[x]
[x]
ঢাকা, সোমবার, ৭ মাঘ ১৪২৫, ২১ জানুয়ারি ২০১৯
bangla news

পাসপোর্ট অফিসের দালালকে ছিনিয়ে নিলো সহযোগীরা

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০১-১৪ ৬:০৬:৫৭ পিএম
পুলিশের কাছ থেকে পাসপোর্ট অফিসের দালালকে ছিনিয়ে নেয় তার সহযোগীরা

পুলিশের কাছ থেকে পাসপোর্ট অফিসের দালালকে ছিনিয়ে নেয় তার সহযোগীরা

রাজশাহী: রাজশাহী পাসপোর্ট অফিসের সামনে ছানা (২৫) নামে এক দালালকে পুলিশের কাছ থেকে ছিনিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। যদিও ঘটনার সত্যতা অস্বীকার করছে পুলিশ। তবে এ সংক্রান্ত ছবি সংবাদকর্মীদের কাছে চলে এসেছে।

সোমবার (১৪ জানুয়ারি) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে মহানগরীর শালবাগান এলাকায় পাসপোর্ট অফিসের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

ভুক্তভোগী মিজানুর রহমান জানান, তিনি জেলার তানোর উপজেলা সদরের অধিবাসী। কয়েকদিন থেকে পাসপোর্ট অফিসে ঘুরছেন পাসপোর্ট করার জন্য। রোববার পাসপোর্ট অফিসের দালাল ছানা ৭০০ টাকায় পাসপোর্ট করিয়ে দিতে চান। এ সময় তিনি ছানাকে টাকাও দেন। কিন্তু পাসপোর্টের করার কাজ পরে নিজেই সম্পন্ন করেন মিজানুর রহমান।

কাজ করে না দেওয়ায় সোমবার দুপুরে দালাল ছানার কাছে টাকা চাইলে ছানাসহ কয়েকজন সহযোগী তাকে ও তার ছোট ভাই লিমনকে মারধর করেন। এ সময় ২০০ টাকা রেখে ৫০০ টাকা ফেরত দেওয়ার প্রস্তাব দিলে তাদের আরও মারধর করা হয়। পরে খবর পেয়ে পুলিশ সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে দালাল ছানাকে আটক করেন।

এ সময় পাসপোর্ট অফিসের দালাল ছানার কয়েকজন সহযোগী এসে চন্দ্রিমা থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সেলিমের কাছে থেকে জোর করে ছানাকে ছিনিয়ে নেয়। পরে ভুক্তভোগী দুজনকে পুলিশ থানায় নিয়ে যায়।

তবে দালাল ছিনিয়ে নেওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করে মহানগরীর চন্দ্রিমা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হুমায়ুন কবির বলেন, এ ধরনের কোনো ঘটনা ঘটেনি। ঘটনাস্থল থেকে ভুক্তভোগী দুইজনকে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। তাদের অভিযোগ শোনা হচ্ছে। ভুক্তভোগীরা দালাল ছানার বিরুদ্ধে মামলা দিলে পুলিশ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে বলেও জানান ওই পুলিশ কর্মকর্তা।

এর আগে ২০১৫ সালের ৩ মার্চ রাজশাহী পাসপোর্ট অফিসে দালালির সময় ছানাকে হাতেনাতে আটক করা হয়। পরে জামিনে বের হয়ে আসেন তিনি।

বাংলাদেশ সময়: ১৮০১ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১৪, ২০১৯
এসএস/এমজেএফ

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14