ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১ কার্তিক ১৪২৬, ১৭ অক্টোবর ২০১৯
bangla news

নেত্রকোনার বাজারে সবজির হাহাকার!

সৌমিন খেলন, ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৯-১৮ ৭:৩৫:১৬ এএম
ফাঁকা ঝুড়ি নিয়ে বসে আছেন ব্যবসায়ীরা। ছবি: বাংলানিউজ

ফাঁকা ঝুড়ি নিয়ে বসে আছেন ব্যবসায়ীরা। ছবি: বাংলানিউজ

নেত্রকোনা: চাহিদা রয়েছে তবে আমদানি নেই সবজির। তাই বাজারে এসে হতাশা নিয়েই ফিরছেন ক্রেতারা। চাহিদামতো কেনাবেচা না থাকায় ব্যবসায়ীদের কপালেও চিন্তার ভাঁজ!

নেত্রকোনায় গত কয়েকদিন ধরে কাঁচাবাজারগুলোতে সবজি তথা তরিতরকারির জন্য চলছে হাহাকার। ব্যবসায়ীদের মতে, বৃষ্টির কারণে আমদানি না থাকায় এই মন্দা শুরু হয়েছে। তবে আমদানি শুরু হয়ে গেলে পরিস্থিতি কেটে যাবে আর স্বাভাবিক রূপ ফিরে পাবে সবজি বাজার। ক্রেতা-বিক্রেতা সবার মাঝেই ফিরবে স্বস্তি, এমনটাই প্রত্যাশা সবার।

মঙ্গলবার (১৭ সেপ্টেম্বর) পৌর শহরের মোক্তারপাড়া এলাকার বাসিন্দা আইনজীবী সহকারী সুশান্ত সাহা বাংলানিউজকে জানান, গত কয়েকদিন ধরে বাজারে তেমন সবজি নেই। দোকানদাররা ফাঁকা ঝুড়ি  নিয়ে বসে সময় পার করছেন। হঠাৎ দু-একটি সবজি মিললেও আগুন ঝড়া দাম। তাও তাতে মান যে আছে তেমনটিও বলা যাবে না। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই সবজিগুলো নষ্ট বা পচা।

সুশান্ত সাহার মতো একই সুরে কথা বলেন শহরের কাটলি এলাকার বাসিন্দা রাজনৈতিক দলের কর্মী সাইফুল ও বেসরকারি ব্যাংক কর্মকর্তা কুরপাড় এলাকার আনিছুর রহমান।

এদিকে পৌর শহরের মেঁছুয়া বাজারের সবজি বিক্রেতা সুজন পাল ও সুমন ইসলাম বাংলানিউজকে জানান, সবজি না থাকায় ব্যবসায় ধস নেমেছে। বলতে গেলে এখন তারা একরকম বেকার। দোকানে আসা হচ্ছে কিন্তু মালামাল না থাকায় বেচাকেনা নেই। বসেই অলস সময় কাটছে। তবে দু-এক দিনের মধ্যে যদি বৃষ্টি কিছুটা কমে, তাহলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে পারে।

বাজার ঘুরে একাধিক সবজি বিক্রেতার সঙ্গে কথা হলে তারা বাংলানিউজকে জানান, বর্তমান সবজির মন্দা পরিস্থিতির দু’দিন আগেও টমেটো ১৯০ টাকা, শিম ১২০ টাকা, ঝিঙ্গা, করলা ও ঢেঁড়স ৫০ টাকা, কাকরোল, কপি, মুলা, বেগুন (লম্বা-গোল) ও মরিচ ৪০ টাকা, পটল ৩৫ টাকা, আলু (দেশি/জাম/ হল্যান্ড) ও ধুন্দল ৩০ টাকা ও পেঁপে ২০ টাকা কেজি বিক্রি করা হয়েছে।

বাংলাদেশ সময়: ০৭৩৪ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০১৯
এইচএমএস/এসএ

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   নেত্রকোণা
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-09-18 07:35:16