ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৯ আশ্বিন ১৪২৭, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৫ সফর ১৪৪২

জাতীয়

বগুড়ায় ধানের বাম্পার ফলন, দুশ্চিন্তা ন্যায্যমূল্যে

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৯৩০ ঘণ্টা, নভেম্বর ১৮, ২০১৯
বগুড়ায় ধানের বাম্পার ফলন, দুশ্চিন্তা ন্যায্যমূল্যে ধানে ক্ষেতে ব্যস্ত কৃষকরা। ছবি: বাংলানিউজ

বগুড়া: বগুড়ায় মাঠে-মাঠে শোভা পাচ্ছে সোনালি ধান। গ্রামগুলোতে শুরু হয়েছে ধানকাটা ও মাড়াইয়ের কাজ। শীত পুরোপুরি জেঁকে বসার আগেই ঘরে ফসল তুলতে ব্যস্ত কৃষকরা। 

ধানের মনকাড়া গন্ধে ম-ম করছে চারদিক। বাম্পার ফলনে খুশি চাষিরাও।

গাছগুলো ধানের ভারে প্রায় নুয়ে পড়েছে মাটিতে। প্রতিটি ধানের ক্ষেতেই মোটামুটি ভালো ফলন হয়েছে বলে জানিয়েছেন চাষিরা। ধানকাটার পাশাপাশি মাড়াইয়ের কাজও সেরে ফেলছেন দ্রুত।

কৃষক জালাল উদ্দিন শেখ বাংলানিউজকে জানান, তিনি প্রায় ১৩ বিঘা জমিতে কাটারিভোগ জাতের ধান চাষ করেছেন। এ মৌসুমে রোগবালাই কম হওয়ায় গাছগুলো যথেষ্ট ফসল দিয়েছে। পোকার আক্রমণ ও রোগবালাই রোধে প্রথম থেকেই কীটনাশক ব্যবহার করতে হয়েছে। আশানুরূপ ফসল পাওয়ায় বেশ খুশি তিনি।  

জমসেদ, ইদ্রিস আলী, মজিবর, হায়দার আলীসহ একাধিক কৃষক জানান, চলতি মৌসুমে ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। বিগত বছরের চেয়ে রোগ-বালাইয়ের আক্রমণ ছিল অনেক কম। আবহাওয়াও ছিল কৃষকের অনুকূলে। যথেষ্ট পানি ও রোদ পেয়েছে গাছগুলো।  

ধানকাটায় ব্যস্ত চাষীরা।  ছবি: বাংলানিউজ

তবে, ঘরে নতুন ফসল তোলার আনন্দ ছাপিয়ে উদ্বেগও দেখা যাচ্ছে কৃষকদের মধ্যে। গত মৌসুমের মতো এবারও ধানের ন্যায্যমূল্য পাওয়া নিয়ে চিন্তিত তারা। বিগত কয়েক বছর থেকেই বাজারমূল্য ভালো যাচ্ছে না বলে জানিয়েছেন চাষিরা।

তারা জানান, বর্তমানে প্রতিমণ শুকনো বিনা-৭ ব্রি ধান-৪৯, ৫৭, ৬২ ও ৩৪ বাজারদর অনুযায়ী ৬০০ থেকে ৬৫০ টাকায় এবং নতুন কাটা ধান প্রতিমণ ৪৫০ থেকে ৫০০ টাকা দরে বেচাকেনা হচ্ছে, যা বিগত বছরের তুলনায় খুব একটা বেশি নয়।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালকের কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, চলতি মৌসুমে জেলায় প্রায় ১ লাখ ৮২ হাজার ২৫৫ হেক্টর জমিতে রোপা-আমন চাষ হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে উফশী ১ লাখ ৭৯ হাজার হেক্টর, স্থানীয় ৩ হাজার ২৫৫ হেক্টর জমিতে। গত মাসে দু’দিনের বৃষ্টিতে ক্ষতি হয়েছে প্রায় ৩০০ হেক্টর জমির ফসল। তবে, বাম্পার ফলনে তা পুষিয়ে নেওয়া গেছে।  

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত উপ-সহকারী আব্দুর রহিম বাংলানিউজকে জানান, চলতি মাসের শুরু থেকেই জেলার বিভিন্ন এলাকায় আগাম জাতের ধানকাটা ও মাড়াই শুরু হয়েছে। এখন পুরোদমে চলতি মৌসুমের ধানকাটা চলছে।

তিনি বলেন, গড়ে প্রতিবিঘা জমি থেকে ১৮ থেকে ২০ মণ ধান পাওয়া যাচ্ছে। সব মিলিয়ে এবার ধান চাষিরা লাভবান হবেন বলে আশাবাদী তিনি।

বাংলাদেশ সময়: ১৪৩০ ঘণ্টা, নভেম্বর ১৮, ২০১৯
কেইউএ/কেএসডি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa