[x]
[x]
ঢাকা, শুক্রবার, ১০ ফাল্গুন ১৪২৫, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯
bangla news

বুড়িগঙ্গার তীরে উচ্ছেদের প্রতিবাদে মানববন্ধন

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০২-১০ ১২:৫২:৩১ পিএম
উচ্ছেদ বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন। ছবি-শাকিল আহমেদ

উচ্ছেদ বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন। ছবি-শাকিল আহমেদ

ঢাকা: বুড়িগঙ্গা নদীর তীরবর্তী কামরাঙ্গীর চরের 'ব্যক্তি মালিকানাধীন' বৈধ জমিতে বিআইডব্লিউটিএ-এর উচ্ছেদ অভিযান বন্ধসহ পাঁচ দফা দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। 

রোববার (১০ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়। 

স্থানীয় বাসিন্দা আলাউদ্দিনের সভাপতিত্বে ও আনিসুল হকের পরিচালনায় মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন ডা. মারুফ এলাহী, মোহাম্মদ আব্দুল কাদির, মোহাম্মদ আব্দুস সালাম ও মো. এখলাসুর রহমান প্রমুখ। 

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, নদী রক্ষায় উচ্চ আদালত সিএস এবং আরএস রেকর্ড ও ম্যাপ অনুযায়ী নদী চিহ্নিত করে নদী দখল করে যেসব অবৈধ স্থাপনা গড়ে উঠেছে সেসব  উচ্ছেদের নির্দেশ দেন। কিন্তু উচ্চ আদালত নির্দেশিত ট্রাস্ক ফোর্সের ৩১ ও ৩২তম সভার সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে বিআইডব্লিউটিএ ভুল ফোরশোর ম্যাপ তৈরির মাধ্যমে মিথ্যার আশ্রয় নিয়ে সিএস লাইনে স্থাপিত বুড়িগঙ্গা নদীর সীমানা পিলার এরই মধ্যে তুলে নদীতে ফেলে দেয়।

বুড়িগঙ্গার স্থাপনা উচ্ছেদ বন্ধ করতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করে বক্তারা আরো বলেন, বুড়িগঙ্গার তীর ভূমি সংলগ্ন সিএস, এসএ, আরএস এবং সিটি জরিপের যথাযথ রেকর্ডভুক্ত বৈধ মালিকানাধীন জমিতে গত ২৯ জানুয়ারি থেকে ৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ এর পাশাপাশি বৈধ জমি ও বৈধ স্থাপনাও বিনা নোটিশে উচ্ছেদ করা হয়। এতে ওই এলাকার অনেক বৈধ মালিকের বসতভিটা, কলকারখানা ও যাবতীয় স্থাপনা সরিয়ে ফেলা হয়। ফলে কোটি কোটি টাকার সম্পদ হারিয়ে মানুষ নিঃস্ব হয়ে পড়েছে।
 
তাদের পাঁচ দফা দাবি হলো- বৈধ জমির স্থাপনা উচ্ছেদ বন্ধ, বিআইডব্লিউটিএ কর্তৃক ভুল বোঝাবুঝির অবসান, ক্ষতিগ্রস্তদের অবিলম্বে ক্ষতিপূরণ প্রদান, প্রকৃত ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও অন্যায়ের সঙ্গে জড়িতদের শাস্তির ব্যবস্থা করা।

বাংলাদেশ সময়: ১২৩৯ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ১০, ২০১৯
টিএম/এসআই

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   উচ্ছেদ অভিযান মানববন্ধন
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache