ঢাকা, সোমবার, ৬ আশ্বিন ১৪২৭, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০২ সফর ১৪৪২

জাতীয়

ঝাড়ফুঁক চিকিৎসায় কিশোরীর হাতে পচন!

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১২৪১ ঘণ্টা, অক্টোবর ১২, ২০১৯
ঝাড়ফুঁক চিকিৎসায় কিশোরীর হাতে পচন! কিশোরী ইভা আক্তরের পচন হাত। ছবি: বাংলানিউজ

নেত্রকোনা: ঝাড়ফুঁক বিশ্বাস করে কবিরাজ মিজান আহমেদের কাছে খোস-পাঁচড়া সাড়াতে গিয়ে নেত্রকোনার কলমাকান্দা উপজেলায় ইভা আক্তার (১৫) নামে এক কিশোরীর বাম হাতে পচন ধরেছে!

শুক্রবার (১১ অক্টোবর) দিনগত রাতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কিশোরী চিকিৎসাধীন।

এদিন বিকেলে তাকে ওই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

ভণ্ড কবিরাজের অপচিকিৎসার শিকার ইভা কালিহালা গ্রামের দিনমজুর সায়েদ আলীর মেয়ে। অভিযুক্ত মিজান কবিরাজ একই উপজেলার পুলিয়াপাড়া গ্রামের বাসিন্দা।

ইভার পরিবারের সদস্যরা বাংলানিউজকে জানান, চলতি বছরের আগস্ট মাসের শেষ দিকে ইভার বাম হাতে খোস-পাঁচড়া হয়। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিতে গেলে অনেক টাকার ওষুধ কিনতে হবে। অভাবের তাড়নায় এসব ভেবে ইভাকে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে না নিয়ে দেখানো হয় স্থানীয় কবিরাজ মিজান আহমেদের কাছে।

এ সুযোগে মিজান পুরো একমাস চিকিৎসার নামে খোস-পাঁচড়ার হাতে ঝাড়ফুঁক আর চুল বেঁধে কিশোরীর ওপর তার ভন্ডামি ফলান। এতে ইভার খোস-পাঁচড়া ভালো হওয়া দূরে থাক বরং হাতে পচন ধরে তাতে পোকা হয়ে যায়। বর্তমান পরিস্থিতিতে চিকিৎসকের মতে হাতটি টিকানো যায় কিনা সন্দেহের সৃষ্টি হয়েছে। তাকে দ্রুত সময়ের মধ্যে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ (মমেক) হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসক। কিন্তু আর্থিক অনটনের জন্য মমেকে নেওয়া সম্ভব হচ্ছে না বলেও জানান পরিবারের সদস্যরা।

এদিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিক্যাল কর্মকর্তা আল-মামুন বাংলানিউজকে জানান, অপচিকিৎসার কারণে ইভা আজকের এই ভয়াবহ পরিণতির শিকার। বর্তমান সময়ে এসব ঝাড়ফুঁক বিশ্বাস করার কোনো সুযোগ নেই। তবে অভিযুক্ত কবিরাজ মিজানের সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও কথা বলা সম্ভব হয়নি।

এর আগে নেত্রকোনার খালিয়াজুরী উপজেলায় ভুয়া চিকিৎসক মানিক তালুকদার তার অপচিকিৎসায় গ্রামের সহজসরল ভিক্ষুক নারী শেফালি আক্তারের স্তন কেটে ফেলেন।

পরে সেই স্তনে প্রথমে পচন ও পরে পোকা ধরে যায়। প্রায় মৃত্যু শয্যায় চলে যাওয়ার পর্যায়ে গণমাধ্যমের সংবাদে বিষয়টি জানতে পেরে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে শেফালিকে মমেকে পাঠানো হয়।

০৭ এপ্রিল (রোববার) দুপুরে নারীর স্তন কাটার এ ঘটনায় মঙ্গলবার (১০ সেপ্টেম্বর) বিকেলে খালিয়াজুরী থানায় একটি মামলা হয়। এছাড়াও চলতি মাসের বুধবার (০৯ অক্টোবর) সন্ধ্যায় মোহনগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রিতম সরকার (সাড়ে ৪) নামে এক শিশুর ভাঙা পা প্লাস্টারের পরিবর্তে ভালো পা প্লাস্টার করেন ওয়ার্ডবয় জামাল। পরে অবস্থার অবনতি হলে পরদিন সকালে শিশুকে ফের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসা হয়। প্রিতম চাকুয়া ইউনিয়নের পাথরা গ্রামের পরিতোষ সরকারের ছেলে।

বাংলাদেশ সময়: ০৮৪১ ঘণ্টা, অক্টোবর ১২, ২০১৯
এএটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa