bangla news

পুরনো রূপে কমলাপুর রেলস্টেশন, টিকিটপ্রত্যাশীদের স্রোত

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৫-২৫ ৮:৫৬:৫২ এএম
কমলাপুর রেলস্টেশনে টিকিটপ্রত্যাশীদের ভিড়। ছবি: ডিএইচ বাদল

কমলাপুর রেলস্টেশনে টিকিটপ্রত্যাশীদের ভিড়। ছবি: ডিএইচ বাদল

ঢাকা: ঈদুল ফিতরের অগ্রিম টিকিট বিক্রির চতুর্থ দিনেও রাজধানীর কমলাপুর রেলস্টেশনে টিকিটপ্রত্যাশীদের চাপ বেড়েছে।

দেশের সবচেয়ে বড় এই রেলস্টেশনে কিছুটা হলেও প্রাণ ফিরে পেয়েছে পুরনো সেই রূপ। প্ল্যাটফর্মের বাইরেও দাঁড়িয়ে ক্লান্ত থাকতে থাকতে রাস্তায়ই বসে পড়েছেন টিকিটপ্রত্যাশীরা।

শনিবার (২৫ মে) সকাল ৮টায় কমলাপুর রেলস্টেশন ঘুরে এ চিত্র দেখা যায়।

লোকসমাগম বেশি হওয়ার অন্যতম কারণ হচ্ছে, শনিবার দেওয়া হবে ৩ জুনের টিকিট। রাজধানীর ব্যস্ত লোকজন ঈদের একদিন আগেই বাড়ি ফেরা নিশ্চিত করতে চায়।

শনিবার সকাল ৯টার দিকে কমলাপুর রেলস্টেশনের নির্ধারিত নয়টি কাউন্টারে একযোগে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট দেওয়ার কথা রয়েছে। কমলাপুর রেলস্টেশন থেকে উত্তর-পশ্চিম জনপদ ও খুলনা অঞ্চলের টিকিট দেওয়া হচ্ছে।কমলাপুর রেলস্টেশনে টিকিটপ্রত্যাশীদের ভিড়। ছবি: ডিএইচ বাদলএই রেলস্টেশন থেকে ১২ ট্রেনের প্রায় ১৬ হাজারের কিছু বেশি টিকিট দেওয়া হবে। ২৬ হাজার ৭শ টিকিটের মধ্যে বাকিটা অনলাইনের জন্য বরাদ্দ রয়েছে।খুলনাগামী সুন্দরবন এক্সপ্রেস, চিত্রা এক্সপ্রেস,  রাজশাহীগামী ধুমকেতু এক্সপ্রেস, বনলতা এক্সপ্রেস, সিল্কসিটি এক্সপ্রেস, চাঁপাইনবাবগঞ্জগামী পদ্মা এক্সপ্রেস, রংপুরগামী রংপুর এক্সপ্রেস, লালমনিরহাটগামী লালমনি এক্সপ্রেস, পঞ্চগড়গামী দ্রুতযান এক্সপ্রেস, নীলফামারীগামী নীলসাগর এক্সপ্রেস, পঞ্চগড়গামী একতা এক্সপ্রেস ও সিরাজগঞ্জ সিরাজগঞ্জ এক্সপ্রেসে মোট আসন সংখ্যা ১১ হাজার ৬৯টি।

কমলাপুর রেলস্টেশনে শুক্রবার (২৪ মে) রাত ১০টা থেকেই টিকিটের জন্য অবস্থান নিয়েছেন মো. জুলফিকার আলী।

তিনি বলছিলেন, তিনি শুধু একা নন, রাতে তার সঙ্গে অনেকেই এসেছেন। রাতভর এতো কষ্ট করে অপেক্ষা করছি, শুধু টিকিট পেলে সেই কষ্ট ম্লান হয়ে যাবে।

জুলফিকারের মতোই মধ্য রাত থেকে কমলাপুরে অপেক্ষা করছেন যশোরের আবুল আসাদ। পেশায় উন্নয়নকর্মী আসাদ বলছিলেন, রাত কেটেছে দাঁড়িয়ে, শুয়ে ও বসে। এখন যদি টিকিট পাই, তাহলে মনটা আনন্দে ভরে যাবে।

পোশাক কারখানার কর্মকর্তা জিনাত বলছিলেন, ঈদ পরিবারের সঙ্গে উদযাপন করা অন্যরকম আনন্দ। তাই রাত সাড়ে ১২টা থেকে এখানে অপেক্ষা করছেন।

অনলাইনে ও অ্যাপসে টিকিট কাটতে অনেক চেষ্টা করেছেন। কিন্তু ব্যর্থ হয়েই কমলাপুরে আসা বলে যোগ করেন ওই পোশাক কারখানার কর্মকর্তা।

কমলাপুর রেলস্টেশনের কর্মকর্তা আমিনুল হক বাংলানিউজকে জানান, শনিবার দেওয়া হবে প্রায় ১৬ হাজারের মতো টিকিট।

এদিকে কমলাপুর রেলস্টেশনের কালোবাজারিরোধ করতে রেলওয়ে পুলিশ, রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনী, আনসার, আর্মড পুলিশ ও র‌্যাবের সদস্যরা সক্রিয়ভাবে দায়িত্ব পালন করছেন। টিকিটপ্রত্যাশীদের লাইন ঠিক করতে হিমশিম খাচ্ছেন আনসার সদস্যরা।

কমলাপুরে উত্তরবঙ্গ ও সমগ্র পশ্চিমাঞ্চল, বিমানবন্দর স্টেশন থেকে চট্টগ্রাম ও নোয়াখালীগামী সব আন্তঃনগর ট্রেন, তেজগাঁও স্টেশন থেকে ময়মনসিংহ ও জামালপুর আন্তঃনগর ট্রেন, বনানী স্টেশন থেকে নেত্রকোণাগামী মোহনগঞ্জ ও হাওড় এক্সপ্রেস ট্রেন এবং ফুলবাড়িয়া (পুরাতন রেলভবন) থেকে সিলেট ও কিশোরগঞ্জগামী সব আন্তঃনগর ট্রেনের টিকিট দেওয়া হচ্ছে।

বাংলাদেশ সময়: ০৮৫৬ ঘণ্টা, মে ২৫, ২০১৯
টিএম/এএটি

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   টিকিট ঈদুল ফিতর রেলস্টেশন
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-05-25 08:56:52