ঢাকা, রবিবার, ৭ আশ্বিন ১৪২৬, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯
bangla news

স্থানীয় সরকারকে সচল করতে আয় বাড়াতে হবে

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৪-২৪ ৮:২৭:২০ পিএম
সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ আয়োজিত আলোচনা সভায় অতিথিরা/ছবি- ডি এইচ বাদল

সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ আয়োজিত আলোচনা সভায় অতিথিরা/ছবি- ডি এইচ বাদল

ঢাকা:  দেশের প্রান্তিক পর্যায়ের উন্নয়নের জন্য স্থানীয় সরকারের ভূমিকা সবচেয়ে বেশি মন্তব্য করে স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম বলেছেন, স্থানীয় সরকারকে আরো উন্নত ও এর কাজের ধারাকে আরো বেগবান করে তুলতে এ খাতের উপার্জন আরো বাড়াতে হবে।

তিনি বলেন, উপার্জন বাড়ানোর একমাত্র উপায় এখাতে রেভিনিউ বা রাজস্ব আরো বাড়াতে হবে। এজন্য নতুন গবেষণা বা রাজস্ব বাড়াতে নতুন উপায় বের করতে আরো কাজ করতে হবে। কেননা টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অর্জনের জন্য কোনো খাতকে বাদ দিয়ে এগিয়ে গেলে তা অর্জন সম্ভব হবে না। তবে আগের তুলনায় রাজস্ব বেড়েছে বলেও জানান তিনি।
 
বুধবার (২৪ এপ্রিল) রাজধানীর একটি অভিজাত হোটেলে সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি) আয়োজিত আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন মন্ত্রী। এসডিজি অর্জনে নগরসহ স্থানীয় সরকারের বর্তমান পরিস্থিতি, সম্ভাবনা ও চ্যালেঞ্জ শীর্ষক সভাটি অনুষ্ঠিত হয়।
 
স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী বলেন, রাজস্ব বাড়াতে হলে আমাদেরকে মানুষের আয় আরও বাড়াতে হবে। এজন্য গ্রামাঞ্চলের দিকে বিশেষভাবে মনোযোগ দিতে হবে। গ্রামের প্রাকৃতিক সম্পদের সঠিক ব্যবহারের দিকে বিশেষ নজর দিতে হবে। বিশেষত কৃষিখাতকে আরো উন্নত করতে হবে। এসব কাজে বিশেষজ্ঞদের মতামত গ্রহণ করা ছাড়াও স্থানীয় জনগণের মতামতও নেবো আমরা।

নারীর উন্নয়ন ঘটাতে হবে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ইউনিয়ন পরিষদের ৩টি ওয়ার্ডে নারী মেম্বার রয়েছেন। তবে আসলে তার সুনির্দিষ্ট কোনো ওয়ার্ড নেই, অর্থাৎ নির্দিষ্ট কোনো কাজও নেই। এক্ষেত্রে তাদেরকে নিজ উদ্যোগে বিভিন্ন কাজে অংশগ্রহণ করতে হবে। এছাড়া প্রান্তিক অঞ্চলের নারীদের উন্নয়ন ছাড়া এসডিজি অর্জনই সম্ভব নয়। অর্থাৎ শুধুমাত্র নগর উন্নত হলেই দেশ উন্নত হবে না। আর উন্নয়ন ঘটাতে হলে অবশ্যই দেশের সব জনগণের ভাগ্যের উন্নয়ন ঘটাতে হবে। এক্ষেত্রে প্রতিবন্ধী, তৃতীয় লিঙ্গসহ সব ধরনের জনগণের উন্নয়ন নিশ্চিত করতে হবে।
 
স্থানীয় সরকারের জন প্রতিনিধিদেরকে জনগণের কাছে আরো গ্রহণযোগ্য করে গড়ে তুলতে হবে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, স্থানীয় সরকারের যে সব জনপ্রতিনিধিরা রয়েছেন তাদের সম্মান বাড়ানো বা তাদেরকে জনগণের কাছে আরো গ্রহণযোগ্য করার জন্য কাজ করতে হবে। তাদেরকে সমাজে ব্যাপকভাবে অসম্মান করা হয়। এর শুরুটা ছিল সামরিক শাসকাল থেকে। সে সময় থেকে কিছু অসামঞ্জস্যতা বা বৈষম্যমূলক নিয়ম রয়েছে সরকারের। সেগুলো সমাধান করা হবে দ্রুত।
 
তাছাড়া পরিবেশ ও পানি দূষণ রোধে পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে এবং এ ব্যাপারে সবাইকে আরো সচেতন হওয়ার ও সচেতনতামূলক কার্যক্রম গ্রহণে সবাইকে অনুরোধ জানান তিনি। এমনকি স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের যদি কর্মকাণ্ডে কোনো ভুল থাকে সেগুলো দেখিয়ে দিতেও বলেন তিনি।

সিপিডির রিসার্চ ফেলো মোস্তাফিজুর রহমানের সঞ্চালনায় এবং নির্বাহী পরিচালক ড. ফাহমিদা খাতুনের সভাপতিত্বে সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন সিপিডির আরেক রিসার্চ ফেলো দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য, মাদারীপুর পৌরসভার মেয়র খালিদ হোসেন ইয়াদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের লোক-প্রশাসন বিভাগের অধ্যাপক সালাউদ্দিন মো. আমিনুজ্জামান, সিপিডির সিনিয়র রিসার্চ অ্যাসোসিয়েট উম্মে শেফা রেজওয়ানাসহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা।
 
সভায় বক্তারা বলেন, এসডিজিতে কোন এলাকা ও জনগোষ্ঠীকে পিছিয়ে রাখা যাবে না। এক গবেষণায় দেখা গেছে ২০৩৪ সালের পর গ্রামের চেয়ে শহরেই বেশি মানুষ বসবাস করবে। কিন্তু অপরিকল্পিত নগরায়নের জন্য শহরের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি আটকে যাচ্ছে। আমাদের নগরের দারিদ্র্যতাও দূর করতে হবে। অন্যদিকে দেশের বেশিরভাগ ভালো উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ড সম্পন্ন হয় গ্রামীণ স্থানীয় সরকারের মাধ্যমে। তাই স্থানীয় সরকার পর্যায়ে এসডিজি পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে। স্থানীয় সরকারের জন্য আলাদা বাজেট করতে হবে। যেমন পৌরসভার বেতন বৃদ্ধি হয়েছে, সেটা ভালো খবর। কিন্তু উপার্জন বা রাজস্ব তো সে পরিমাণে বাড়েনি। এছাড়া এসব সমস্যা আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করতে স্থানীয় সরকার দিবস ও ওইদিনে সম্মেলনের ব্যবস্থা করতে হবে।

বক্তারা আরো বলেন, স্থানীয় সরকার কমিশন গঠন করা হলেই যেসব সমস্যার সমাধান হবে তা নয়। পৌরসভা পর্যায়ে নারীদের ক্ষমতায়ন ও কাজের সুযোগ সুবিধা বাড়াতে হবে। তাদের আরো স্বাধীনতা দিতে হবভে কাজের ক্ষেত্রে। সবচেয়ে লক্ষ্যণীয় বিষয় প্রতিবন্ধীদের দিকে অধিক নজর ও নারী ধর্ষণ বন্ধ করতে হবে। সম্প্রতি নারী ধর্ষণের হার দেশজুড়ে ব্যাপকভাবে বেড়ে গেছে।            
 
বাংলাদেশ সময়: ২০২৪ ঘণ্টা, এপ্রিল ২৪, ২০১৯
এমএএম/জেডএস

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-04-24 20:27:20