তারা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন।

এ খেলাটি অনেক ব্যয়বহুল। খেলাটি অনুশীলনের সুযোগ সব জায়গায় হয় না। অনুশীলন করার জন্য বাংলাদেশ পুলিশের খেলোয়াড়দের আমরা সুযোগ দিতে পারি না। এক্ষেত্রে র‌্যাব একটু এগিয়ে থাকে। র‌্যাবের অনুশীলনের সুযোগ তুলনামূলক একটু বেশি। আমাদের শুটার আছেন, যারা ভালো করেন তারা কোনো না কোনো সময় স্পেশাল সিকিউরিটি ফোর্সে (এসএসএফ) কর্মরত ছিলেন। ঠিকমতো অনুশীলন না করতে পারার কারণে বাংলাদেশ পুলিশের সব ইউনিট এ প্রতিযোগিতায় এগিয়ে আসতে পারে না। প্রতিযোগিতার প্রসার আমরা দীর্ঘদিনেও করতে পারিনি। তাছাড়া আমাদের নিজস্ব কোনো শ্যূটিং ক্লাবও নেই। যে অস্ত্র দিয়ে অনুশীলন করব সেটির ঘাটতি আছে আমাদে। নানা জটিলতার কারণে আমাদের অস্ত্র কেনা সম্ভব হয়নি। অস্ত্র কেনা থাকলে আমাদের অনুশীলন করতে সুবিধা হত।

তিনি বলেন, আমার জানামতে প্রথমবারের মতো আইজি কাপে প্রথম হয়েছে সারদা পুলিশ (রাজশাহী) একাডেমি। আমি চারবছর এই অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করছি। বিগত বছরে তিনবার র‌্যাব চ্যাম্পিয়ন ট্রফি নিয়ে যায়। মধ্যে একবার এসবি চ্যাম্পিয়ন ট্রফি নিয়েছিল। আমি ধরেই নিয়েছিলাম এবারও চ্যাম্পিয়ন ট্রফি নেবে র‌্যাব। আমার মনে হচ্ছিল এবার সারদা একাডেমি দ্বিতীয় হবে। এসবি রানার্সআপ হতে পারবে না। কিন্তু সবকিছু মিলিয়ে দেখা যাচ্ছে যে আব্দুল কুদ্দুসের নেতৃত্বে সারদা একাডেমি চ্যাম্পিয়ন হয়েছে।

আইজি কাপ ২০১৯ এর দলগত ইভেন্টে চ্যাম্পিয়ন হয় বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমি সারদা রাজশাহী দল ও রানারআপ হয় এসবি ঢাকা দল।

স্পেশাল ব্রাঞ্চ পুলিশ, বাংলাদেশ পুলিশ শ্যূটিং ক্লাব সাধারণ সম্পাদক সরদার তমিজউদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন ডিএমপি পুলিশ কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম প্রমুখ।

বাংলাদেশ সময়: ০৫৪০ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ০৬, ২০১৯
এমএমআই/এএটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa