ঢাকা, বুধবার, ২ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৭ জুলাই ২০১৯
bangla news

বরখাস্তের পরও হাজিরা খাতায় সই দিচ্ছেন অভিযুক্ত শিক্ষক

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৬-২১ ৬:০৪:০৩ পিএম
অভিযুক্ত শিক্ষক আবুল কালাম। ছবি: বাংলানিউজ

অভিযুক্ত শিক্ষক আবুল কালাম। ছবি: বাংলানিউজ

নাটোর: নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলার গফুরাবাদ উচ্চ বিদ্যালয়ের এক ছাত্রীকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগে গ্রেফতার শিক্ষক আবুল কালাম জামিনে মুক্তি পেয়ে সাময়িক বরখাস্তে থাকার পরও স্কুলের নিয়মিত হাজিরা খাতায় সই করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগপত্র এবং সাময়িক বরখাস্তের আদেশ প্রত্যাহার করা না হলেও অদৃশ্য কারণে স্কুলের হাজিরা খাতায় সই করেই যাচ্ছেন তিনি।

স্থানীয়দের অভিযোগ, অভিযুক্ত শিক্ষকের ভাই ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষক হওয়ায় তার যোগসাজসে আবুল কালাম হাজিরা খাতায় অবৈধভাবে সই করছেন।

অভিভাবকদের দাবি, শিক্ষক আবুল কালাম একজন অভিযুক্ত শিক্ষক এবং তার বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা বিচারাধীন রয়েছে। এছাড়া স্কুল কর্তৃপক্ষও বরখাস্তের আদেশ প্রত্যাহার করেননি। এ অবস্থায় অভিযুক্ত শিক্ষক আবুল কালাম কিভাবে স্কুলের হাজিরা খাতায় সই করেন। বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান তারা।

প্রধান শিক্ষক আবু সায়েম বাংলানিউজকে বলেন, আইনি জটিলতা সম্পর্কে ধারণা না থাকায় দু’দিন তার সই নেওয়া হয়। পরে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের সঙ্গে যোগাযোগ করার পর তার সই আর নেওয়া হচ্ছে না। সেই শিক্ষকের করা সই ফ্লুইড দিয়ে মুছে দেওয়া হয়েছে। 

এ বিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আহাদ আলী বাংলানিউজকে বলেন, আইনি জটিলতা সম্পর্কে স্কুল কমিটির সভাপতিকে জানানোর পর ওই শিক্ষককে হাজিরা খাতায় সই করতে দেওয়া হচ্ছে না।

বাগাতিপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) প্রিয়াংকা দেবী পাল বাংলানিউজকে বলেন, সদ্য যোগদান করায় বিষয়টি আমার নজরে নেই। তবে বিষয়টি খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

প্রসঙ্গত, গত ২০ এপ্রিল ষষ্ঠ শ্রেণির এক ছাত্রীকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ এনে ওই ছাত্রীর বাবার দায়ের করা মামলায় শিক্ষক আবুল কালামকে পুলিশ গ্রেফতার করে পুরিশ। পরে ম্যানেজিং কমিটি তাকে সাময়িক বরখাস্ত করে।

বাংলাদেশ সময়: ১৭৫২ ঘণ্টা, জুন ২১, ২০১৯
এনটি

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   যৌন হয়রানি নাটোর
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-06-21 18:04:03