ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৬ শ্রাবণ ১৪২৭, ১১ আগস্ট ২০২০, ২০ জিলহজ ১৪৪১

জাতীয়

যাত্রীচাপে ফিরতি ট্রেন বিলম্ব

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৬২১ ঘণ্টা, আগস্ট ২৮, ২০১৮
যাত্রীচাপে ফিরতি ট্রেন বিলম্ব কমলাপুর রেলস্টেশনে স্থাপিত ডিজিটাল বোর্ডে বিভিন্ন ট্রেনের সম্ভাব্য সময়সূচি

ঢাকা: পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে ঈদুল আজহা উদযাপন শেষে রাজধানী ফেরত মানুষ নিয়ে কমলাপুর রেলস্টেশনে দেরিতে পৌঁছাচ্ছে ট্রেন। এতে যাত্রীরা বিড়ম্বনার মধ্যে পড়ছেন। উপচেপড়া ভিড়ের কারণে ফিরতি ট্রেনগুলো বিলম্ব হচ্ছে বলে দাবি করেছে কর্তৃপক্ষ।

ঈদের ফিরতি ট্রেনের স্পেশাল সার্ভিসের পূর্ব নির্ধারিত শেষ দিন মঙ্গলবার (২৮ আগস্ট) কমলাপুর রেলস্টেশনে ধূমকেতু এক্সপ্রেস, সুন্দরবন এক্সপ্রেস, রংপুর এক্সপ্রেস, নীলসাগর এক্সপ্রেস এবং লালমনি এক্সপ্রেস দেরিতে পৌঁছাচ্ছে।
 
রাজশাহী থেকে ধূমকেতু এক্সপ্রেস রাত ১১টা ২০ মিনিটে ছাড়ার কথা থাকলেও বিলম্বে ২টা ৪০ মিনিটে ছেড়েছে।

এই ট্রেনটি ৫ থেকে সাড়ে ৫ ঘণ্টায় কমলাপুর পৌঁছানোর কথা থাকলেও মঙ্গলবার সকাল ১০টা ২০ মিনিটে এসেছে। ট্রেন থামার সময় দেখা গেলো হাজারো যাত্রী, কেউ কেউ ট্রেনের ছাদ থেকেও নামছেন।
 
ধূমকেতু এক্সপ্রেসের যাত্রী রেজাউল করিম বলেন, যাত্রী বেশি থাকায় ট্রেনটি ধীরে চলেছে। আর ট্রেনটি নির্ধারিত সময়ে ছাড়তে পারেনি।
 
ফিরতি ট্রেনগুলো আসতে দেরি করায় ছাড়তেও বিলম্ব হচ্ছে। নীলসাগর এক্সপ্রেস ট্রেনটি মঙ্গলবার সকাল ৮টায় ছাড়ার কথা থাকলেও সাড়ে ১০টা পর্যন্ত প্ল্যাটফর্মেই আসেনি।  
 
টাঙ্গাইলগামী নীলসাগর এক্সপ্রেসের যাত্রী আমিনুল ইসলাম জানালেন, আড়াই ঘণ্টা ধরে বসে আছি। কখন আসবে জানি না।
 
কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে স্থাপিত ডিজিটাল বোর্ডগুলোতে ঢাকায় ট্রেন পৌঁছানোর তথ্যে দেখা গেল নীলসাগর এক্সপ্রেস ট্রেনটি চিলাহাটি থেকে ছেড়ে সকাল ৭টা ১০ মিনিটে পৌঁছানোর কথা। সম্ভাব্য সময় দেওয়া ছিল সাড়ে ১০টা। রংপুর এক্সপ্রেস ট্রেনটি সকাল ৬টা ৬ মিনিটে পৌঁছানোর কথা থাকলেও সম্ভাব্য সময় ১০টা ২০ মিনিটে পৌঁছায়নি।
  
আর ঢাকা থেকে ট্রেন ছাড়ার তথ্যে দেখা গেছে ধূমকেতু এক্সপ্রেস সকাল ৬টার স্থলে ৯টা ৫৫ মিনিট, সুন্দরবন এক্সপ্রেস সকাল ৬টা ২০ মিনিটের স্থলে ৯টা ৪০ মিনিট, নীলসাগর এক্সপ্রেস ৮টার স্থলে বেলা ২টা, রংপুর এক্সপ্রেস ৯টার স্থলে ১১টা ২০ মিনিট এবং লালমনি ঈদ এক্সপ্রেস ট্রেনটি সোয়া ৯টার স্থলে সাড়ে ১১টায় ছাড়ার কথা।
  
কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন ম্যানেজার সিতাংশু চক্রবর্তী বাংলানিউজকে বলেন, উপচেপড়া ভিড়ের কারণে স্টেশনে দীর্ঘ বিরতি এবং ধীরে চলায় পাঁচটি ট্রেন দেরিতে পৌঁছাচ্ছে। শিডিউল ঠিক রাখতে সাপ্তাহিক বন্ধের দিন সোমবার তিস্তা এক্সপ্রেস, নীলসাগর এক্সপ্রেস এবং চিত্রা এক্সপ্রেস ট্রেন ছাড়া হয়েছে।
 
যাত্রী চাপের কারণে ৩০ আগস্ট পর্যন্ত বিশেষ ট্রেনের সময় বাড়ানো হয়েছে জানিয়ে স্টেশন ম্যানেজার বলেন, আশা করা হচ্ছে বুধবারের (২৯ আগস্ট) মধ্যে শিডিউল ঠিক হয়ে যাবে।
 
গত ২২ আগস্ট যথাযথ ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে সারাদেশে ঈদুল আজহা অর্থাৎ কোরবানির ঈদ উদযাপিত হয়েছে। ঈদের পর ফিরতি পঞ্চম দিনে ঢাকায় আসার তাড়া ছিল চোখে পড়ার মতো। আর কেউ কেউ এখনও বাড়ি যাচ্ছেন।
 
ঈদ উদযাপন শেষে বাড়ি থেকে কর্মস্থলগামী যাত্রীদের জন্য ২৪ থেকে ২৮ আগস্ট ফিরতি বিশেষ ট্রেন চলাচল করছে। আর রোববার থেকে অফিস খুলে যাওয়ায় মূলত গত শুক্র ও শনিবার ঢাকায় মানুষ বেশি ফিরেছেন।  
এর আগে ঈদে বাড়ি গমনেচ্ছু যাত্রীদের জন্য ১৭ থেকে ২১ আগস্ট ট্রেনের বিশেষ সার্ভিস চালু ছিল। তবে বেশ কয়েকটি ট্রেনের শিডিউল বিপর্যয় ছিল এবারও।
 
বাংলাদেশ সময়: ১২১৮ ঘণ্টা, আগস্ট ২৮, ২০১৮
এমআইএইচ/জেডএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa