ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৯ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৩ আগস্ট ২০২০, ২২ জিলহজ ১৪৪১

জাতীয়

সাত বছরে সাত শতাধিক পত্রিকার নিবন্ধন!

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৪০৮ ঘণ্টা, জানুয়ারী ২৫, ২০১৮
সাত বছরে সাত শতাধিক পত্রিকার নিবন্ধন!

সংসদ অধিবেশন থেকে: বিগত ৭ বছরে প্রায় ৭ শতাধিক পত্রিকার নিবন্ধন দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে ৩১টি স্যাটেলাইট চ্যানেল, ২৮টি এফএম বেতার এবং ৩২টি কমিউনিটি রেডিও’র অনুমোদন দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু।

বৃহস্পতিবার (২৫ জানুয়ারি) বিকেলে জাতীয় সংসদ অধিবেশনে প্রশ্নোত্তর পর্বে আওয়ামী লীগ দলীয় সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীমের এক প্রশ্নের জবাবে এসব তথ্য দেন তিনি।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, বর্তমানে সরকারি ৪টি টেলিভিশনের পাশাপাশি বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ২৮টি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল, ২২টি এফএম ও ১৭টি কমিউনিটি রেডিও সম্প্রচার কার্যক্রম পরিচালনা করছে।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, সারাদেশে বর্তমানে দৈনিক, সাপ্তাহিক, পাক্ষিক, মাসিক, ত্রৈমাসিক, ষান্মাসিক মিলে বর্তমানে ২ হাজার ৮শ’ পত্রিকা প্রকাশিত হচ্ছে। এছাড়া সংবাদপত্রে কর্মরত সাংবাদিকদের পেশাগত দক্ষতা, উৎকর্ষ বৃদ্ধির লক্ষ্যে বাংলাদেশ প্রেস ইনস্টিটিউট বর্তমান সরকারের সময়ে ১৬ হাজার ১ জন সাংবাদিককে প্রশিক্ষণ দিয়েছে। অপরদিকে ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় কর্মরত সাংবাদিকদের পেশাগত দক্ষতা, উৎকর্ষ বৃদ্ধির লক্ষ্যে জাতীয় গণমাধ্যম ইনস্টিটিউট একই সময়ে ২ হাজার ২৫৫ জন সাংবাদিককে প্রশিক্ষণ দিয়েছে।

হাসানুল হক ইনু বলেন, একই সময়ে জাতীয় গণমাধ্যম ইনস্টিটিউট ১ বছর মেয়াদী পোস্ট গ্রাজুয়েট ডিপ্লোমা ইন ব্রডকাস্ট জার্নালিজম শীর্ষক প্রথম কোর্স সম্পন্ন করেছে। এছাড়া প্রেস ইনস্টিটিউট ২ বছর মেয়াদী সাংবাদিকতায় মাস্টার ডিগ্রি কোর্স চালু করার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।  

তথ্যমন্ত্রী বলেন, সরকার সাংবাদিকদের কল্যাণে আর্থিক সহায়তা তহবিল থেকে দুস্থ, অস্বচ্ছল, দুর্ঘটনায় আহত ও নিহতদের পরিবারকে আর্থিক সহায়তা দিয়েছে। এর মধ্যে ২০১৪-১৫ অর্থবছরে ১৮১ জন, ২০১৩-১৪ অর্থবছরে ১৯৬ জন ও ২০১২-১৩ অর্থবছরে ১৮৫ জন এবং ২০১১-১২ অর্থবছরে ৬১ জনকে ৫০ হাজার থেকে ২ লাখ টাকা পর্যন্ত আর্থিক সহায়তা দিয়েছে।

তিনি জানান, সাংবাদিকদের জন্য বর্তমান সরকার অষ্টম মজুরি বোর্ড বাস্তবায়ন করছে এবং ৯ম সংবাদপত্র মজুরি বোর্ড গঠনে চূড়ান্তকরণের নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে।  

তথ্যমন্ত্রী বলেন, বর্তমান সরকার সাংবাদিকদের জাতীয় অনলাইন নীতিমালা প্রণয়ন করেছে। সরকার সাংবাদিকদের বিশেষ অবদানের জন্য বৃত্তি প্রদান, সাংবাদিকদের মেধাবী ছেলে-মেয়েদের জন্য এককালীন বৃত্তি এবং অবসরপ্রাপ্ত প্রথিতযশা প্রয়াত সাংবাদিকদের অস্বচ্ছল পরিবারের সদস্যদের আর্থিক সহায়তা ও তাদের কল্যাণে বিভিন্ন পদক্ষেপ ও কর্মসূচি গ্রহণ করেছে।

বাংলাদেশ সময়: ২০০৪ ঘণ্টা, জানুয়ারি ২৫, ২০১৮
এসএম/এমজেএফ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa