bangla news

এবার দু`সন্তানসহ ট্রেনের নিচে লাফিয়ে পড়ে আত্মহত্যার চেষ্টা

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১০-০৮-০৯ ১২:২৫:০৫ এএম

স্বামীর অত্যাচার থেকে বাঁচতে এবার দু’ সন্তানসহ ট্রেনের নিচে লাফিয়ে পড়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছেন এক মা। সোমবার দুপুরে রাজধানীর বনানী সৈনিক কাব সংলগ্ন রেললাইনে এ ঘটনা ঘটে।

ঢাকা: স্বামীর অত্যাচার থেকে বাঁচতে এবার দু’ সন্তানসহ ট্রেনের নিচে লাফিয়ে পড়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছেন এক মা। সোমবার দুপুরে রাজধানীর বনানী সৈনিক কাব সংলগ্ন রেললাইনে এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, ৩৫ বছর বয়সী মাকসুদা ওরফে মাসুদা বেগম তার আট বছরের ছেলে নাজমুল আশরাফ ও ২ বছরের মেয়ে তানজীনা আক্তারকে নিয়ে রেললাইনের পাশে বসেছিলেন। এ সময় কমলাপুরগামী দ্রুতগতির একটি ট্রেন আসতে দেখে তারা রেললাইনে ঝাপিয়ে পড়েন। এতে ট্রেনের ধাক্কা লেগে গুরুতর আহত হন মাকসুদা ও মেয়ে তানজীনা। তবে নাজমুল অক্ষত থাকেন।

এ সময় তাদের উদ্ধার করে স্থানীয় একটি কিনিকে ভর্তি করেন আব্দুল হালিম নামে এক ব্যক্তি। তবে কিনিকের চিকিৎসকদের পরামর্শে সন্ধ্যার দিকে তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।   

মাকুসদার স্বামী মো. আশরাফ আলী তেজগাঁওয়ে একটি লেবেল কারখানায় কাজ করেন। ভাড়া থাকেন তেজগাঁওয়ের কুনিপাড়ায় একটি টিনশেড বাড়িতে।  তাদের গ্রামের বাড়ি নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলার বিষ্ণুদি গ্রামে।
 
আহতের ছেলে নাজমুল জানান, এক মাস আগে তারা গ্রামের বাড়িতে বেড়াতে যায়। দু’ তিন দিন আগে তার বাবাও গ্রামের বাড়ি যান।

তিনি বলেন, ‘ এ সময় বাবা মার মধ্যে ঝগড়া বাঁধে এবং বাবা মাকে মারে। আজ সকালেও মারপিটের এক পর্যায়ে মা অজ্ঞান হয়ে যায়।’

এরপর মাসুদা কানের দুল আটশ’ টাকায় বিক্রি করে তার বাবাকে না জানিয়ে ঢাকায় চলে আসেন। নিজেদের বাসায় না ওঠে রেললাইনের পাশে তাদের নিয়ে আসে বলে জানান নাজমুল।

এ সময় তাদের দু’ ভাই বোনকে রুটি-কলা কিনে দিয়ে মাসুদা তাকে রেললাইনের পাশে দাঁড়াতে বলেন। যখন ট্রেন আসে তখন তার মা ছোট বোন তানজীনাকে কোলে নিয়ে রেললাইনের ওপরে গিয়ে দাঁড়ান বলে জানান তিনি।

‘কোথায় যাচ্ছ প্রশ্ন করলে মা বলে, তোদের নিয়ে মরতে যাচ্ছি। এর পরই ট্রেন ধাক্কা মারে।’ বলেন নাজমুল।

তিনি আরও বলেন, ‘ঝাপ দেওয়ার আগে মা ১ শ’ ৩০ টাকা এবং একখণ্ড কাগজে একটি মোবাইল নাম্বার পকেটে ঢুকিয়ে দিয়ে বলে ফোন করে তোর মামাকে জানিয়ে দিস আমরা মারা গেলাম।’

সম্প্রতি সন্তানসহ মায়েদের আত্মহত্যার প্রবণতা বেড়ে যাচ্ছে দেশে।

গত ১০ জুন জুরাইনে ফারজানা কবির রীতা তার দু’ সন্তানসহ আত্মহত্যা করেন। এরপর গত ০৫ আগস্ট গৃহবধূ বিলাসী বেগম তার দু’ সন্তানকে নিয়ে শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দিয়ে আত্মহত্যা করেন।

বাংলাদেশ সময়: ২০৪৫ঘণ্টা, আগস্ট ৯, ২০১০  

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2010-08-09 00:25:05