bangla news

ফরিদপুরে পেটে বাচ্চা রেখেই অস্ত্রোপচার

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৮-০২-১৮ ৬:০৩:৪৭ এএম
ফরিদপুরের মানচিত্র

ফরিদপুরের মানচিত্র

ফরিদপুর: চিকিৎসকের খামখেয়ালিপনায় মরতে বসেছে সেলিনা বেগম (৩৫) নামের এক রোগী। সিজার করে একটি বাচ্চা বের করে আরেক বাচ্চা পেটে রেখে অস্ত্রোপচার শেষ করায় এমন অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

সেলিনা ফরিদপুরের সালথা উপজেলার রসুলপুরের সদ্য সৌদি প্রবাসী আজাদ খলিফার স্ত্রী।

রোগীর বড়বোন জাহানারা পারভীন জানান, শনিবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে প্রসব ব্যথা ওঠলে সেলিনাকে ফরিদপুর শিশু হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে রাত ৮টার দিকে ডা. রিজিয়া আলম সিজার করলে একটি ছেলে সন্তানের মা হয় সেলিনা।

তিনি আরো বলেন, এরআগে আমরা আলট্রাসনোগ্রাম করে জানতে পেরেছিলাম সেলিনার দুইটি সন্তান হবে। তাই এক বাচ্চা পেয়ে আমরা সবাই অবাক হই। তখন চিকিৎসককে জিজ্ঞাসা করলে তিনি পেটে বাচ্চা নেই বলে জানান। চিকিৎসক বিশ্বাস করে আমরা বিষয়টি মেনে নেই। 

কিন্তু রাত ৩টার দিকে পেটে ব্যথা বাড়তে থাকায় অসুস্থ হয়ে পড়ে সেলিনা। ওই অবস্থা রাত পার করে রোববার (১৮ ফেব্রুয়ারি) সকালে চিকিৎসকের কাছে ব্যথার বিষয়ে জানানো হলে তিনি আলট্রাসনোগ্রাম করানোর পরামর্শ দেন। তার পরামর্শ ফের  আলট্রাসনোগ্রাম করালে সেলিনার পেটে আরেক বাচ্চা রয়ে গেছে বলে জানা যায়।

এমতাবস্থায় সেলিনার ফের অস্ত্রোপচারের জন্য দু’ব্যাগ ‘এবি পজিটিভ’ রক্তের প্রয়োজন। কিন্তু কোথাও রক্ত পাচ্ছি না। চিকিৎসক জানিয়েছেন তাকে দ্রুত অস্ত্রোপচার করতে হবে। এ জন্য জরুরি রক্তের প্রয়োজন। মোবাইল-০১৭৪৯০২৮১৯৬।

এ বিষয়ে ডা. রিজিয়া আলম বলেন- রোগীর সিজার করা হয়েছে, কোনো সমস্যা নেই। তাছাড়া আমি এখন আরেক রোগীর আপারেশন নিয়ে ব্যস্ত আছি, ফ্রি হয়ে কথা বলবো।

বাংলাদেশ সময়: ১৬৫৫ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ১৮, ২০১৮
ওএইচ/

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2018-02-18 06:03:47