ঢাকা, শুক্রবার, ৫ আশ্বিন ১৪২৬, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯
bangla news

বাগেরহাটে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত, ঘের ও ফসলের ক্ষতি

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৮-১৭ ৩:৫৯:৫৮ পিএম
নিম্নাঞ্চল প্লাবিত। ছবি: বাংলানিউজ

নিম্নাঞ্চল প্লাবিত। ছবি: বাংলানিউজ

বাগেরহাট: বছরের সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাতে বাগেরহাটের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। এতে ২৫০ মৎস্য ঘের ও বেশকিছু ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

শুক্রবার (১৬ আগস্ট) রাত থেকে শনিবার (১৭ আগস্ট) সকাল ৯টা পর্যন্ত একটানা ছয় ঘণ্টার বিরামহীন বর্ষণে উপকূলীয় জেলা বাগেরহাটে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

জানা যায়, জেলায় গড় ৫৫ মিলিমিটার বৃষ্টিপাতের ফলে তিনটি পৌরসভা ও নয়টি উপজেলার নিম্নাঞ্চল জলমগ্ন হয়ে পড়েছে। বাগেরহাট পৌরসভার খারদ্বার, বাসাবাটি, হাড়িখালী, নাগের বাজারসহ বেশ কয়েকটি এলাকা জলমগ্ন হয়ে পড়েছে। এছাড়া পৌরসভার সামনের সড়ক, শালতলা মোড়, মিঠাপুকুর পাড়ের সড়ক পানিতে নিমজ্জিত হয়ে পড়েছ। শুধু বাগেরহাট পৌরসভা নয় মোরেলগঞ্জ ও মোংলা পৌরসভায়ও একই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। সঙ্গে সঙ্গে বাগেরহাট সদর, মোংলা, রামপাল, শরণখোলা, মোরেলগঞ্জ ও কচুয়া উপজেলার বেশকিছু রাস্তাঘাট, মৎস্য ঘের ও সবজির ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। দুপুরে জোয়ারের পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় চাষিরা আরও চিন্তিত হয়ে পড়ছে।

মৎস্য বিভাগ সূত্রে জানা যায়, জেলার প্রায় ২৫০ মৎস্য ঘের তলিয়ে গেছে। তবে বৃষ্টি অব্যাহত থাকলে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ বৃদ্ধি পেতে পারে।

বাগেরহাট সদর উপজেলার কাড়াপাড়া ইউনিয়নের বাসিন্দা মুশফিকুল ইসলাম বাংলানিউজকে বলেন, বৃষ্টিতে রাস্তায় হাঁটু পানির কারণে আমাদের এলাকার জনসাধারণের চলাচলে খুব সমস্যা হচ্ছে। বাড়ি-ঘরে পানি উঠে গেছে। এক প্রকার পানিবন্দি হয়ে পড়েছি।

কাড়াপাড়া এলাকার ঘের ব্যবসায়ী আবুল হোসেন বাংলানিউজকে বলেন, বৃষ্টির পানিতে আমার ঘেরসহ আশপাশের বেশ কয়েকটি ঘের ভেসে গেছে। এতে আমার প্রায় দুই লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে।

সবজি চাষি রুহুল মল্লিক বাংলানিউজকে বলেন, টানা বর্ষণে বেগুন, পুঁইশাকসহ বেশ কিছু সবজির গোড়া পচে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে। তবে এখনই বৃষ্টি থেমে গেলে ক্ষতি কিছুটা পোষানো যাবে।

বাগেরহাট পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবুল হাশেম শিপন বাংলানিউজকে বলেন, ঘুম থেকে উঠেই ড্রেনের পানি নিষ্কাশনের জন্য নিজেই কাজ শুরু করি। পৌরসভার পক্ষ থেকেও অনেক কর্মী এ কাজে নিয়োজিত ছিল। আশা করি বৃষ্টি কমলে দ্রুত পানির ভোগান্তি থেকে মুক্ত পাবে মানুষ।

বাগেরহাট পৌরসভার প্যানেল মেয়র তালুকদার আব্দুল বাকী বাংলানিউজকে বলেন, পৌরসভার জলাবদ্ধতা নিরসনে একটি প্রকল্প বাস্তবায়নের অপেক্ষায় রয়েছে। প্রকল্পের কাজ শুরুর জন্য জরিপ শুরু করা হয়েছে। আশা করছি এই প্রকল্পের কাজ শেষ হলে আগামীতে পৌরবাসী জলাবদ্ধতা থেকে মুক্তি পাবে।

বাগেরহাট সদর সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা এএসএম রাসেল বাংলানিউজকে বলেন, দুই থেকে ২৫০ ঘের বৃষ্টির পানিতে তলিয়ে গেছে। এ বৃষ্টি যদি অব্যাহত থাকে তাহলে সহস্রাধিক মৎস্য ঘের তলিয়ে ব্যাপক ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে।

বাগেরহাট কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ আফতাব উদ্দিন আহমেদ বাংলানিউজকে বলেন, বাগেরহাটে বছরের সর্বোচ্চ ৫৫ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। এরফলে কিছু পানের বরজ ও সবজি ক্ষেতের ক্ষতি হয়েছে। তবে দ্রুত পানি নেমে গেলে ক্ষয়ক্ষতি কমে যাবে।

বাংলাদেশ সময়: ১৫৫০ ঘণ্টা, আগস্ট ১৭, ২০১৯
এনটি

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   বাগেরহাট
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-08-17 15:59:58