ঢাকা, সোমবার, ২৬ শ্রাবণ ১৪২৭, ১০ আগস্ট ২০২০, ১৯ জিলহজ ১৪৪১

জাতীয়

জননিরাপত্তার জন্য বন্ধ করে দেওয়া অবৈধ রেলক্রসিং খুলে দিলেন এমপি কবরী

জেলা প্রতিনিধি | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১৫২ ঘণ্টা, এপ্রিল ১২, ২০১১

নারায়ণগঞ্জ: দুর্ঘটনা এড়াতে রেলের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার নন্দলালপুরে অবৈধ একটি রেল ক্রসিং বন্ধ করে সেখানে নিরাপত্তা বেষ্টনী দেওয়া হয়। কিন্তু সরকার দলীয় এমপি সারাহ বেগম কবরী রেলওয়ে কর্তৃপক্ষকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে অবৈধভাবে ওই বেষ্টনী খুলে দিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।



রেলওয়ে সূত্রে জানা যায়, এমপি কবরী ও নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার মহিলা ভাইসচেয়ারম্যান ফাতেমা মনির নেতৃত্বে মঙ্গলবার দুপুরে কয়েকশ’ লোক লেভেল ক্রসিংবিহীন অবৈধ সড়কটিতে পুঁতে রাখা লোহার পিলারগুলো খুলে ফেলে। এ পর থেকে ওই সড়ক দিয়ে আবারও বেপরোয়া গতিতে যান চলাচল শুরু হয়।

প্রসঙ্গত, এ বছরের ২৮ ফেব্রুয়ারি সকালে ওই রেল ক্রসিং দিয়ে পারাপারের সময় কাঠবোঝাই একটি ট্রাকের সঙ্গে ঢাকাগামী ট্রেনের সংঘর্ষে ৫ জন নিহত ও শতাধিক আহত হয়। ঘটনার পরপরই লেভেল ক্রসিংবিহীন অবৈধ সড়কটিতে নিরাপত্তা বেষ্টনী স্থাপন করে তা স্থায়ীভাবে বন্ধ করে দেওয়া হয়।

এদিকে, এমপি কর্তৃক অবৈধভাবে বেষ্টনী খুলে দেওয়ার ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করে ওই দুর্ঘটনার তদন্ত কমিটির প্রধান বাংলাদেশ রেলওয়ের বিভাগীয় প্রকৌশলী (অঞ্চল-১) সবুক্তগীন বলেন, ‘সংসদের আইন প্রণেতারা আইন ভঙ্গ করলে আমাদের আর কী করার আছে?’

তিনি জানান, এমপি কবরী একাধিকবার বেষ্টনী খুলে দেওয়ার জন্য স্থানীয় রেলওয়ে কর্তৃপক্ষকে মৌখিক নির্দেশ দেন। তারা এ ব্যাপারে  রেলওয়ের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ এবং সংশ্লিষ্ট মন্ত্রীকে চিঠি দেওয়ার জন্য কবরীকে পরামর্শ দেয়। কিন্তু তিনি তা না করে অবৈধভাবে বেষ্টনী উচ্ছেদ করেছেন।

এ বিষয়ে ফাতেমা মনির বাংলানিউজকে জানান, গত দেড় মাস ধরে সড়কটি বন্ধ থাকায় এলাকার জনসাধারণের চলাচলে অসুবিধা হচ্ছিল। জনস্বার্থেই এ কাজ করা হয়েছে বলে দাবি করেন তিনি।

এ প্রসঙ্গে ঘটনাস্থলে উপস্থিত লোকজনের সামনেই এমপি কবরী বলেন, ‘এ রাস্তায় বেষ্টনী থাকায় পাগলা-নন্দলালপুর সড়কে যান চলাচল বন্ধ ছিল। এ কারণে এলাকার লোকজন দুর্ভোগ পোহাচ্ছিল। এসব দিক বিবেচনা করেই বেষ্টনী উচ্ছেদ করা হয়েছে। ’

বেষ্টনী উচ্ছেদকে আইনবহির্ভূত কাজ উল্লেখ করে রেলওয়ের ফতুল্লা স্টেশন মাস্টার শামসু মো: খাজা সুজন বাংলানিউজকে জানান, অবৈধ সড়কটির নিরাপত্তা বেষ্টনী যারা অপসারণ করেছে ভবিষ্যতে কোনো দুর্ঘটনা ঘটলে তাদেরই এ দায়-দায়িত্ব নিতে হবে।

তিনি আরও জানান, স্থানীয় এমপি আইন প্রণেতা, কিন্তু তিনিও আইনের ঊর্ধ্বে নন।

এদিকে সর্বশেষ খবরে জানা যায়, অবৈধভাবে বেষ্টনী খুলে দেওয়ার ঘটনায় রেলওয়ের ঢাকা বিভাগীয় ঊর্ধ্বতন সহকারী প্রকৌশলী আব্দুল্লাহ বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে কমলাপুর রেলওয়ে থানায় (জিআরপি) সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন।

বাংলাদেশ সময়: ২১২৯ ঘণ্টা, এপ্রিল ১২, ২০১১

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa