ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০ শ্রাবণ ১৪২৭, ০৪ আগস্ট ২০২০, ১৩ জিলহজ ১৪৪১

জাতীয়

পঞ্চগড় থেকে ঢাকার ট্রেন চলাচল শুরু

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৮-১১-১০ ০৩:০২:০৩ পিএম
পঞ্চগড় থেকে ঢাকার ট্রেন চলাচল শুরু দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর পঞ্চগড় থেকে ঢাকার ট্রেন চলাচল শুরু, ছবি: বাংলানিউজ

পঞ্চগড়: দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর বাংলাদেশের সর্বউত্তরের প্রান্তিক জেলা পঞ্চগড় থেকে সরাসরি ঢাকার ট্রেন চলাচল শুরু হয়েছে। এতে করে দিনটিকে স্মরণীয় করে রাখার জন্য রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ, জেলা প্রশাসন, ও স্থানীয় সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো বিভিন্ন কর্মসূচির আয়োজন করছে ।

শনিবার (১০ নভেম্বর) সকাল ৭টা ২০মিনিটে দেশের দীর্ঘতম রেলপথের শুরুর এ স্টেশন থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায় দ্রুতযান এক্সপ্রেস । দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর পঞ্চগড় থেকে ঢাকার ট্রেন চলাচল শুরু, ছবি: বাংলানিউজরেলের পতাকা উড়িয়ে ঢাকা-পঞ্চগড় আন্তঃনগর ট্রেনের উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ রেলওয়ে মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব আবুল কালাম আজাদ।

এর মাধ্যমে শনিবার পঞ্চগড়বাসীর দীর্ঘদিনের লালিত স্বপ্ন পূরণ হলো । এনিয়ে পঞ্চগড়ে বইছে আনন্দের বন্যা।

এদিকে শনিবার রাত ৯টায় পঞ্চগড় থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছাড়বে একতা এক্সপ্রেস। এখন থেকে প্রতিদিন ঢাকা থেকে দ্রুতযান ছাড়বে রাত আটটায় এবং একতা ছাড়বে সকাল দশটায়। আন্তঃনগর ট্রেনের উদ্বোধনের সময় উপস্থিত ছিলেন পঞ্চগড়-২ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট নূরুল ইসলাম সূজন, রেলওয়ের মহাপরিচালক কাজী মো. রফিকুল ইসলাম, জেলা প্রশাসক (ডিসি) সাবিনা ইয়াসমিন, জেলার পুলিশ সুপার (এসপি) গিয়াসউদ্দিন আহমেদ, উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার সাদাত সম্রাটসহ প্রমুখ ।

এর আগে ঢাকা-পঞ্চগড় আন্তঃনগর উদ্বোধনী ট্রেন দেখতে শুক্রবার (৯ নভেম্বর) রাত থেকে এলাকার শিশু থেকে শুরু করে বিভিন্ন পেশার মানুষ রেলস্টেশনে ভিড় জমান। দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর পঞ্চগড় থেকে ঢাকার ট্রেন চলাচল শুরু, ছবি: বাংলানিউজউদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ রেলওয়ে মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব আবুল কালাম আজাদ বলেন, এই ট্রেন লাইনকে বাংলাবান্ধা স্থলবন্দর পর্যন্ত সম্প্রসারণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে । সমীক্ষার কাজ শুরু হয়েছে । আগামী এক বছরের মধ্যে সমীক্ষা হবে । তারপরেই কাজ শুরু হবে। এই বন্দর দিয়ে আশ-পাশের দেশগুলোর সঙ্গেও রেল যোগাযোগের চিন্তা-ভাবনা করছে সরকার।

১৯৬৫ সালে প্রতিষ্ঠিত পঞ্চগড় রেলস্টেশন থেকে ট্রেন যাত্রার এই শুভক্ষণটিকে নানা আয়োজনে করছে পঞ্চগড়বাসী। এ উপলক্ষ্যে ভোর সাড়ে ছয়টা রেলস্টেশনে সাধারণ মানুষ আসতে থাকে।

জানা যায়, ৯৮২ কোটি টাকা ব্যয়ে রেল মন্ত্রণালয়ের আওতায় পার্বতীপুর থেকে ঠাকুরগাঁও হয়ে পঞ্চগড় পর্যন্ত ১৫০ কিলোমিটারের এ রেললাইনের নির্মাণ কাজ শুরু হয় ২০১০ সালে। ওই বছরের ৩১ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই রেললাইনের ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপন করে কাজের সূচনা করেন।

রেললাইনের কাজ শেষ হয় ২০১৬ সালে।   ২০১৭ সালের ১৭ জুন রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক দিনাজপুর পর্যন্ত একটি ইর্ন্টাসিটি শাটল ট্রেন উদ্বোধন করেন। পরে এনিয়ে স্থানীয় সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো আন্দোলন শুরু করে । তারা সরাসরি ঢাকা-পঞ্চগড় ট্রেন চলাচলের দাবি করে। এ বছরের ২৯ মার্চ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঠাকুরগাঁওয়ের এক জনসভায় ভিডিও কনফারেন্সে এ দাবি সম্বলিত ব্যানার দেখতে পেয়ে তার বক্তব্যে বলেন, ব্যানার নামিয়ে ফেলুন পঞ্চগড়ে ট্রেন যাবে। প্রধানমন্ত্রীর সেই প্রতিশ্রুতি সকালে বাস্তবায়নের ফলে সব শ্রেণিপেশার মানুষ আনন্দিত।

বাংলাদেশ সময়: ০৯৫৬ ঘণ্টা, নভেম্বর ১০, ২০১৮
এএটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa