ঢাকা, শনিবার, ৯ চৈত্র ১৪২৫, ২৩ মার্চ ২০১৯
bangla news

ছুটির দিনে সবুজ পাহাড়ঘেরা সীতাকুণ্ডে

সোলায়মান হাজারী ডালিম, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৭-০৮-২৪ ১১:৫২:১৬ পিএম
ছুটির দিনে সবুজে মোড়া পাহাড়ঘেরা সীতাকুণ্ডে/ ছবি: বাংলানিউজ

ছুটির দিনে সবুজে মোড়া পাহাড়ঘেরা সীতাকুণ্ডে/ ছবি: বাংলানিউজ

সীতাকুণ্ড (চট্টগ্রাম) থেকে ফিরে: ভ্রমণে কারও ভালো লাগে সমুদ্রতীরে দাঁড়িয়ে নিজেকে নতুন করে জানতে,কারও ভালো লাগে সবুজে মোড়া অরণ্যেঘেরা পাহাড়, কারওবা ভালো লাগে ঝর্নায় কান পেতে জলের কল্লোল শুনতে শুনতে তাপিত দেহটাকে ভেজাতে।

ভালো লাগার এ সবটুই পাবেন চট্টগ্রামের পাহাড়ঘেরা সবুজে মোড়া জনপদ সীতাকুণ্ডে। সবুজের গহীন অরণ্য, উচঁ-নিচু পাহাড়, বন্যপ্রাণী আর ঝর্নার ঠাণ্ডা স্বচ্ছ জল অপেক্ষা করে আছে আপনার মন ভালো করে দিতে।

সারা সপ্তাহের কাজের একঘেঁয়েমি দূর করতে এ ছুটির দিনটিতেই বেরিয়ে পড়ুন সীতাকুণ্ড বোটানিক্যাল গার্ডেন ও ইকো-পার্কে উদ্দেশ্যে। পাহাড়ের চূড়ায় বসে দর্শন পাবেন দূর সমুদ্রের। যা মন ভালো করে দেবে নিমেষেই।

বাংলাদেশে বসবাসকারী হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের তীর্থস্থান ঐতিহাসিক চন্দ্রনাথ পাহাড়ের পাদদেশে দেশের প্রথম এবং এশিয়া মহাদেশের বৃহত্তম এ ইকোপার্ক ও বোটানিক্যাল গার্ডেনটির অবস্থান। জীব-বৈচিত্র্য সংরক্ষণ ও বন্যপ্রাণীর অভয়ারণ্য এবং পর্যটকদের বিনোদনের জন্য বন বিভাগের প্রচেষ্টায় গড়ে ওঠা পার্কটিতে রয়েছে বিরল প্রজাতির গাছপালা, হাজারো রকমের নজকাড়া ফুলের গাছ, কৃত্রিম লেক ও বিরল প্রজাতির পাখি। রয়েছে সুপ্তধারা ও সহস্র্রধারা ঝর্নাসহ ঝিরিপথের ছোট-বড় বেশ কয়েকটি ঝর্না।ছুটির দিনে সবুজে মোড়া পাহাড়ঘেরা সীতাকুণ্ডে/ ছবি: বাংলানিউজএকা নয় ইচ্ছে করলে বেরিয়ে পড়তে পারেন পরিবারসমেত। তার জন্য রয়েছে পিকনিক স্পট, বিশ্রামের ছাউনি। পাহাড়ের বাঁকে বাঁকে হাঁটতে হাঁটতে দেখা পেয়ে যেতে পারেন বন্যপ্রাণীর। পার্কটিতে রয়েছে মায়াহরিণ, বানর, হনুমান, শূকর, সজারু, মেছোবাঘ, ভালুক ও বনমোরগ। শীতকালে গেলে দেখা পেয়ে যেতে পারেন দাড়াঁশ, গোখরা, লাউডগাসহ নানা প্রজাতির সাপ ও জলজ প্রাণীর।

১০ টাকায় প্রবেশ-টিকেট হাতে নিয়ে মূল ফটক পেরিয়ে একটু এগোলেই চোখে পড়বে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের স্মৃতিস্তম্ভ। কবি এসেছিলেন পাহাড়ের এ জনপদে। এরই বিস্তারিত লেখা আছে স্তম্ভটির পাশে সাঁটানো সাইনবোর্ডে। এর কিছুদূর গেলে চোখে পড়বে ম্যাপ। সেখানে দেখানো হয়েছে পার্কটি কোথায় কি দর্শনীয় স্থান।

সেখানে নির্দেশিত পথ ধরে দেড় কিলোমিটার হাঁটলেই চোখে পড়বে ‘সুপ্তধারা ঘুমিয়ে পড়ি জেগে উঠি বরষায়’। এরপর প্রায় এক কিলোমিটার পাহাড়ি ট্রেইল পেরিয়ে দেখা পাবেন অনিন্দ্যসুন্দর ঝর্না ‘সুপ্তধারা’র।ছুটির দিনে সবুজে মোড়া পাহাড়ঘেরা সীতাকুণ্ডে/ ছবি: বাংলানিউজ
ঝর্নাটি দেখে আবার ওপরে উঠলে চোখে পড়বে একটি কুলিং কর্নার। সেখানে কিছু খেয়ে নিয়ে আবার হাঁটাপথে ১ কিলোমিটার পর্যন্ত গেলে চোখে পড়বে সহস্র্রধারা ঝর্নার সাইন বোর্ড। এই এক কিলোমিটার পথে পাবেন পিকনিক স্পট, ওয়াচ টাওয়ার, হিম চত্বরসহ বেশ কিছু দর্শনীয় স্থান। সেখানে সেট করা চেয়ারে বসে দেখে নিতে পারেন দূর সমুদ্রের রূপ।

সহস্র্রধারা ঝর্ণা দেখে এসে বোটানিকাল গার্ডেনের উত্তরে গেলে চোখে পড়বে পাহাড় আর পাহাড়। এ যেন পাহাড়ের স্র্রোত। একটু বেশি সময় হাতে নিয়ে বের হলে সময় কাটাতে পারেন কৃত্রিম লেকে। সহস্র্র ধারা ও সুপ্তধারা ঝর্না থেকে বহমান জলকে কৃত্রিম বাঁধ তৈরির মাধ্যমে গড়ে তোলা হয়েছে। তাতেই ব্যয় করতে পারেন কিছু সময়।

এ পার্কটির মূল আকর্ষণ চন্দ্রনাথ মন্দির। টিকেট কাউন্টার থেকে ৫ কিলোমিটার। চাইলে পায়ে হেঁটে না হয় গাড়ি ভাড়া করেও যেতে পারেন মন্দিরে।

চন্দ্রনাথ শিবমন্দিরে যাওয়ার আগে আঁকাবাঁকা রাস্তায় এক পলকে চোখ পড়বে পাহাড়ে জন্মানো নাম না জানা না প্রজাতির ফুল পাখি আর বন্যপ্রাণী। গাড়িতে করে মন্দিরের ঠিক নিচে এস পৌঁছলেই মূল অ্যাডভেঞ্চার- বাইতে হবে পাহাড়ি পথে খাড়া সিঁড়ি। তারপর দেখা মিলবে মন্দিরের। সেখানে সনাতন ধর্মাবলম্বীরা পূজায় মগ্ন। ফাল্গুনে শিবসংক্রান্তি পূজার সময় দেশ বিদেশের বৈষ্ণব-বৈষ্ণবীদের কীর্তনে মুখর হয়ে ওঠে পুরো চন্দ্রনাথ ।ছুটির দিনে সবুজে মোড়া পাহাড়ঘেরা সীতাকুণ্ডে/ ছবি: বাংলানিউজচন্দ্রনাথ মন্দির দেখে এবার ফিরতে পারেন।কারণ আপনার শরীর আর ধকল সইতে পারবে না। ফেরার পথে সীতাকুণ্ড বাজারে এলে কাছেই রয়েছে গুলিয়াখালী সমুদ্রসৈকত। এ সৈকতটি অন্য সব সৈকত থেকে পুরোপুরি আলাদা। বিচ সম্পর্কিত ধারণা ভেঙ্গে দেবে এর সৌন্দর্য। মাটির গঠন। এখানে বিস্তৃত সমভূমি নয়, বরং মাটির মাঝ দিয়ে খালের মতো এঁকেবেঁকে ঢুকে গেছে সমুদ্র। । সবুজ ঘাসের ফাঁকে স্রোতের জল ঢুকে পড়া বিচটি মুগ্ধ করবে সবাইকে।

যেভাবে যাবেনঃ
ঢাকা থেকে বাস, ট্রেন দু’পথেই পথেই সীতাকুণ্ড যাওয়া যায়। ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম যাওয়ার পথে সব বাসই সীতাকুণ্ডে থামে। আর ট্রেনে করে যেতে হলে কমলাপুর রেলস্টেশন থেকে ঢাকা মেইল ট্রেনে উঠতে হবে। ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম রুটে চলাচলকারী ট্রেনগুলোর মধ্যে শুধুমাত্র এই ট্রেনটিই সীতাকুণ্ড স্টেশনে যাত্রী ওঠা-নামার জন্য থামে। ঢাকা মেইল ট্রেনটি ঢাকা থেকে ছাড়ে রাত ১১টায় এবং সীতাকুণ্ডে পৌঁছায় সকাল ৭ টায়। শিবচতুর্দশী মেলার সময় এ রুটের অন্যান্য ট্রেনও সীতাকুনণ্ডে যাত্রী ওঠা-নামা করে।ছুটির দিনে সবুজে মোড়া পাহাড়ঘেরা সীতাকুণ্ডে/ ছবি: বাংলানিউজথাকা খাওয়ার ব্যবস্থাঃ
দর্শনার্থীদের থাকার জন্য সীতাকুণ্ডে তেমন কোনো ভালো হোটেল নেই। থাকতে হলে চলে যেতে হবে চট্টগ্রামে। অথবা পাশের জেলা ফেনীতে। আর কেউ চাইলে অনুমতি নিয়ে থাকতে পারেন মন্দিরগুলোতেই। খাওয়ার জন্য সীতাকুণ্ড বাজারেই রয়েছে বেশ কয়েকটি ভালো মানের হোটেল। সীতাকুন্ড ট্যুরের জন্য সকালে এসে সারাদিন ঘুরে সন্ধ্যায় নিজ গন্তব্যে ফিরে যাওয়াই ভাল।

বাংলাদেশ সময়: ০৯৪৫ ঘণ্টা, আগস্ট ২৪, ২০১৭
এসএইচডি/জেএম

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14