ঢাকা, বুধবার, ৩০ আশ্বিন ১৪২৬, ১৬ অক্টোবর ২০১৯
bangla news

রোহিঙ্গাদের উস্কানিদাতা এনজিওর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা: মোমেন

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৮-৩১ ১২:১৮:৫৯ এএম
বক্তব্য রাখছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. আব্দুল মোমেন। ছবি- বাংলানিউজ 

বক্তব্য রাখছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. আব্দুল মোমেন। ছবি- বাংলানিউজ 

সিলেট: শর্তের বাইরে গিয়ে যেসব বেসরকারি সংস্থা (এনজিও) সহযোগিতার নামে নানাভাবে রোহিঙ্গাদের উস্কানি দিচ্ছে, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন।

শুক্রবার (৩০ আগস্ট) সন্ধ্যায় বঙ্গবন্ধুর শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে সিলেট মহানগরীর একটি কমিউনিটি সেন্টারে আয়োজিত নারী সমাবেশ ও দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত হয়ে এসব কথা বলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

জাতীয় পরিচয়পত্র না থাকা সত্ত্বেও রোহিঙ্গাদের হাতে কীভাবে মোবাইল ফোন চলে গেল, এ ব্যাপারে জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, বিভিন্ন এনজিও রোহিঙ্গাদের এগুলো সরবরাহ করে বলে জেনেছি। তারা রোহিঙ্গাদের বড় বড় বিলবোর্ড, দা-কুড়াল ইত্যাদি বানিয়ে দিচ্ছে। এসব কারণে এনজিওগুলোর বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

‘রোহিঙ্গাদেরকে আমাদের দেশে থাকতে হলে আমাদের নিয়ম মেনে চলতে হবে। আমরা তাদের নিয়ন্ত্রণে রাখবো। ব্যতিক্রম হলে শাস্তি পাবে।’

বারবার রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন ব্যর্থ হওয়া নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মিয়ানমারকে দায়ী করে আব্দুল মোমেন বলেন, আমরা আমাদের দায়িত্ব সুচারুভাবে পালন করেছি। কিন্তু মিয়ানমার রোহিঙ্গাদের কাছে বিশ্বাস অর্জন করতে পারেনি।

‘এ ইস্যুতে সর্বশেষ গত বৃহস্পতিবার (২৯ আগস্ট) বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূতদের ডেকে সর্বশেষ পরিস্থিতি জানানো হয়েছে। কিন্তু মিয়ানমার সেখানে উপস্থিত হয়নি। এর আগে গত ২২ তারিখে প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া বন্ধের আগেই তারা একটি প্রেসনোট দিয়ে উল্টো এ ব্যাপারে আমাদের দোষারোপ করেছে। এটা অত্যন্ত দুঃখজনক।’

‘তারা একটি বাজে প্রেসরিলিজ দিয়েছিল। তাই সবগুলো দেশকে আমরা বলেছি, মিয়ানমার সম্পূর্ণ মিথ্যা, বানোয়াট তথ্য দিয়েছে। আর রোহিঙ্গাদের সমস্যা শুধু আমাদের একার সমস্যা নয়, এটি বিশ্ববাসীর সমস্যা। তাই সবার এ বিষয়ে ভূমিকা রাখা উচিত।’

মিয়ানমারের সমালোচনা করে ড. মোমেন আরও বলেন,  পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করতে মিয়ানমার কাউকে সেখানে ঢুকতে দিচ্ছে না। এমনকি জাতিসংঘের বিভিন্ন সংস্থাগুলোকেও সেখানে যেতে দিচ্ছে না। রোহিঙ্গাদের সেখানে নিয়ে পরিস্থিতি দেখাতে বলছি। পর্যবেক্ষণের ব্যবস্থা করলে মিয়ানমারের গ্রহণযোগ্যতা বাড়বে বলে আমরা জানিয়েছি।

মিসেস সেলিনা মোমেনের সভাপতিত্বে ও কাউন্সিলর আজাদুর রহমান আজাদের পরিচালনায় সমাবেশে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- সাবেক সংসদ সদস্য সৈয়দা জেবুন্নেছা হক, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সালমা বাসিত, সাধারণ সম্পাদক নাজনীন হোসেন, মহানগর সাধারণ সম্পাদক আসমা কামরান, মারিয়াম চৌধুরী মাম্মী প্রমুখ।

সিটি কাউন্সিলর তারেক উদ্দিন তাজ, তওফিক বখত লিপন, সামসুননেহার মিনু, মহানগর যুবলীগের সভাপতি আলম খান মুক্তি, খাদিমপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আফসর আহমদ প্রমুখ সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশ সময়: ০০১৭ ঘণ্টা, আগস্ট ৩০, ২০১৯
এনইউ/এইচজে

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
db 2019-08-31 00:18:59