[x]
[x]
ঢাকা, শুক্রবার, ৬ আশ্বিন ১৪২৫, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮
bangla news

বেরোবির সাবেক উপাচার্যের বিরুদ্ধে দুদকের চিঠি

বাংলানিউজ টিম | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৮-০৩-০৮ ৭:১৮:০১ এএম
বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) সাবেক উপাচার্য ড. একেএম নূর-উন-নবীর

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) সাবেক উপাচার্য ড. একেএম নূর-উন-নবীর

বেরোবি, (রংপুর): বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) সাবেক উপাচার্য ড. একেএম নূর-উন-নবীর অনিয়ম, দুর্নীতি ও ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগ বিষয়ে সুষ্ঠু অনুসন্ধানের স্বার্থে বিভিন্ন রেকর্ডপত্র (কাগজ) পর্যালোচনার জন্য রেজিস্টার বরাবর চিঠি পাঠিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

বৃহস্পতিবার (৮ মার্চ)  দুদকের নির্দেশনায় সংস্থার সমন্বিত জেলা কার্যালয়, রংপুরের সহকারী পরিচালক মো. জাহাঙ্গীর আলম স্বাক্ষরিত চিঠিতে সাবেক ভিসির বিষয়ে ১০টি তথ্য চাওয়া হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্টার ইব্রাহীম কবীর বিষয়টি বাংলানিউজকে নিশ্চিত করেন।

দুদকের চিঠিতে ২০১৩ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত চার অর্থবছরে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি নূর-উন-নবীর আপ্যায়ন খাতে বরাদ্দ এবং তা উত্তোলন/ব্যয়ের বিল ভাউচারসহ সংশ্লিষ্ট রেকর্ডপত্রের সত্যায়িতি ফটোকপি চেয়েছে দুদক। 

ওই অর্থবছরে তার টিএ/ডিএ খাতে বরাদ্দ এবং তা উত্তোলন/ব্যয়ের বিল, ভাউচার, ভ্রমণসূচি ও অফিস আদেশসহ সংশ্লিষ্ট রেকর্ডপত্রের সত্যায়িত ফটোকপি চাওয়া হয়েছে।

কর্মকালীন তিনি ভিসির পদ ছাড়াও আর কোনো কোনো পদে কি মেয়াদে দায়িত্ব পালন করেছেন তার পূর্ণাঙ্গ বিবরণ চাওয়া হয়েছে।

তার কর্মকালীন ড. ওয়াজেদ রিসার্স ইনস্টিটিউটে ২০১১-১২ শিক্ষাবর্ষে এমফিল ও পিএইচডি কোর্সে ভর্তিকৃত গবেষণা, তাদের সুপারভাইজররা, ইউজিসির বৃত্তিপ্রাপ্ত গবেষকদের তালিকা, ইনস্টিটিউটে কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারীর তালিকা এবং সংশ্রিষ্ট রেকর্ডপত্রের সত্যায়িত ফটোকপি চেয়েছে দুদক।

২০১৫ সালের ১৭ এপ্রিল ৪৩তম এবং ১৮ সেপ্টেম্বর ৪৫তম সিন্ডিকেটের রেজুলেশনের সত্যায়িত ফটোকপিও চেয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন।

তার (ভিসি) কর্মকালীন নির্বাহী আদেশে প্রকৌশল পদে ২০১৫ সালের ১৩ মার্চ নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি উক্ত পদে মো. জাহাঙ্গীর আলমের আবেদন ও সংযুক্ত রেকর্ডপত্র, আবেদন যাচাই-বাছাই কমিটির সিদ্ধান্ত/প্রতিবেদন। একই পদে একই বছরের ১৪ অক্টোবর নিয়োগের পুনঃবিজ্ঞপ্তিতে জাহাঙ্গীর আলমের নিয়োগপত্র ও যোগদানপত্রের সত্যায়িত ফটোকপি চাওয়া হয়েছে।

ভিসির কর্মকালীন বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার পদে নিয়োগপ্রাপ্ত/দায়িত্বপালনকারীদের তালিকা এবং তাদের নিয়োগ/পদায়ন সংখ্রান্ত রেকর্ডপত্রের সত্যায়িত ফটোকপি দিতে বলা হয়েছে চিঠিতে।

২০১৫ থেকে ২০১৭ সালে দুই অর্থবছরে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রারের দফতরে আপ্যায়ন খাতে বরাদ্দ এবং তা উত্তোলন/ব্যয়ের বিল ভাউচারসহ সংশ্লিষ্ট রেকর্ডপত্রের সত্যায়িত ফটোকপি চেয়েছে দুদক।

২০১৩ থেকে ২০১৭ সালে চার অর্থবছরে বিশ্ববিদ্যালয়ের গাড়ির জ্বালানি খাত ও রক্ষণাবেক্ষণ খাতে বরাদ্দ এবং সাবেক ভিসি অধ্যাপক ড. এ কে এম নূর-উন-নবী ব্যবহৃত গাড়ির জ্বালানি খাত ও রক্ষণাবেক্ষণ খাতে মোট কতো টাকা ব্যয়/উত্তোলন করেছেন তার বিল-ভাউচারসহ সংশ্লিষ্ট রেকর্ডপত্রের সত্যায়িত ফটোকপি চাওয়া হয়েছে।

এছাড়াও সাবেক ভিসি নূর-উন-নবীর সময়ে ২০১৩ থেকে ২০১৭ সালে ভর্তি পরীক্ষার সম্মানী বাবদ মোট কতো টাকা উত্তোলন/গ্রহণ করেছেন তার তথ্য এবং এই সময়েল মধ্যে ‘বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় উন্নয়ন’ শীর্ষক ফান্ডের ব্যাংক স্টেটমেন্ট আগামী ২০ মার্চের মধ্যে দুদকের কাছে পাঠাতে বলা হয়েছে।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্টার ইব্রাহীম কবীর বাংলানিউজকে বলেন, ‘চিঠি আমার দফতরের এসেছে। আমি রংপুরের বাইরে আছি। গিয়ে এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হবে’।

২০১৭ সালের ৫ মে উপাচার্য অধ্যাপক ড. একেএম নুর-উন-নবীর চার বছর মেয়াদ শেষ হয়। এর ২৫ দিনের মাথায় নতুন উপাচার্য হিসেবে অধ্যাপক ড. নাজমুল আহসান কলিম উল্লাহকে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়োগ দেওয়া হয়।

বাংলাদেশ সময়: ১৮১৮ ঘণ্টা, মার্চ ০৮, ২০১৮
এমআইবি/এমআইএইচ/জিপি

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa