bangla news

কমলাপুর ছাড়াও মিলবে ঈদের ট্রেনের টিকিট

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৪-০৫ ১২:৫৮:৫৮ পিএম
কমলাপুর স্টেশন পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলছেন রেলপথমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন। ছবি: বাংলানিউজ

কমলাপুর স্টেশন পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলছেন রেলপথমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন। ছবি: বাংলানিউজ

ঢাকা: আসন্ন ঈদুল ফিতরে ট্রেনের আগাম টিকিট কমলাপুরের বাইরেও মিলবে বলে জানিয়েছেন রেলপথমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন। তিনি বলেন, টিকিট ভোগান্তি কমাতে চলতি মাসেই অ্যাপস চালু করা হবে। 

শুক্রবার (৫ এপ্রিল) কমলাপুর স্টেশন পরিদর্শন শেষে তিনি এ কথা জানান।

রেলপথমন্ত্রী বলেন, কমলাপুর স্টেশনে টিকিট কিনতে যাত্রীদের দীর্ঘলাইন থাকে। স্টেশন একটা বাজারে রূপ নেয়। যাত্রী সাধারণের ভোগান্তি কমাতে চলতি মাসে অ্যাপস চালু করা হবে। এর মাধ্যমে ঘরে বসেই সবাই টিকিট কিনতে পারবেন। তাছাড়া ঈদযাত্রার আগাম টিকিট বিক্রিতে যাত্রীর ভোগান্তি কমাতে শুধু কমলাপুর না, এর বাইরেও টিকিট বিক্রির পরিকল্পনা আছে। সে সময় হয়তো আমরা টিএসসি, সায়েদাবাদ বা রেল ভবনসহ কয়েকটি স্থান বেঁচে নেবো।

নুরুল ইসলাম বলেন, দেশের বিভিন্ন স্থানে মোট ৭২টি ট্রেন চুক্তিভিত্তিক বেসরকারিভাবে পরিচালনা করা হচ্ছে। তাদের চুক্তির মেয়াদ শেষ হলেই নতুন করে আর কোনো চুক্তি করা হবে না। রেলওয়ে থেকেই আমরা ওই ট্রেনগুলো পরিচালনা করবো। কমলাপুর স্টেশনে বিনা টিকিটে প্রবেশসহ নানা অভিযোগ আছে। আমরা খুব শিগগির ছোট ছোট সব প্রবেশ পথ বন্ধ করে দেবো। একইসঙ্গে বিনা টিকিটে ট্রেন ভ্রমণে জরিমানা অব্যাহত থাকবে।

তিনি বলেন, আগামী এক বছরে ট্রেনে সাড়ে ৫০০ বগি, ১০০টি ইঞ্জিন এবং ২৫০টি কোচ আসবে। তাছাড়া মিটারগেজ লাইন ধীরে ধীরে বন্ধ করা হবে। সবগুলো লাইন হবে ব্রডগেজ। সরকার চায় রেলওয়েকে আরো ঢেলে সাজাতে এবং জনগণের কাছাকাছি নিয়ে যেতে। লোকবলের অভাবের অভিযোগ ছিলো, সেটাও এখন দূর হওয়ার পথে। আশা করি, সত্যিকারের সেবায় পরিণত হবে রেল।

পরিদর্শনকালে রেলওয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশ সময়: ১২৫৫ ঘণ্টা, এপ্রিল ০৫, ২০১৯
ইএআর/আরবি/

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   ট্রেন সার্ভিস
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-04-05 12:58:58