ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০ শ্রাবণ ১৪২৭, ০৪ আগস্ট ২০২০, ১৩ জিলহজ ১৪৪১

জাতীয়

ভিজিডির টাকা না পেয়ে ইউএনও কার্যালয়ে নারীদের বিক্ষোভ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৫-১৯ ০৮:৪০:২০ পিএম
ভিজিডির টাকা না পেয়ে ইউএনও কার্যালয়ে নারীদের বিক্ষোভ ইউএনও কার্যালয় ঘিরে বিক্ষোভ করছেন নারীরা। ছবি: বাংলানিউজ

কুড়িগ্রাম: কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলায় প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হওয়ার ছয় মাস পার হলেও মাসে মাসে জমা করা সঞ্চয় ও লভ্যাংশের টাকা পাচ্ছেন না ভিজিডি কার্ডধারী দুই শতাধিক হতদরিদ্র নারী।
 

রোববার (১৯ মে) দুপুরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) কার্যালয়ে অবস্থান নিয়ে টাকা ফেরতের দাবিতে বিক্ষোভ করেন ভিজিডি কার্ডধারী নারীরা।

পরে, ইউএনও শিগগিরই সঞ্চয়ের টাকা ফেরত দিতে ব্যবস্থা নেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিলে তারা শান্ত হন।

বিক্ষোভকারী নারীরা বলেন, দুই বছর ধরে খেয়ে না খেয়ে মাসিক দুইশ’ টাকা হারে চার হাজার আটশ’ টাকা সঞ্চয় হয়েছে। লাভসহ মোট টাকার পরিমাণ দাঁড়িয়েছে চার হাজার নয়শত এগারো টাকা। কিন্তু প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হওয়ার ছয় মাস পার হলেও কার্যালয়ের বারান্দায় বারবার ধরনা দিয়েও টাকা পাওয়া যায়নি।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, মহিলা বিষয়ক অধিদফতরের আওতায় বাংলাদেশ সোশ্যাল ডেভেলপমেন্ট অ্যাকাডেমি (বিএসডিএ) ও ডেভেলপমেন্ট পার্টনার (ডিপি) নামের দু’টি এনজিওর মাধ্যমে ২০১৭ সালের ১ জানুয়ারি ফুলবাড়ী উপজেলায় দু’বছর মেয়াদী ভিজিডি প্রকল্পের কার্যক্রম শুরু হয়।  

উপজেলার ৬টি ইউনিয়নের ৫৭৯৯ জন হতদরিদ্র নারীকে জনপ্রতি ৩০ কেজি চাল দেওয়ার বিপরীতে পাস বইয়ের মাধ্যমে মাসিক ২০০ টাকা সঞ্চয় জমা নেওয়া হয়। সোনালী ব্যাংকের ফুলবাড়ী শাখার দু’টি হিসাবে দু’বছরে মোট ২ কোটি ৬৫ লাখ ৫৮ হাজার ৩২০ টাকা জমা হয়।

কিন্তু প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হলেও, সঞ্চয়ের টাকা হাতে হাতে বিতরণ করলে ছিনতাই হতে পারে- এ অজুহাতে সোনালী ব্যাংকের ফুলবাড়ী শাখা থেকে ওই টাকা ডাচ-বাংলা ব্যাংকের কুড়িগ্রাম শাখায় স্থানান্তর করা হয়।

ফুলবাড়ী উপজেলার তালুক শিমুলবাড়ী গ্রামের মজিয়া বেগম (৩৭), নাওডাঙ্গা বারাইতারী গ্রামের ছপিয়া বেগম (৩৬), নাগদাহ গ্রামের রহিমা বেগম (৩৮) জানান, তাদের প্রত্যেকের ৪ হাজার ৯১১ টাকা করে জমা থাকলেও দিনের পর দিন ঘুরেও টাকা পাচ্ছেন না।  

অপরদিকে, পানিমাছকুটি গ্রামের হাসুমনি (৩৫) জানান, তার ৪ হাজার ৯১১ টাকা জমা থাকলেও পেয়েছেন মাত্র ৪ হাজার ৩০০ টাকা।

ফুলবাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোছা. মাসুমা আরেফিন বাংলানিউজকে বলেন, টাকা স্থানান্তরের ব্যাপারে আমি কিছুই জানি না। উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা ছুটিতে আছেন, তাই জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলে শিগগিরই সঞ্চয়ের টাকা দেওয়ার ব্যবস্থা করা হবে।

বাংলাদেশ সময়: ১৬৩৭ ঘণ্টা, মে ১৯, ২০১৯
এফইএস/একে

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa