ঢাকা, শুক্রবার, ২৩ শ্রাবণ ১৪২৭, ০৭ আগস্ট ২০২০, ১৬ জিলহজ ১৪৪১

জাতীয়

শরবত নিয়ে এলেন মিজান, নেই ওয়াসা এমডি

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৭২৩ ঘণ্টা, এপ্রিল ২৩, ২০১৯
শরবত নিয়ে এলেন মিজান, নেই ওয়াসা এমডি ওয়াসা ভবনের সামনে মিজানসহ আন্দোলনকারীরা, ছবি: বাংলানিউজ

ঢাকা: ওয়াটার সাপ্লাই অ্যান্ড সুয়ারেজ অথরিটির (ওয়াসা) ব্যবস্থাপনা পরিচালককে (এমডি) ওয়াসারই পানি দিয়ে সুপেয় শরবত পান করাতে এসেছেন মিজানুর রহমান। শরবতের জন্য ওয়াসার নলের পানি, চিনি এবং লেবু নিয়ে আসলেও ওয়াসা এমডির সাক্ষাৎ পাননি মিজান।

মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) সকাল ১১টায় রাজধানীর জুরাইন থেকে কারওয়ান বাজারে ওয়াসার প্রধান কার্যালয় ওয়াসা ভবনের সামনে আসেন মিজান। পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী, ওয়াসার এমডি তাকসিম এ খানকে শরবত পান করানোর জন্য ওয়াসা ভবনে প্রবেশের চেষ্টা করেন তিনি।

তবে কার্যালয়ে এমডি না থাকার অজুহাতে তাকে প্রবেশ করতে দেননি দায়িত্বরত পুলিশ ও নিরাপত্তা কর্মীরা। এসময় তার সঙ্গে নিজের স্ত্রী, মেয়ে, রাজধানীর বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দা এবং অন্যান্য সমাজকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

ঢাকা ওয়াসার পানি শতভাগ সুপেয়- গত ২০ এপ্রিল সংস্থাটির এমডি তাকসিম এ খানের এমন মন্তব্যের প্রতিবাদ জানায় পুরান ঢাকার জুরাইনবাসীসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ। এই বক্তব্যের প্রতিবাদ ও সমালোচনা জানাতেই এমন কার্যক্রম বলে জানান মিজানুর রহমান।

এসময় মিজানুর রহমান বলেন, আমাদের এলাকার ওয়াসার পানি ড্রেনের পানির মতো অপরিষ্কার। এটা তো পান দূরের কথা, গন্ধে হাতে নেওয়াই যায় না। এ পানি ফুটিয়েও পান করা যায় না। এক যুগ আগে ফুটিয়ে পান করা যেতো। তারও এক যুগ আগে সরাসরি পান করা যেতো। এই অবস্থায় ওয়াসর এমডি কীভাবে বলেন, ওয়াসার পানি শতভাগ সুপেয়, বিশুদ্ধ। তাই আমরা এই পানি দিয়ে শরবত বানিয়ে পান করাতে এসেছি তাকে।

ওয়াসার এমডির সাক্ষাৎ না করার সমালোচনা করে মিজানুর রহমান বলেন, তার (ওয়াসার) পানি যদি নিরাপদই হয়, তাহলে তার এই পানি পান করতে সমস্যা বা ভয় কোথায়? তিনি যদি ‘সভ্য’ হতেন, দায়িত্ববান হতেন, তাহলে এমন কথা বলতেন না। আমরা চাই, তিনি দুঃখ প্রকাশ করে এমন দায়িত্বপূর্ণ পদ থেকে পদত্যাগ করবেন।

প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ওয়াসার এমডির সঙ্গে সাক্ষাতের উদ্দেশে ওয়াসা ভবনের প্রধান ফটকের সিড়িতে মিজানুর রহমানের নেতৃত্বে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছেন আন্দোলনকারীরা। এসময় লিখিত বক্তব্য থেকে তিনটি দাবি উপস্থাপন করেন তারা। এগুলো হলো- পানি নিষ্কাশনের খাল ও নর্দমাগুলো পূর্ণ খনন করার স্বল্প ও দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা গ্রহণ এবং বাস্তবায়ন করা, পয়নিষ্কাশনের জন্য আন্ডার সুয়ারেজ ব্যবস্থার পরিকল্পনা গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করা এবং গ্যাসের চাপ বৃদ্ধিকল্পে গ্যাস সঞ্চালন পাইপ পরিবর্তন করে বর্তমান ও ভবিষ্যৎ চাহিদা অনুযায়ী মোটা পাইপ স্থাপন করে নিরবিচ্ছিন্ন গ্যাস প্রাপ্তি নিশ্চিত করা।  

এদিকে, জুরাইনবাসীর এমন কর্মসূচিতে ওয়াসা ভবনের গেটে অতিরিক্ত পুলিশ, আনসার সদস্যরা অবস্থান নিয়েছেন।

দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৫৩ নম্বর ওয়ার্ড আওতাধীন পূর্ব জুরাইনের বাসিন্দা মিজানুর রহমান। সোমবার (২২ এপ্রিল) ওয়াসার এমডিকে তাদেরই পানি দিয়ে শরবত বানিয়ে পান করানোর ঘোষণা দিয়ে আলোচনায় আসেন তিনি।

বাংলাদেশ সময়: ১৩২০ ঘণ্টা, এপ্রিল ২৩, ২০১৯
এসএইচএস/টিএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa