ঢাকা, বুধবার, ৮ শ্রাবণ ১৪২৬, ২৪ জুলাই ২০১৯
bangla news

১১ কোটি টাকার সার আত্মসাৎ মামলায় দুদকের চার্জশিট

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৪-১৫ ৭:৪০:০৯ পিএম
দুর্নীতি দমন কমিশনের লোগো

দুর্নীতি দমন কমিশনের লোগো

ঢাকা: ১১ কোটি ৩ লাখ ৩৪ হাজার ৪০১ টাকার সার আত্মসাতের অভিযোগে বগুড়ার সান্তাহারের বাফার গুদামের সাবেক উপ-প্রধান প্রকৌশলী (যান্ত্রিক) ও গুদাম ইনচার্জ নবির উদ্দিন খানসহ তিনজনের বিরুদ্ধে চার্জশিট অনুমোদন দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

সোমবার (১৫ এপ্রিল) কমিশন বৈঠকে এ অনুমোদন দেয় দুদক। ২০১৭ সালের ২ অক্টোবর ওই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে আদমদিঘি (বগুড়া) থানায় এ সংক্রান্ত মামলা হয়। 

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা হলেন দুদকের সহকারী পরিচালক মো. আমিনুল ইসলাম।

দুদকের উপ-পরিচালক প্রণব কুমার ভট্টাচার্য্য জানান, তদন্তের সময় দেখা যায়, পরিবহন ঠিকাদার আসামি মো. মশিউর রহমান খানের প্রতিনিধি সান্তাহার বাফার গুদামে পরিবহনের জন্য ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ১৫টি সরবরাহ চালানমূলে আমদানিকৃত মোট সাড়ে আট হাজার টন ইউরিয়া সার গ্রহণ করেন। কিন্তু সেই সার গুদামের হিসাবে যুক্ত করা হয়নি।

মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামিরা হলেন মো. নবির উদ্দিন খান (সাবেক উপ-প্রধান প্রকৌশলী (যান্ত্রিক) ও গুদাম ইনচার্জ, বিসিআইসি’র আওতাধীন সান্তাহার বাফার গুদাম, বর্তমানে-অবসরপ্রাপ্ত); মো. মশিউর রহমান খান (নির্বাহী পরিচালক, মেসার্স সাউথ ডেল্টা শিপিং অ্যান্ড ট্রেডিং লিমিটেড); আর তদন্তে আসা নাম মো. রাশেদুল ইসলাম রাজা (প্রো. মেসার্স রাজা এন্টারপ্রাইজ)। 

শিগগিরই সংশ্লিষ্ট আদালতে এ বিষয়ে চার্জশিট দাখিল করা হবে।

বাংলাদেশ সময়: ১৯৩৮ ঘণ্টা, এপ্রিল ১৫, ২০১৯
আরএম/জেডএস

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   দুদক
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-04-15 19:40:09