bangla news

বেনাপোলে হুন্ডির টাকাসহ আটক ১, প্রত্যাহার ৩ কনস্টেবল

উপজেলা করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৬-১৮ ৬:৩৬:৩৮ এএম
বেনাপোল কাস্টমস ইমিগ্রেশন ফটক

বেনাপোল কাস্টমস ইমিগ্রেশন ফটক

বেনাপোল (যশোর): কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া অবৈধভাবে ভারতে যাওয়ার অভিযোগে বেনাপোল ইমিগ্রেশনের তিন পুলিশ কনস্টেবলকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। আর ইমিগ্রেশনের বহিরাগত এনজিও সদস্য পরিচয়ধারী রুহুল নামে এক বাংলাদেশিকে দুই লাখ টাকাসহ আটক করেছে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ।  

সোমবার (১৭ জুন) সন্ধ্যায় অভিযুক্ত তিন পুলিশ কনস্টেবলকে বেনাপোল ইমিগ্রেশন থেকে যশোর পুলিশ লাইনে প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়। এ তিনজন হলেন কনস্টেবল এস কে আযম, রুমা বেপারী ও তৃষা বিশ্বাস।

সূত্রে জানা যায়, সোমবার সকালে বেনাপোল ইমিগ্রেশনের এনজিও সদস্য পরিচয়ধারী রুহুল কনস্টেবল আযম, রুমা ও তৃষা বিশ্বাসকে সঙ্গে নিয়ে পাসপোর্ট ছাড়া মৌখিকভাবে বিজিবি ও বিএসএফকে জানিয়ে কেনাকাটার অজুহাতে ভারতে প্রবেশ করে। এসময় কনস্টেবল আযমের গায়ে সাদা পোশাক ছিল। 

আধঘণ্টা পর তারা ফেরার সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ভারতের পেট্রাপোল ক্যাম্পের বিএসএফ সদস্যরা চারজনকেই ধরে ক্যাম্পে নিয়ে যায়। পরে তাদের সবার দেহ তল্লাশি করা হলে রুহুলের কাছে অবৈধ হুন্ডির টাকা পাওয়া যায়। তখন চারজনকে আটকে রাখে বিএসএফ। 

ইমিগ্রেশনের পুলিশ সদস্য আটক হওয়ার খবর পেয়ে বিভিন্ন মহল থেকে তাদের ছাড়াতে তৎপরতা শুরু হয়। এক পর্যায়ে সমঝোতা হলে সন্ধ্যা ৬টায় বেনাপোল ইমিগ্রেশনের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার (ওসি) কাছে বিএসএফ সদস্যরা তিন কনস্টেবলকে তুলে দেয় এবং ইমিগ্রেশনের এনজিও সদস্য রুহুলকে টাকাসহ আটকে রাখে। কেউ কেউ টাকার অংক ১২ লাখ বললেও পুলিশ বলছে দুই লাখ।

স্থানীয় সূত্র জানায়, গত বছরও পুলিশ কনস্টেবল আযম বেনাপোল ইমিগ্রেশনে কর্মরত থাকাবস্থায় আমড়াখালী বিজিবি চেকপোস্টে ৭ বোতল বিদেশি মদসহ  আটক হন। পরে তাকে ইমিগ্রেশন পুলিশের জিম্মায় ছেড়ে দেওয়া হয়। এ ঘটনায় তাকে প্রত্যাহার করা হলেও ৬ মাসের মাথায় আবারও তিনি বেনাপোল ইমিগ্রেশনে পোস্টিং নিয়ে আসেন। 

এ বিষয়ে বেনাপোল ইমিগ্রেশনের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল বাশার বাংলানিউজকে বলেন, যার কাছে টাকা পাওয়া গেছে তাকে বিএসএফ আটকে রেখেছে। আমার পুলিশ সদস্যদের কাছে কিছু না পাওয়ায় তারা তাদের ছেড়ে দিয়েছে। তবে অফিসকে না জানিয়ে অবৈধভাবে ভারতে যাওয়ার অভিযোগে তিন পুলিশ সদস্যকে বেনাপোল ইমিগ্রেশন থেকে যশোর পুলিশ লাইনে প্রত্যাহার করা হয়েছে। 

তারা কোনো অপরাধ করেছেন কি-না, উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা তা খতিয়ে দেখবেন বলেও জানান তিনি। 

বেনাপোল চেকপোস্ট আইসিপি ক্যাম্পের সুবেদার বাকি বিল্লা বাংলানিউজকে জানান, তারা চারজন কেনাকাটার নাম করে ভারতে যান। ফিরে আসার সময় বিএসএফ সদস্যরা তাদের ক্যাম্পে নিয়ে তল্লাশি করেন। পরে জানতে পারি হুন্ডির দুই লাখ টাকাসহ রাহুল নামে একজনকে বিএসএফ আটকে রেখে অন্য তিন পুলিশ সদস্যকে ছেড়ে দিয়েছে। 
   
বাংলাদেশ সময়: ০৬২৩ ঘণ্টা, জুন ১৮, ২০১৯
এইচএ/

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   বেনাপোল
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-06-18 06:36:38