[x]
[x]
ঢাকা, রবিবার, ৬ কার্তিক ১৪২৫, ২১ অক্টোবর ২০১৮
bangla news

১০ বছরে সবার আশা পূরণ করা সম্ভব নয়

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৮-০৭-২০ ৩:৫৭:২২ এএম
জাতীয় পতাকা এবং পায়রা ও বেলুন উড়িয়ে দ্বি-বার্ষিক সম্মেলনের উদ্বোধন করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। ছবি: বাংলানিউজ

জাতীয় পতাকা এবং পায়রা ও বেলুন উড়িয়ে দ্বি-বার্ষিক সম্মেলনের উদ্বোধন করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। ছবি: বাংলানিউজ

ঢাকা: ১০ বছর ক্ষমতায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে যে সমৃদ্ধি এনে দিয়েছেন তা বিশ্বের অন্য রাষ্ট্রনায়ক পারেননি। তবে কিছু সমস্যা থেকে গেছে। কারণ ১০ বছরেই জনগণের সব আশা পূরণ করা সম্ভব নয় বলে মন্তব্য করেছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম।

শুক্রবার (২০ জুলাই) রাজধানীর ঢাকেশ্বরী মন্দিরে মহানগর সার্বজনীন পূজা কমিটির দ্বি-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, আমরা এগিয়ে যাচ্ছি। আর এই এগিয়ে যাওয়া অনেকেই সহ্য করতে পারছে না। একাত্তরের খুনিদের বিচারের সময় আমরা অনেকের কথাই শুনিনি। অনেকেই অনেক মন্তব্য করেছিল, কিন্তু আমরা সঠিক বিচারের কাজ সম্পাদন করেছি।

আগামী নির্বাচন সংবিধান অনুযায়ী হবে উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, সারাবিশ্বে যেভাবে নির্বাচন হয়, সেভাবেই বাংলাদেশে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। সম্প্রতি শেষ হওয়া বিশ্বকাপে মেসি-নেইমার গোল দিতে যথেষ্ট ব্যর্থতা দেখিয়েছে। কিন্তু আসন্ন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা গোল মিস করবেন না। নির্বাচনে তিনি আবার বিজয়ী হয়ে বাংলাদেশের উন্নয়নের ধারায় ভূমিকা রাখবেন।

এর আগে অনুষ্ঠানের শুরুতে জাতীয় পতাকা এবং পায়রা ও বেলুন উড়িয়ে দ্বি-বার্ষিক সম্মেলনের উদ্বোধন করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম।

মহানগর সার্বজনীন পূজা কমিটির সভাপতি ডি এন চ্যাটার্জীর সভাপতিত্বে এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন- খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট মো. কামরুল ইসলাম, সংসদ সদস্য মো. সেলিম, ভারতীয় হাই কমিশনের ডেপুটি হাই কমিশনার ড. আদর্শ সাইকা, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ভারপ্রাপ্ত মেয়র মো. ওসমান গণি, বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি মিলন কান্তি দত্ত, সাধারণ সম্পাদক নির্মল কুমার চ্যাটার্জী, মহানগর সার্বজনীন পূজা কমিটির সাধারণ সম্পাদক শ্যামল কুমার রায়, সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক জয়ন্ত কুমার দেব প্রমুখ।

এ সময় বক্তারা ঢাকেশ্বরী মন্দিরের জমি ফেরতের দাবি জানিয়ে বলেন, মন্দিরের ২০ বিঘা জমির মধ্যে ১৪ বিঘা জমিই বেদখলে আছে। বাকি ৬ বিঘা জমিতে এই মন্দির স্থাপিত। আমরা আমাদের জমি ফেরত চাই। আমাদের এ ন্যায্য দাবির পক্ষে আগামী নির্বাচনের আগেই সরকারের সহযোগিতা ও হস্তক্ষেপ চাই।

খাদ্যমন্ত্রী বলেন, আপনারা আপনাদের জায়গা উদ্ধারের কথা শুধু বিভিন্ন অনুষ্ঠানে বলেন। আমি আপনাদের অনুরোধ জানাবো ঐক্যবদ্ধভাবে দাবি পেশ করেন। এ বিষয়টি সমাধানের জন্য একটি কমিটি গঠন করেন। আইনি লড়াই করেন। সরকার, প্রশাসন সবাই আপনাদের সার্বিক সহযোগিতা করবে। কিন্তু আপনারা জোরালো অবস্থানে আসেন।

এ বিষয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, আপনারা সঠিক রাস্তায় দাবি নিয়ে আসেন। এ সরকারের আমলেই আপনাদের দাবি পূরণ হবে বলে আশ্বাস দিচ্ছি।

বাংলাদেশ সময়: ১৩৫১ ঘণ্টা, জুলাই ২০, ২০১৮
এমএএম/আরবি/

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache